Advertisement
২২ জুলাই ২০২৪
Terrorism

উরির চেয়েও ভয়াবহ, পুলওয়ামায় সিআরপিএফ কনভয়ে জৈশ হামলা, হত বেড়ে ৪০

৮ জন জওয়ানের মৃত্যু হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে খবর মিলেছে।

বিস্ফোরণের পর। ছবি টুইটারের সৌজন্যে।

বিস্ফোরণের পর। ছবি টুইটারের সৌজন্যে।

সংবাদ সংস্থা
শ্রীনগর শেষ আপডেট: ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ ১৬:৩৮
Share: Save:

ফের বড়সড় জঙ্গি হামলায় রক্তাক্ত হল জম্মু-কাশ্মীর। বৃহস্পতিবার বিকেলে পুলওয়ামায় সিআরপিএফ-এর কনভয়ে ঢুকে পড়ে ইম্প্রোভাইসড এক্সপ্লোসিভ ডিভাইস (আইইডি) বোঝাই একটি গাড়ি। স্বরাষ্ট্র দফতর সূত্রে খবর, ওই গাড়িতে অন্তত ৩৫০ কেজি বিস্ফোরক ছিল। সংবাদ সংস্থা পিটিআই সূত্রে খবর, ওই ঘটনায় অন্তত ৪০ জন জওয়ান নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন প্রায় ৪০ জন। যার মধ্যে ১৫ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাঁদের শ্রীনগরে সেনা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

জঙ্গি সংগঠন জৈশ-ই-মহম্মদ এই হামলার দায় স্বীকার করেছে বলে জম্মু-কাশ্মীর পুলিশ সূত্রে খবর। হামলাকারী আদিল আহমেদ দার পুলওয়ামারই কাকাপোরার বাসিন্দা বলে প্রাথমিক ভাবে জানা গিয়েছে। গত বছর সে জৈশ-এ যোগ দিয়েছিল।

ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ঘটনার পর জরুরি বৈঠকে বসেছেন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভাল। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী রাজনাথ সিংহের সঙ্গে বৈঠক করেন প্রধানমন্ত্রী। আগামী কালই পুলওয়ামা যাচ্ছেন রাজনাথ। কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গাঁধী থেকে শুরু করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়— সকলেই হামলার নিন্দা করেছেন এবং নিহতদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন।

সাম্প্রতিক জঙ্গি হামলা সম্পর্কে এই তথ্যগুলি জানেন? খেলুন কুইজ

সক্রিয় রাজনীতিতে যোগ দেওয়ার পর লখনউতে এ দিন প্রথম সাংবাদিক বৈঠক করার কথা ছিল কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়ঙ্কা গাঁধীর। সন্ধ্যা সওয়া সাতটা নাগাদ তিনি সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে জানান, জম্মু-কাশ্মীরের ঘটনা অত্যন্ত দুঃখজনক। এই সময়ে রাজনীতির কথা বলা উচিত নয়। এর পর শহিদ জওয়ানদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করে তিনি বৈঠক শেষ করেন।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, এ দিন পুলওয়ামা জেলার শ্রীনগর-অনন্তনাগ হাইওয়ের উপর দিয়ে জম্মু থেকে শ্রীনগর এগোচ্ছিল সিআরপিএফ-এর ৫০টি গাড়ির কনভয়। পথে গোরিপোরার কাছে আইইডি বোঝাই এসইউভি নিয়ে জওয়ানদের বাসে ধাক্কা মারে জঙ্গিরা। সঙ্গে সঙ্গে তীব্র বিস্ফোরণ ঘটে। বিস্ফোরণের পর নিরাপত্তাবাহিনীকে লক্ষ্য করে জঙ্গিরা গুলিও চালায় বলে দাবি পুলিশের। আত্মঘাতী বিস্ফোরণের সম্ভাবনাও উড়িয়ে দিচ্ছেন না উপত্যকার পুলিশ প্রধান দিলবাগ সিংহ। সিআরপিএফের ডিজি বিজয় কুমার জানিয়েছেন, ওই কনভয়ের ৭০টি গাড়িতে সব মিলিয়ে আড়াই হাজার জওয়ান ছিলেন। যে গাড়িতে হামলা হয়েছে তাতে ৩৯ জন জওয়ান ছিলেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

যে শ্রীনগর-অনন্তনাগ হাইওয়ে-তে বিস্ফোরণ ঘটানো হয়েছে, সর্বদা কড়া নিরাপত্তায় মোড়া থাকে সেটি। এ দিন বিস্ফোরণের সময়ও রাস্তায় টহল দিচ্ছিল সিআরপিএফ, জম্মু-কাশ্মীর পুলিশ এবং সেনার একটি বাহিনী। তাদের নজর এড়িয়ে কীভাবে বিস্ফোরক বোঝাই গাড়ি নিয়ে এই ঘটনা ঘটাল জঙ্গিরা, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। গোটা এলাকায় তল্লাশি অভিযান শুরু হয়েছে।

২০১৬-র ১৮ সেপ্টেম্বর উরির সেনা ছাউনিতে জঙ্গি হামলায় নিহত হয়েছিলেন ১৯ জন সেনাকর্মী। ৪ জন জঙ্গিও মারা গিয়েছিল ওই ঘটনায়। কিন্তু, এ দিনের এই হামলার ঘটনা উরির ভয়াবহতাকেও ছাপিয়ে গিয়েছে। গোয়েন্দা ব্যর্থতার কারণেই এই ঘটনা ঘটে থাকতে পারে বলে প্রাথমিক ভাবে মনে করা হচ্ছে। প্রাক্তন সেনাপ্রধান শঙ্কর রায়চৌধুরীর মতে, এটা গোয়েন্দা ব্যর্থতার কারণেই হয়েছে।

ইতিমধ্যে হামলার তীব্র নিন্দা করেছেন রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লা। নিজের টুইটার হ্যান্ডলে তিনি লেখেন, ‘উপত্যকায় ভয়ঙ্কর হামলা হয়েছে বলে খবর পেলাম। সেখানে আইডি বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে জঙ্গিরা। তাতে বেশ কয়েকজন সিআরপিএফ জওয়ানের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন অনেকে। এই হামলার তীব্র নিন্দা করছি। মৃতদের পরিবারকে সমবেদনা জানাই। আহতদের দ্রুত আরোগ্য কামনা করছি।’

ওমর আব্দুল্লার টুইট।

পিডিপি নেত্রী ও উপত্যকার প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি টুইটারে লেখেন, ‘ভয়ঙ্কর খবর পেলাম। আমাদের ১২ জন জওয়ান শহিদ হয়েছেন। আহত হয়েছেেন আরও অনেকে। যে ভাবেই এই ভয়ঙ্কর হামলার নিন্দা করি না কেন, তা যথেষ্ট নয়। এ ভাবে আর কতদিন চলবে? আর কত জনকে প্রাণ দিতে হবে?’

মেহবুবা মুফতির টুইট।

বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় লেখেন, ‘পুলওয়ামায় ১৩ জন জওয়ান শহিদ হওয়ার খবরে শোকস্তব্ধ আমি। অসীম সাহসের জন্য জওয়ানদের সেলাম জানাই। মৃতদের পরিবার পরিজনদের জানাই সমবেদনা। আহতদের দ্রুত আরোগ্য কামনা করি।’

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের টুইট।

জৈশ-ই-মহম্মদ হামলার দায় স্বীকার করেছে বলে জানিয়েছেন ওমর আবদুল্লাও। ২০১৬ সালে কাশ্মীরের উরিতে সেনা শিবিরে হামলা চালিয়েছিল পাকিস্তানি ফিদায়েঁ জঙ্গিরা। সে বার ১৯ জন জওয়ান প্রাণ হারিয়েছিলেন। তার পর থেকে সেনাবাহিনীকে লক্ষ্য করে এতবড় হামলা আর ঘটেনি।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের মাধ্যমগুলি:
Advertisement

Share this article

CLOSE