তাঁর বাবাকে ফাঁসানো হয়েছে বলে আগেই দাবি করেছিলেন তিনি। এ বার পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের পদত্যাগ দাবি করলেন মরিয়ম নওয়াজ। গত কাল গভীর রাতে পাক পঞ্জাব প্রদেশের মান্ডি বাহাউদ্দিন শহরে মিছিল করেন প্রাক্তন পাক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের মেয়ে মরিয়ম নওয়াজ। বর্তমানে পাকিস্তানের প্রধান বিরোধী দল পিএমএল-এন-এর সহ সভাপতি তিনি। মিছিলে ৪৫ বছরের মরিয়ম বর্তমান পাক প্রধানমন্ত্রীর কড়া সমালোচনা করে জানান অবিলম্বে পদত্যাগ করা উচিত ইমরানের। মরিময়ের দাবি, এই গদিতে বসার বৈধ অধিকারই নেই পাক প্রধানমন্ত্রীর। জনসভায় ইমরানকে উদ্দেশ করেই মরিয়মকে বলতে শোনা যায়, ‘‘ইস্তফা দিন আর বাড়ি যান।’’ প্রথম সারির পাক দৈনিক এই খবর জানিয়েছে।

ইমরানের নিন্দার পাশাপাশি মরিয়মের দাবি, খুব শীঘ্রই জেল থেকে ছাড়া পেয়ে যাবেন তাঁর বাবা। তার পরে তিনিই ফের পাক-প্রধানমন্ত্রীর গদিতে বসবেন। মরিয়মের আরও দাবি, এ বার  অনেক বেশি জন সমর্থন নিয়ে ক্ষমতায় ফিরবে তাঁদের দল। 

ইমরান খান আর তাঁর সরকারের বিরুদ্ধে গত শনিবারই বড়সড় তোপ দেগেছিলেন শরিফ-কন্যা। সে দিন একটি সাংবাদিক বৈঠক করে তিনি দাবি করেন, দুর্নীতি মামলায় ফাঁসিয়ে নওয়াজ শরিফকে জেলে পাঠানো হয়েছে। গত বছর ডিসেম্বরে আল আজ়িজ়িয়া স্টিল দুর্নীতি মামলায় নওয়াজ শরিফ দোষী সাব্যস্ত হন। তাঁকে ৭ বছরের কারাদণ্ডের নির্দেশ দিয়েছিলেন আরশাদ মালিক নামে এক বিচারক। লাহৌরের কোট লাখপত জেলে বন্দি নওয়াজ। তিনি খুবই অসুস্থ বলেও দাবি মরিয়মের। বিচারক আরশাদ উপরতলার চাপের কাছে নতিস্বীকার করে নওয়াজকে জেলে পাঠান বলে শনিবারের সাংবাদিক বৈঠকে দাবি করেছিলেন মরিয়ম। নিজের দাবির সমর্থনে আরশাদ এবং নাসির বাট নামে পিএমএল-এন-এর এক সমর্থকের কথোপকথনের একটি ভিডিয়ো ক্লিপিংও প্রকাশ করেছিলেন মরিয়ম যেখানে আরশাদকে বলতে শোনা গিয়েছে, চাপে পড়েই নওয়াজকে জেলে পাঠাতে বাধ্য হন তিনি। আরশাদ অবশ্য ওই ভিডিয়ো ভুয়ো বলে দাবি করে জানিয়েছেন, ওটা তাঁর বক্তব্যই নয়। কালই তিনি জানিয়েছিলেন, প্রমাণের ভিত্তিতেই নওয়াজের জেল হয়েছে। কারও কাছ থেকে কোনও চাপ ছিল না।