একাধিক নাবালিকার যৌন হেনস্থায় অভিযুক্ত ছিলেন তিনি। নিজের দোষ স্বীকার করে জেলও খেটেছেন এক সময়ে। মার্কিন ধনকুবের জেফরি এপস্টেইন এ বার আরও এক মামলা থেকে মুক্তি পেলেন। অভিযোগকারিণীদের একটা বড় অংশের হয়ে এত বছর ধরে সওয়াল করা আইনজীবী ব্র্যা়ডলি এডওয়ার্ডস নিজের রাজনৈতিক প্রতিহিংসা চরিতার্থ করার জন্য তাঁর চরিত্রে কাদা ছেটানোর চেষ্টা করছেন বলে অভিযোগ করে আসছিলেন জেফরি। সেই সংক্রান্ত একটি মামলা কাল আদালতে পেশ হওয়ার আগেই এডওয়ার্ডসের কাছে ক্ষমা চেয়ে নেন জেফরি। নিজে হাজির না থেকে বিবৃতি পাঠিয়েছিলেন আদালতে। এর ফলে এডওয়ার্ডসের আনা মানহানির মামলা বন্ধ করে দিতে হয়। যার ফলে জেফরির বিরুদ্ধে এই ধরনের আরও অনেক অভিযোগ সামনে আসতে পারবে না বলে মনে করছেন অনেকে। 

বিল ক্লিন্টন থেকে শুরু করে বর্তমান মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। বহু মার্কিন রাজনৈতিকের প্রচার কাজে অর্থ ঢেলেছেন জেফরি। এ হেন জেফরির বিরুদ্ধে কমপক্ষে ৪০ জন মহিলা (যাঁরা এখন বেশির ভাগই কুড়ি বা তিরিশের কোঠায়) যৌন হেনস্থার অভিযোগ আনেন। তাঁদের বেশির ভাগেরই অভিযোগ, তাঁদের যখন আঠারোর নীচে বয়স, জেফরি তাঁর পাম বিচ ম্যানসনে তাঁদের যৌন হেনস্থা করেন। ২০০৮ সালে এর জন্য তেরো মাসের জেলও খেটেছেন জেফরি। কিন্তু প্রভাবশালী হওয়ার দরুণ তাঁকে সেই সময়েও প্রচুর ছাড় দেওয়া হয় বলে অভিযোগ। এমনকি দিনের বেলা নিজের সেলে থাকতেও হত না জেফরিকে। 

আইনজীবী এডওয়ার্ডসের বিরুদ্ধে জেফরি যে সব অভিযোগ এনেছিলেন, তার জন্য গত কাল নিঃস্বার্থ ভাবে ক্ষম চান তিনি। অনেকেই বলছেন, এডওয়ার্ডসকে প্রচুর অর্থও দিচ্ছেন জেফরি। যার জেরেই আদালতের বাইরে এই মামলার মীমাংসা হয়ে গেল। এডওয়ার্ডসের অবশ্য বক্তব্য, জেফরির আনা অভিযোগে তাঁর নয়, তাঁর মক্কেলদের অপমান করা হয়েছে। ওই আইনজীবী আরও জানিয়েছেন, ভবিষ্যতে আরও মহিলা জেফরির বিরুদ্ধে আদালতের দ্বারস্থ হতে চলেছেন।