এভাবেও কারও উপকার করা যায়, না দেখলে বিশ্বাস করবেন না। চলন্ত রোলার কোস্টারে উড়ে আসা এক মোবাইল ফোন ধরে তেমনটাই করলেন এক ব্যক্তি। ফিরিয়ে দিলেন ফোনের মালিককে। ফোন হাতছাড়া হওয়ার পর ফোনের মালিক অবশ্য ভাবতেই পারেননি, সেটি অক্ষত অবস্থায় ফেরত পাবেন। যিনি মোবাইল ফোনটি ধরেছেন তিনি একজন আন্তর্জাতিক ফিস্টবল খেলোয়াড়।

ফিস্টবল হল ভলিবলের মতো একটি খেলা। এবার ফিস্টবলের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপের আয়োজন হয় স্পেনে। নিউজিল্যান্ডের ফিস্টবল প্লেয়ার স্যামুয়েল কেম্ফ প্রতিযোগিতার ফাঁকে সতীর্থদের সঙ্গে বার্সেলোনার পোর্ট অ্যাভেনচুরা থিম পার্কে যান। সেখানে চড়েন রোলার কোস্টারে। এই পর্যন্ত সবই স্বাভাবিক ছিল। কিন্তু রোলার কোস্টারটি চলতে শুরু করার কিছুক্ষণের মধ্যেই একটি মোবাইলফোন উড়ে আসে স্যামুয়েলের দিকে।ফোন উড়ে আসতে দেখে স্বাভাবিক প্রতিক্রিয়ায় হাত বাড়িয়ে দেন তিনি। তালুবন্দিও করে ফেলেন সেটি। ফোনটি ধরতে পেরে স্যামুয়েল যেন তখন রোলার কোস্টারে চড়ার থেকেও বেশি আনন্দিত। হাত তুলে সবাইকে দেখাতে থাকেন তাঁর কীর্তি।

স্যামুয়েল জানিয়েছেন, তাঁর থেকে দুই সারি সামনের আসনে বসেছিলেন এক ব্যক্তি। রোলার কোস্টার চলতে শুরু করে। খুব দ্রুত গতি বাড়াতে থাকে। তখনই সামনের সারির ওই ব্যক্তির হাত থেকে পড়ে যায় ফোনটি। আর সেটি হাওয়ায় উড়ে চলে আসে স্যামুয়েলের দিকে। স্যামুয়েল যে সময় ফোনটি ধরেন, সেই সময় রোলার কোস্টারের গতি ছিল ঘণ্টায় ১৩৪ কিলোমিটার।

আরও পড়ুন : এই ছোট বিয়ারের বোতলের দাম শুনলে মাথা ঘুরে যাবে!

 

আরও পড়ুন : চাঁদে হাঁটছেন মহাকাশচারী, পাশ দিয়ে হুশ করে বেরিয়ে গেল অটোরিকশা!

রোলার কোস্টার থেকে নেমে মোবাইল ফোনটি মালিককে ফিরিয়ে দেন স্যামুয়েল। ফোন ফেরত পেয়ে যারপরনাই খুশি হয়েছেন ওই ব্যক্তি। বার বার তিনি ধন্যবাদ দেন স্যামুয়েলকে। তাঁর কৃতজ্ঞতার কথাও জানান তিনি।

উড়ন্ত ফোন ধরার এই ভিডিয়োটি রোলার কোস্টারে লাগানো ক্যামেরায় ধরা পড়ে। পরে সেটি সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রকাশ পায়। প্রকাশ পেতেই সেটি ভাইরাল হতে সময় নেয়নি। বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মে সেটি শেয়ার হয়েছে।