বাড়িতে ঢুকে কৃষ্ণাঙ্গ এক যুবককে গুলি করে মারার অভিযোগ উঠল ডালাসের এক মহিলা পুলিশ অফিসারের বিরুদ্ধে। ওই অফিসারের দাবি, নিজের বাড়ি ভেবে ভুল করে অন্যের বাড়িতে ঢুকে অচেনা লোক দেখে গুলি চালিয়ে দেন তিনি।

পুলিশ প্রধান রেনি হল জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার রাতে ডিউটি শেষ হয়ে যাওয়ার পরে দক্ষিণ ডালাসে নিজের আবাসনে ফেরেন শ্বেতাঙ্গ ওই অফিসার। কিন্তু নিজের বাড়িতে না গিয়ে, তিনি ঢুকে পড়েন বোথাম শেম জেন নামে এক যুবকের বাড়িতে। তখন ভিতরেই ছিলেন ২৬ বছরের ওই কৃষ্ণাঙ্গ যুবক। দু’জনের মধ্যে কী কথা হয়েছিল, তা জানা যায়নি। হল জানান, বোথামকে দেখে গুলি চালিয়ে দেন ওই পুলিশকর্মী। এর পর সে নিজেই ৯১১-এ ফোন করে ‘ভুলের’ কথা জানান। জেনকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে মৃত বলে ঘোষণা করা হয়।

হল জানিয়েছেন, কাজের সময় শেষ হলেও পুলিশের পোশাক পরে ছিলেন ওই অফিসার। ইউনিফর্মে থাকায় তাই প্রথমে তাঁকে গ্রেফতার করা হয়নি। এ বার খুনের অভিযোগে ওই মহিলাকে গ্রেফতার করার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে বলে জানান হল। ওই মহিলা মাদকাসক্ত ছিলেন কি না, তা জানতে রক্তের নমুনা পরীক্ষা করে দেখছেন তদন্তকারীরা। হল বলছেন, ‘‘এখন আমাদের কাছে উত্তরের তুলনায় প্রশ্ন বেশি। তদন্ত যত এগোচ্ছে তত মনে হচ্ছে, পরিস্থিতি একেবারেই অন্য রকম।’’ বর্ণবিদ্বেষের জেরে এই খুন কি না, তা-ও খতিয়ে দেখা হবে। একটি মার্কিন দৈনিকের রিপোর্ট অনুযায়ী, চলতি বছরে এখনও পর্যন্ত আমেরিকায় পুলিশের গুলিতে মৃত্যু হয়েছে ৬৯৪ জনের। 

ফেসবুক থেকে জানা গিয়েছে, ক্যারিবীয় দ্বীপ সেন্ট লুসিয়া থেকে ডালাসে এসেছিলেন জেন। ২০১৬ সালে আরকানসর হার্ডিং বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্র্যাজুয়েট তিনি। বর্তমানে কাজ করতেন একটি বহুজাতিক সংস্থায়। দরাজ গানের গলার জন্য পরিচিত ছিলেন বন্ধুমহলে। তাঁকে স্মরণ করে ফেসবুকে পোস্ট করেছেন ওই যুবকের কাকা। পরিবারের সঙ্গে জেনের একটি ছবি পোস্ট করে লিখেছেন, ‘‘কী ভাবে এই নিষ্ঠুর পৃথিবী আমাদের থেকে তোমাকে কেড়ে নিল?’’

জেনের মা সেন্ট লুসিয়ার প্রাক্তন সরকারি কর্মী। শিক্ষা দফতরে কাজ করতেন তিনি। ফ্লরি়ডায় মেয়ের কাছে ঘুরতে গিয়েছিলেন। সেখানেই ছেলের মৃত্যুর খবর পান। ক্ষোভ উগরে দিয়ে জানান, পুলিশের কথায় এত ধোঁয়াশা যে, কী ভাবে জেনের মৃত্যু হল, তা এখনও স্পষ্ট নয়। তিনি বলেছেন, ‘‘আমি হত্যাকারীর চোখের দিকে তাকিয়ে প্রশ্ন করতে চাই, ও কেন আমার ছেলের সঙ্গে এ রকম করল?’’