ভারতকে কৌশলগত ভাবে গুরুত্বপূর্ণ সবং বন্দর ব্যবহারের অনুমতি দিল ইন্দোনেশিয়া। প্রধানমন্ত্রীর ইন্দোনেশিয়া সফরের আগে এই সিদ্ধান্ত তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছেন কূটনীতিকেরা।

৩১ মে ইন্দোনেশিয়া সফরে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী। আজ সে দেশের সমুদ্রমন্ত্রী লুহুত পান্ডজাতিয়ান জানান, সুমাত্রার উপকূলের কাছে সবং বন্দর ও সবং অর্থনৈতিক এলাকায় লগ্নি করবে ভারত। সেখানে একটি হাসপাতালও তৈরি করবে দিল্লি। আন্দামান দ্বীপপুঞ্জের কাছে ওই বন্দরটি ডুবোজাহাজ-সহ সব ধরনের জলযানের উপযোগী বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি। দু’দেশের উপকূলরক্ষী বাহিনীও একযোগে কাজ করবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

দক্ষিণ চিন সাগরে চিনা প্রভাবের মোকাবিলার জন্য দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলি দিল্লির কাছে গুরুত্বপূর্ণ। এখন এই দেশগুলিও ভারতকে আরও বেশি পাশে চাইছে। ইন্দোনেশিয়ার পদক্ষেপ গুরুত্বপূর্ণ।

ইন্দোনেশিয়ার নৌসেনা সূত্রের খবর, ভারতীয় নৌসেনার জাহাজগুলিকেও সবং বন্দরে আসার অনুমতি দেওয়া হবে। আজ চিনের ‘ওয়ান বেল্ট ওয়ান রোড’ প্রকল্পের সমালোচনা করেন ইন্দোনেশিয়ার সমুদ্রমন্ত্রী। এই প্রকল্পের বিরোধী ভারতও। তাই জাকার্তা যে সরাসরি দিল্লিকে বার্তা দিয়েছে তাতে সন্দেহ নেই কূটনীতিকদের।