দেশবাসীর মাথার চুল রফতানি হচ্ছে চিনে। তা বেচে রোজগার প্রায় ১ কোটি টাকা। দেশের সংসদে হিসাব দিল পাকিস্তান সরকার। গত পাঁচ বছরে পড়শি দেশে তারা ১ লক্ষ কেজি চুল বেচেছে বলে জানা গিয়েছে।

শুক্রবার দেশের সংসদে ব্যবসা-বাণিজ্য নিয়ে আলোচনা চলছিল। সেখানে চুল বিক্রির টাকা থেকে রোজগারের হিসাব দেয় সে দেশের বাণিজ্য ও বস্ত্র দফতর। বলা হয়, গত পাঁচ বছরে চিনে মোট ১ লক্ষ ৫ হাজার ৪৬১ কেজি চুল রফতানি করা হয়েছে। সেই বাবদ যে টাকা মিলেছে, ভারতীয় মুদ্রায় তার মূল্য ৯৪ লক্ষ টাকার বেশি।

কিন্তু কী এমন প্রয়োজন হল যে, মোটা টাকা দিয়ে পাকিস্তানের কাছ থেকে চুল কিনছে চিন? তার জবাবও মিলেছে। জানা গিয়েছে, গত কয়েক বছরে চিনে কসমেটিকস ইন্ডাস্ট্রির বাজার আরও বড় আকার ধারণ করেছে। ফ্যাশন এবং স্টাইল নিয়ে সচেতনতা দেখা দিয়েছে সাধারণ মানুষের মধ্যে। নতুন ধরনের পরচুলা এবং রংবেরংয়ের হেয়ারব্যান্ড পরে সাজতে পছন্দ করেন তাঁরা। উন্নতমানের ওই সব সামগ্রী তৈরি করতে সাধারণত মানুষের চুলই ব্যবহার করা হয়। কিন্তু চাহিদার জোগান দিতে হিমশিম খাচ্ছে বেজিং। তাই ইসলামাবাদের দ্বারস্থ হয়েছে তারা। মোটা টাকার বিনিময়ে সেখান থেকে চুল কিনছে।

আরও পড়ুন: ঘাটতি মেটাতে পরীক্ষা ও ইন্টারভিউ ছাড়াই ডাক্তার নিয়োগ করবে বিহার সরকার​

আরও পড়ুন: অ্যামাজন, ফ্লিপকার্টকেও টেক্কা দেবে রিলায়্যান্স-জিও?​

পাকিস্তান সরকারের হিসাব অনুযায়ী, ২০১৩ সালে চিনে ১ লক্ষ ৪৮ হাজার ৯০১ কোজি চুল রফতানি করেছিল তারা। ২০১৪-’১৫ সালে রফতানি করা চুলের পরিমাণ ছিল ১৩ হাজার ১৫০ কেজি। ২০১৫-’১৬ ও ২০১৭-’১৮ সালে যথাক্রমে ১ হাজার ৪১০ কেজি এবং ৭ হাজার কেজি চুল রফতানি করা হয়।

শুধুমাত্র চিনেই নয়, বিভিন্ন পার্লার ও স্যালোঁ থেকে ৫ থেকে ৬ হাজার টাকা কেজি দরে চুল কিনে তা আমেরিকা ও জাপানের মতো দেশেও রফতানি করে পাকিস্তান।