×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

০৬ মার্চ ২০২১ ই-পেপার

বিনোদন

৪৪ বছর ধরে তারকা-পত্নী, সানির পরকীয়ার জন্যই কি ক্যামেরায় ধরা দেন না পূজা?

নিজস্ব প্রতিবেদন
১২ জানুয়ারি ২০২১ ০৯:৩১
পূজা দেওল। সুপারস্টার সানি দেওলের স্ত্রী। মিডিয়ার কাছে তিনি ‘মিস্ট্রি ওম্যান’ হিসাবেও পরিচিত। একেবারেই ক্যামেরার সামনে আসেন না তিনি।

তারকাদের জীবন মূলত খোলা বই। তারকাদের এবং তাঁদের সঙ্গে পরিবারের প্রতিটি সদস্যদের জীবন নিয়ে প্রায় কিছুই অজানা থাকে না মিডিয়ার। সবটাই ক্যামেরায় ধরা পড়ে।
Advertisement
সেখানে সুপারস্টারের স্ত্রী হওয়া সত্ত্বেও এখনও পূজার জীবনে সে ভাবে ঢুঁ মারতে পারেনি ক্যামেরার লেন্স। সানির স্ত্রী সম্পর্কে খুব কমই জানা যায়।

৪৪ বছরের দাম্পত্য জীবনে এখনও সানির সঙ্গে ক্যামেরায় ধরা পড়েছে তাঁর এমন হাতেগোনা কয়েকটি ছবিই রয়েছে মাত্র।
Advertisement
কেন ক্যামেরা থেকে মুখ ফিরিয়ে থাকেন পূজা? সানির জীবন নিয়ে একটু নাড়াচাড়া করলেই এর উত্তর পাওয়া যায়।

১৯৭৭-এ বিয়ে করেন সানি। তখন তিনি বলিউডে পা রাখেননি। তাঁর প্রথম ছবিও মুক্তি পায়নি। এর ৬ বছর পর ১৯৮৩-তে রোম্যান্টিক ফিল্ম ‘বেতাব’ মুক্তি পায়।

‘বেতাব’ ছিল সানির ডেবিউ। সুপারহিট হয়েছিল ছবিটি। সানিও দর্শকদের কাছে জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন। কিন্তু দর্শক তো বটেই, বলিউডও জানত না সানির দাম্পত্য জীবনের কথা।

হ্যান্ডসাম তরুণের প্রেমে পড়তে শুরু করলেন তাঁর অনেক সহ অভিনেত্রীই। তাঁদের মধ্যে প্রথম সারিতে ছিলেন অমৃতা সিংহ।

অমৃতার সঙ্গে সানির সম্পর্কের কথা যদিও দেশবাসীর অজানা ছিল না, কিন্তু সেই সম্পর্ক নিয়ে প্রকাশ্যে কখনও কথা বলতে চাইতেন না সানি। অমৃতাকে নিজের জীবনে স্বীকৃতি দিতেও চাইতেন না।

এই বিষয়টিই অমৃতার সন্দেহের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। তিনি খোঁজ খবর নিয়ে জানতে পারে্ন, প্রায়ই লন্ডনে যান সানি। জানতে পারেন, সানি বিবাহিত এবং তাঁর স্ত্রী পূজা লন্ডনে থাকেন।

পূজা পেশায় একজন লেখিকা। তাঁর বাবা বংশসূত্রে ভারতীয় এবং মা ব্রিটিশ। লন্ডনেই বড় হওয়া তাঁর। সানির সঙ্গে সেখানেই আলাপ এবং একান্ত ঘরোয়া অনুষ্ঠানে লন্ডনেই তাঁদের বিয়ে।

পূজা এমনিতেই ক্যামেরার সামনে আসা খুব একটা পছন্দ করতেন না। তার উপর সানির সঙ্গে তাঁর সহ অভিনেত্রীদের সম্পর্কের কথা জানাজানি হওয়ায় মাঝে তাঁদের দাম্পত্যে গণ্ডগোলও শুরু হয়েছিল।

তার উপর প্রথম দিকে নিজেকে বিবাহিত বলে পরিচয় দিতে চাইতেন না সানি। তাই কখনও স্ত্রীকে ক্যামেরার সামনে আসার অনুরোধও করতেন না।

এ সবের মাঝে অমৃতার সঙ্গে তাঁর ব্রেক আপ হয়ে যায়। স্ত্রীর সঙ্গেও তার পর সম্পর্ক ভাল হচ্ছিল, কিন্তু ফের সানির জীবনে অন্য মহিলা চলে আসেন।

তত দিনে ডিম্পল কাপাডিয়ার সঙ্গে তাঁর ঘনিষ্ঠতা নিয়ে কানাঘুষো শুরু হয়ে গিয়েছিল। পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে পৌঁছেছিল যে, স্ত্রী পূজা তাঁকে ডিভোর্স দেওয়ার সিদ্ধান্তও নিয়ে ফেলেছিলেন। কিন্তু পুরো দেওল পরিবার পূজার পাশে দাঁড়িয়েছিল সে সময়।

সানিও স্ত্রীর সঙ্গে ফের সম্পর্ক শুধরে নেন। তবে কোথাও না কোথাও তাঁদের সম্পর্কের সুতোটা বোধ হয় আলগাই রয়ে গিয়েছে।

তার উপর ডিম্পলের সঙ্গে সানির গোপন সম্পর্ক নিয়ে এখনও মাঝে মধ্যেই খবর প্রকাশিত হয়। লন্ডনের রাস্তায় সম্প্রতি তাঁদের হাতে হাত রেখে বসে থাকার ছবিও ভাইরাল হয়েছে।

সানি আর পূজার দুই সন্তান। সন্তানদের সঙ্গে সম্পর্কের বাঁধন শক্ত হলেও স্ত্রী পূজার সঙ্গে বাঁধন আলগাই রয়ে গিয়েছে এবং সে কারণেই দু'জনকে সচরাচর একসঙ্গে দেখা যায় না বলে মনে করা হয়।

এক সাক্ষাৎকারে সানিকে এ বিষয়ে জিজ্ঞাসাও করা হয়েছিল। সানি উত্তরে জানিয়েছিলেন, তাঁর স্ত্রী পূজা ব্যক্তিগত জীবন ক্যামেরাবন্দি করতে পছন্দ করেন না। আর দেওলরা কখনও কোনও বিষয়ে কারও উপর জবরদস্তি করেন না।