ন্যাশনাল রাইফ্‌ল অ্যাসোসিয়েশনের (এনআরএ) প্রবল বিরোধিতা ছিল। কিন্তু সে সব উপেক্ষা করেই বুধবার অস্ত্র আইনে রাশ টানতে এক ধাপ এগোলেন ফ্লরিডার আইনসভার সদস্যেরা। গত কাল ৪০ কোটি ডলারের স্কুল সেফটি বিল পাশ হয়েছে স্টেট সেনেটে। অস্ত্র আইন পরিবর্তনের পক্ষে ৬৭টি এবং বিপক্ষে ৫০টি ভোট পড়েছে সেখানে। বিলটি আপাতত গিয়েছে ফ্লরিডার গভর্নর রিক স্কটের টেবিলে। গভর্নর তাতে সই করলেই নয়া অস্ত্র আইন পাশ হবে ফ্লরিডায়।

মাস খানেক আগে ফ্লরিডারই পার্কল্যান্ডের এক স্কুলে বন্দুকবাজের হামলায় ১৭ জন নিহত হয়। তার পর থেকেই অস্ত্র আইনে রাশ টানার দাবি ওঠে আমেরিকায়। ফ্লরিডায় নয়া আইন পাশ হলে তা গোটা দেশের জন্য নজির সৃষ্টি করবে বলে মনে করছেন ডেমোক্র্যাট নেতারা।

এই বিলে বন্দুক কেনার বয়সের সীমা বাড়ানো থেকে শুরু করে বাম্প স্টকে নিষেধাজ্ঞার মতো বিষয়গুলির উপর জোর দিয়েছেন আইনপ্রণেতারা। বন্দুক কেনার ক্ষেত্রে অন্তত তিন দিনের অপেক্ষা, স্কুলের অশিক্ষক কিছু কর্মীদের হাতে বন্দুক দেওয়ার মতো কিছু শর্তও রাখা হয়েছে নতুন আইনে।

কাল এই বিল নিয়ে আট ঘণ্টা ধরে বিতর্ক চলে স্টেট সেনেটে। বিলের পক্ষে জোর সওয়াল করেন ডেমোক্র্যাট প্রতিনিধি জেয়ার্ড মস্কোউইটজ। ডগলাস হাইস্কুলে এক সময় পড়েছেন তিনি। বন্দুকবাজের হামলায় নিহত পড়ুয়াদের শেষকৃত্যেও সামিল হয়েছিলেন। আইন পরিবর্তনের পক্ষে কথা বলতে গিয়ে এক সময় কান্নায় ভেঙে পড়তে দেখা গিয়েছে তাঁকে।

গভর্নর স্কট আদৌ বিলে সই করবেন কি না, বলেননি। শুধু জানিয়েছেন, ১০৫ পাতার ওই বিল ভাল করে না পড়ে কোনও সিদ্ধান্ত তিনি নেবেন না। প্রয়োজনে নিহত পড়ুয়াদের পরিবারের সঙ্গেও কথা বলবেন বলে জানিয়েছেন তিনি।