প্রাক্তন রুশ গুপ্তচর সের্গেই স্ক্রিপাল এবং তাঁর মেয়েকে নার্ভ এজেন্ট দিয়ে খুন করার চেষ্টার ঘটনায় যে দু’জন সন্দেহভাজনের নাম উঠে এসেছে, তাঁরা কোনও অপরাধী নন— এমন দাবিই করলেন খোদ রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। তাঁর বক্তব্য, ওই দু’জন সাধারণ নাগরিক। 
ব্রিটিশ সরকার জানিয়েছে, দুই অভিযুক্তের নাম আলেকজান্ডার পেত্রোভ এবং রুশলান বশিরভ। তাঁরা রুশ সেনার গোয়েন্দা বিভাগের সদস্য বলে ব্রিটেনের দাবি। পুতিন এ দিন বলেছেন, তাঁর প্রশাসন ওই দু’জনের খোঁজ পেয়েছে। তাঁরা শীঘ্রই প্রকাশ্যে এসে নিজেদের কথা জানাবেন। ভ্লাদিভস্তক থেকে পুতিন বলেছেন, ‘‘আমরা জানি, ওঁরা কারা। ওঁদের খুঁজে পাওয়া গিয়েছে। আমার আশা, ওঁরা নিজেরাই এগিয়ে এসে সব কিছু বলবেন। সেটাই সবার জন্য ভাল হবে। ওঁরা অপরাধী নন। আশ্বাস দিচ্ছি, ভবিষ্যতে সবটা স্পষ্ট হবে।’’ 
স্ক্রিপাল এবং তাঁর মেয়ে ইউলিয়াকে  তাঁদের স্যালিসবেরির বাড়িতে নার্ভ এজেন্ট দিয়ে খুনের চেষ্টা করা হয় বলে অভিযোগ। ব্রিটেনের সংবাদমাধ্যমের দাবি, পুতিন যে ভাবে জানাচ্ছেন, যে ওই দু’জন শীঘ্রই মুখ খুলবেন, তা যথেষ্ট ইঙ্গিতপূর্ণ। তবে প্রশ্ন হল, তাঁরা কারা? কারণ ব্রিটেন সরকারও যে দু’টো নাম প্রকাশ করেছে, সেগুলি আসল নয়। 
স্কটল্যান্ড ইয়ার্ড এবং ব্রিটেনের ক্রাউন প্রসিকিউশন সার্ভিস জানিয়েছে, ওই দু’জনকে অভিযুক্ত করার জন্য যথেষ্ট তথ্যপ্রমাণ আছে। 
২ মার্চ রুশ পাসপোর্ট নিয়েই ওই দু’জন মস্কো থেকে লন্ডনে আসেন। পুলিশের দাবি, তার দু’দিন পরে স্যালিসবেরির উইল্টশায়ার শহরে স্ক্রিপালের বাড়ির সামনের দরজায় নার্ভ এজেন্ট নোভিচক ছিটিয়ে যান ওই দু’জন। ওই দিনই বেলার দিকে রাশিয়া ফিরে যান তাঁরা। ব্রিটিশ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাজিদ জাভিদের বক্তব্য, ৪০-এর আশপাশে বয়স ওই দু’জনের। রাশিয়ার বাইরে পা রাখলেই তাঁদের গ্রেফতার করে বিচার প্রক্রিয়া শুরু করা হবে। রাশিয়া তার নাগরিকদের প্রত্যর্পণ করে না, তাই ব্রিটেনের তরফে এই নিয়ে কোনও অনুরোধ পাঠানো হবে না রুশ সরকারের কাছে। তবে ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত কোনও দেশে তাঁরা যদি যায়, তার জন্য ইউরোপীয় গ্রেফতারি পরোয়ানা রাখা হয়েছে।