Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

১৫ অগস্ট ২০২২ ই-পেপার

URL Copied
Something isn't right! Please refresh.

৪৫ বছরে সর্বোচ্চ, মোদী জমানায় রেকর্ড বেকারত্বের মধ্যে ভারত, বলল সেই ‘গোপন’ রিপোর্ট

দেশে বেকারত্বের হার এখন আক্ষরিক অর্থেই আকাশচুম্বী। গ্রামের থেকে শহরাঞ্চলে বেকারত্বের হার অনেকটাই বেশি। ভারতবর্ষের গ্রামে বেকারত্বের হার ৫.৩

নিজস্ব প্রতিবেদন
নয়াদিল্লি ৩১ জানুয়ারি ২০১৯ ১৩:৩১
Save
Something isn't right! Please refresh.
ফাইল চিত্র।

ফাইল চিত্র।

Popup Close

গত ৪৫ বছরে দেশে বেকারত্বের হার সর্বোচ্চ ২০১৭-১৮ আর্থিক বছরে। ন্যাশনাল স্যাম্পেল সার্ভে অফিসের সমীক্ষায় সামনে এল এই চাঞ্চল্যকর তথ্য। বিজনেস স্ট্যান্ডার্ড পত্রিকার হাতে পৌঁছেছে দেশের কর্মসংস্থানের তথ্য এবং পরিসংখ্যান সংক্রান্ত সমীক্ষার সেই ‘গোপন’ রিপোর্ট। সেখানেই দেখা যাচ্ছে, ২০১৭-১৮ সালে দেশে বেকারত্বের হার ৬.১ শতাংশ, যা গত ৪৫ বছরে সর্বোচ্চ। এই রিপোর্ট প্রকাশ না করা নিয়েই গত কয়েক দিন ধরে চলছিল বিতর্ক। অনুমতি থাকা সত্ত্বেও এই রিপোর্ট প্রকাশ না করায় বুধবারই ইস্তফা দেন ন্যাশনাল স্ট্যাটিস্টিক্যাল কমিশন (এনএসসি) বা জাতীয় পরিসংখ্যান কমিশনের ভারপ্রাপ্ত প্রধান-সহ দুই সদস্য। বিষয়টি নিয়ে কেন্দ্রের তরফে জানানো হয়েছে, ‘ এই রিপোর্ট প্রকাশের সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা আছে আমাদের হাতেই। কখন প্রকাশ করা হবে, সেই সিদ্ধান্তও আমরাই নেব।’ অন্য দিকে নীতি আয়োগের তরফে জানানো হয়েছে, ফাঁস হওয়া রিপোর্টের তথ্য যাচাই করা নয়।

এই রিপোর্টে দেখা যাচ্ছে দেশে বেকারত্বের হার এখন আক্ষরিক অর্থেই আকাশচুম্বী। গ্রামের থেকে শহরাঞ্চলে বেকারত্বের হার অনেকটাই বেশি। ভারতবর্ষের গ্রামে বেকারত্বের হার ৫.৩ শতাংশ, সেখানে শহরাঞ্চলে বেকারত্বের হার পৌঁছেছে ৭.৮ শতাংশে। সামগ্রিক ভাবে সারা দেশে বেকারত্বের হার গত ছয় বছরে ২.২ শতাংশ থেকে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬.১ শতাংশে। অন্য দিকে সারা দেশের যুবসমাজের মধ্যে বেকারত্বের হার ১৩ শতাংশ থেকে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৭ শতাংশে।

২০১৬ সালে মোদী সরকার নোটবন্দি ঘোষণা করার পর এটিই প্রথম সরকারি সমীক্ষা। দেশে বেকারত্ব বাড়ছে, বিরোধীরা লাগাতার এই অভিযোগ তুললেও সেই সংক্রান্ত কোনও সরকারি রিপোর্ট এতদিন সামনে আসেনি। এই রিপোর্ট প্রকাশ নিয়েও বেশ কিছু দিন ধরেই চলছে টালবাহানা। কেন্দ্রের বিরুদ্ধে এই রিপোর্ট চেপে রাখার অভিযোগ তুলে ইতিমধ্যেই ইস্তফা দিয়েছেন ন্যাশনাল স্ট্যাটিস্টিক্যাল কমিশন-এর ভারপ্রাপ্ত প্রধান পি সি মোহনন। তাঁর অভিযোগ ছিল, ‘ন্যাশনাল স্যাম্পল সার্ভে অফিস’ বা এনএসএসও-র ২০১৭-১৮ সালের রিপোর্ট (যা আসলে কর্মসংস্থানের তথ্য ও পরিসংখ্যান) খুঁটিয়ে পরীক্ষার পর ডিসেম্বর মাসেই প্রকাশ করার অনুমোদন দিয়ে দিয়েছিল এনএসসি। কিন্তু তা এখনও প্রকাশ্যে আসেনি’। মোহননের সঙ্গেই ইস্তফা দেন এনএসসি-র আরও এক সদস্য জে ভি মীনাক্ষী। তিনি ইন্ডিয়ান স্ট্যাটিস্টিক্যাল সার্ভিসের প্রাক্তন সদস্য এবং দিল্লি স্কুল অব ইকনমিক্স-এর অধ্যাপক। ২০২০ সাল পর্যন্ত মেয়াদ থাকলেও তার আগেই তাঁরা ইস্তফা দেওয়ায় শুরু হয়েছিল রাজনৈতিক তরজা।

Advertisement



এর আগে গড় জাতীয় উত্পাদন বা জিডিপি নিয়ে বিরোধীদের তোপের মুখে পড়েছিল কেন্দ্র। অভিযোগ উঠেছিল সংশোধনের নামে মনমোহন জমানার জিডিপি কমিয়ে দেখানো হয়েছে, পাশাপাশি ফুলিয়ে ফাঁপিয়ে মোদী জমানার জিডিপি বাড়িয়ে দেখানো হয়েছে। নীতি আয়োগের মতো সংস্থাকে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবে ব্যবহার করার অভিযোগ উঠেছিল কেন্দ্রের বিরুদ্ধে। তার পর রিজার্ভ ব্যাঙ্ক পরিচালনার ক্ষেত্রেও উঠেছিল অহেতুক কেন্দ্রীয় হস্তক্ষেপের অভিযোগ। রিজার্ভ ব্যাঙ্কের গভর্নর উর্জিত প্যাটেলের ইস্তফা সেই বিতর্ক উসকে দিয়েছিল অনেকটাই। তালিকায় ছিল সিবিআই-ও। বিরোধীদের অভিযোগ ছিল, মোদী জমানায় সিবিআইকে ‘খাঁচাবন্দী তোতাপাখি’তে পরিণত করা হয়েছে। নীতি আয়োগ, রিজার্ভ ব্যাঙ্ক, সিবিআই-এর পর সেই তালিকায় সর্বশেষ সংযোজন হল জাতীয় পরিসংখ্যান কমিশন বা এনএসসি, এই অভিযোগ তুলতে দেরি করেনি বিরোধীরা। গত কালই, কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী পি চিদম্বরম কটাক্ষ করেছিলেন, ‘‘পুনর্জীবন না পাওয়া পর্যন্ত এনএসসি-র আত্মার শান্তি কামনা করি। জাতীয় পরিসংখ্যান কমিশনের মৃত্যুতে আমরা গভীর শোকাহত। সেই সঙ্গেই ‘সংশোধনহীন’ জিডিপি প্রকাশের বিরুদ্ধে এই এনএসসি-র লড়াইকে কুর্নিশ করি। দূষিত সরকারের অবহেলায় ২৯ জানুয়ারি আরও একটি স্বশাসিত সংস্থার মৃত্যু হল।’’

আরও পড়ুন: কর্মসংস্থানের তথ্য প্রকাশ করতে দিল না কেন্দ্র, তোপ দেগে ইস্তফা এনএসসি কর্তার



এই রিপোর্টে দেখা যাচ্ছে গ্রামের শিক্ষিত মহিলাদের ক্ষেত্রে ২০০৪-০৫ থেকে ২০১১-১২ অর্থবর্ষ পর্যন্ত বেকারত্বের হার ছিল যথাক্রমে ৯.৭ এবং ১৫.২ শতাংশ। সেই বেকারত্ব ২০১৭-১৮ অর্থবর্ষে গিয়ে পৌঁছেছে ১৭.৩ শতাংশে। গ্রামের শিক্ষিত পুরুষদের ক্ষেত্রে ২০০৪-০৫ থেকে ২০১১-১২ অর্থবর্ষ পর্যন্ত বেকারত্বের হার ছিল যথাক্রমে ৩.৫ এবং ৪.৪ শতাংশ। সেই বেকারত্বই ২০১৭-১৮ আর্থিক বর্ষে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১০.৫ শতাংশে।

এই রিপোর্ট অনুয়ায়ী, গ্রামের ১৫-২৯ বছর বয়সী যুবকদের ক্ষেত্রে বেকারত্বের হার এখন শোচনীয়। ২০১১-১২ সালে সমাজের এই অংশের মধ্যে বেকারত্বের হার ছিল ৫ শতাংশ। ২০১৭-১৮ সালে তা প্রায় তিন গুণ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৭.৪ শতাংশে। গ্রামের ১৫-২৯ বছর বয়সী মহিলাদের ক্ষেত্রেও বেকারত্বের হার উদ্বেগজনক। ২০১১-১২ সাল থেকে ২০১৭-১৮, এই ছয় বছরে তাঁদের মধ্যে বেকারত্বের হার ৪.৮ শতাংশ থেকে বেড়ে হয়েছে ১৩.৬ শতাংশ।



আরও পড়ুন: পর্রীকরকে রাহুলের খোলা চিঠি, লক্ষ্যে মোদীই!

বেকারত্ব নিয়ে ইতিমধ্যেই সুর চড়া করতে শুরু করেছেন বিরোধীরা। এই রিপোর্ট সামনে আসার পরই টুইট করেছেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গাঁধী। নরেন্দ্র মোদীকে হিটলারের সঙ্গে তুলনা করে তাঁর কটাক্ষ, ‘ফুয়েরার আমাদের ২ কোটি কর্মসংস্থানের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। ফাঁস হওয়া এই রিপোর্ট জাতীয় বিপর্যয়ের ঘটনা সামনে আনল।


রাহুলের এই টুইটের পাল্টা জবাব দিতে ছাড়েনি বিজেপিও। রাহুলকে মুসোলিনির সঙ্গে তুলনা করে বিজেপির কটাক্ষ, ‘ উনি উত্তরাধিকার সূত্রেই মুসোলিনির মতো অদূরদর্শিতা পেয়েছেন । এমপ্লয়িজ প্রভিডেন্ট ফান্ডের তথ্য থেকেই স্পষ্ট, গত ১৫ মাসে বেড়েছে কর্মসংস্থানের উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধি হয়েছে।’


সব মিলিয়ে লোকসভা নির্বাচনের ঠিক আগেই এই রিপোর্ট নিশ্চিত ভাবেই অস্ত্র তুলে দিল বিরোধীদের হাতে। প্রশ্নের মুখে পড়ল মোদী জমানায় দেশের অগ্রগতির কথা তুলে ধরতে বিজেপির, ‘ সব কা সাথ, সব কা বিকাশ’ প্রচারও।

গ্রাফিক- শৌভিক দেবনাথ

(ভারতের রাজনীতি, ভারতের অর্থনীতি- সব গুরুত্বপূর্ণ খবর জানতে আমাদের দেশ বিভাগে ক্লিক করুন।)

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)


Something isn't right! Please refresh.

Advertisement