Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

১৪ অগস্ট ২০২২ ই-পেপার

URL Copied
Something isn't right! Please refresh.

‘ক্রোনি’-কথা বারবার নির্মলার মুখেই

তৃণমূলের সৌগত রায়ের মতো অনেকেই কটাক্ষ করলেন, অর্থমন্ত্রী এত বার ‘ক্রোনি’, ‘ক্রোনি’ কেন করছেন?

নিজস্ব সংবাদদাতা
নয়াদিল্লি ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ০৬:৪০
Save
Something isn't right! Please refresh.
অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন।

অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন।
ফাইল চিত্র।

Popup Close

প্রায় ৭৬ মিনিটের বক্তৃতা। তার মধ্যে অন্তত ১৬ বার ‘ক্রোনি’ শব্দের উচ্চারণ।

অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামনের বাজেটের পরেই কংগ্রেস-সহ বিরোধীরা অভিযোগ তুলেছিলেন, এই বাজেট ‘ক্রোনি ক্যাপিটালিস্ট’ বা বন্ধু শিল্পপতিদের জন্য। তিন কৃষি আইন নিয়েও একই অভিযোগ উঠেছে। বলা হয়েছে, দুই শিল্পপতি বন্ধুর জন্যই কৃষি আইন। সংসদে বাজেট বিতর্কেও এরই তির ধেয়ে এসেছে অর্থমন্ত্রীর দিকে। আজ লোকসভায় কিন্তু সবথেকে বেশিবার ‘ক্রোনি’ শব্দটা শোনা গেল।

কখনও তিনি বললেন, ‘‘আমাদের কাছে ‘ক্রোনি’ দেশের আমজনতা।’’ কখনও যুক্তি দিলেন, গ্রামের রাস্তা, বিনামূল্যে রান্নার গ্যাস, রেশন কি ‘ক্রোনি’দের জন্য? অর্থমন্ত্রীর মুখে এত বার ‘ক্রোনি’ শুনে তৃণমূলের সৌগত রায়ের মতো অনেকেই কটাক্ষ করলেন, অর্থমন্ত্রী এত বার ‘ক্রোনি’, ‘ক্রোনি’ কেন করছেন?

Advertisement

মুনাফাখোর শিল্পপতিদের জন্য না বলেও, বিজেপি যে বরাবর দেশের শিল্পপতিদের সাহায্য করার নীতি নিয়ে চলে, তা বুঝিয়ে সীতারামন এ দিন জনসঙ্ঘের উদাহরণ টেনে এনেছেন। তাঁর দাবি, জনসঙ্ঘের সময় থেকেই বিজেপি দেশীয় উদ্যোগপতিদের শিল্পায়নের কাজে সাহায্য করে এসেছে। কংগ্রেসের মতো কখনও রাশিয়ার সমাজবাদ, কখনও চিনের মতো কমিউনিস্ট, আবার কখনও আমেরিকা-ইউরোপের মতো উদারবাদী, আর্থিক সংস্কারবাদী হয়ে যায়নি।

অম্বানী-আদানিদের জন্যই কৃষি আইন আনা হয়েছে বলে কংগ্রেসের অভিযোগের মুখে নির্মলা আজ পাল্টা আক্রমণে কেরলের ভিজিনজাম বন্দরের দিকে আঙুল তুলেছেন। তাঁর অভিযোগ, কেরলে কংগ্রেস সরকার এই দু’জনের মধ্যে এক জন শিল্পপতিকেই বন্দরের উন্নয়নের জন্য আমন্ত্রণ করেছিল। কোনও রকম দরপত্রের মধ্যে যায়নি। কৃষি আইন নিয়ে তোপের মুখে নির্মলার প্রশ্ন, কংগ্রেস কেন ‘ইউ-টার্ন’ নিল? কেন এতদিন কৃষি সংস্কারের কথা বলে এখন নিজেরাই বিরোধিতা করছে?

কংগ্রেস নেতা জয়রাম রমেশের পাল্টা প্রশ্ন, ‘‘গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী থাকার সময় নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বাধীন কমিটি কেন্দ্রের মনমোহন সরকারের কাছে সুপারিশ করেছিল, এমএসপি-র কমে যেন কেউ ফসল কিনতে না পারেন, তার জন্য আইন আনা হোক। এই ইউ-টার্ন নিয়ে কী বলবেন?’’ কংগ্রেস নেতা অধীর চৌধুরী বলেন, ‘‘এ হল রেগে গিয়ে বেড়ালের মাটি আঁচড়ানো। লকডাউনের সময় কী ভাবে দেশের ধনকুবেরদের সম্পদ ৩৫ শতাংশ বেড়ে গেল, অর্থমন্ত্রীর কাছে তার উত্তর নেই।’’ সীতারামনকে ‘হানিকারক’ অর্থমন্ত্রী বলে কটাক্ষ করে অধীরের অভিযোগ, প্রধানমন্ত্রী ও নির্মলা মিলে দেশের অর্থনীতিকে রসাতলে পাঠিয়েছেন।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)


Something isn't right! Please refresh.

Advertisement