Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৬ জুন ২০২২ ই-পেপার

URL Copied
Something isn't right! Please refresh.

অঙ্কে ভীতি, ভূগোলে গোল? এ সব আসলে জিনেরই কেরামতি

অঙ্ক পরীক্ষার আগের দিন ধুম জ্বর! অ্যালজেবরা, ক্যালকুলাস, প্রবাবিলিটি, থিওরেম মাথার মধ্যে সব গুলিয়ে একাকার। এই অবস্থা প্রায় আমাদের সকলেরই চেন

সংবাদ সংস্থা
২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ১৪:৩৪
Save
Something isn't right! Please refresh.
Popup Close

অঙ্ক পরীক্ষার আগের দিন ধুম জ্বর! অ্যালজেবরা, ক্যালকুলাস, প্রবাবিলিটি, থিওরেম মাথার মধ্যে সব গুলিয়ে একাকার। এই অবস্থা প্রায় আমাদের সকলেরই চেনা। অঙ্কের গুঁতো সামলাতে যেমন হিমশিম দশা হয়েছে, তেমনই অঙ্কে পাকা লোকজনের কদরও বেড়েছে তরতর করে। কেউ কেউ আবার ওই গুঁতো সামলে নিয়েও ম্যাপ পয়েন্টিং করতে গিয়ে ল্যাজেগোবরে দশা। এত দিন এ সবের জন্য বাড়ির বড়দের গালিগালাজ শুনলেও এ বার কিন্তু নিশ্চিন্তে দোষ চাপিয়ে দিতে পারেন তাঁদের উপরই। কারণ গবেষকরা জানাচ্ছেন, অঙ্কে ভীতি বা ভূগোলে গোলমালের বীজ লুকিয়ে রয়েছে জিনের মধ্যেই।

লন্ডনের কিংস কলেজের ইনস্টিটিউট অব সাইকিয়াট্রি, সাইকোলজি ও নিউরো সায়েন্সের গবেষক মার্গারিটা মালানচিনি বলেন, ‘‘বিশেষ কিছু জিনের মধ্যেই লুকিয়ে থাকে এই ধরনের উত্কণ্ঠার কারণ। যদি আমরা জিনগত এই কারণ সম্পর্কে অবগত হই, তা হলে কোন শিশুদের মধ্যে এই ধরনের উত্কণ্ঠা দেখা দিতে পারে তা তাদের ছোটবেলা থেকেই ধারণা করা যেতে পারে।’’ এই গবেষণার জন্য ১৯ থেকে ২১ বছর বয়সী ১ হাজার ৪০০ জন যমজের উপর এই গবেষণা চালানো হয়। টুইনস আর্লি ডেভেলপমেন্ট স্টাডি নামের এই গবেষণার ফল সায়েন্টিফিক রিপোর্টস জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে।

Advertisement



বিশেষজ্ঞরা এই গবেষণায় জেনারেল, ম্যাথমেটিক্স, নেভিগেশন, রোটেশন/ভিজুয়ালাইজেশন সংক্রান্ত উত্কণ্ঠা নিয়ে পরীক্ষানিরীক্ষা করেন। দেখা গিয়েছে, যে কোনও ধরনের উত্কণ্ঠার সঙ্গে জিনের গঠন এবং ডিএনএ-র গভীর সম্পর্ক রয়েছে। একই পরিবারের যমজ সন্তানের মধ্যে জিনগত পা‌র্থক্যের জন্য যেমন তাদের পছন্দ-অপছন্দ, উত্সাহ, বন্ধু— সব কিছুই যেমন আলাদা হতে পারে, তেমনই তাদের উত্কণ্ঠা প্রবণতার ক্ষেত্রেও সেই পার্থক্য দেখা যেতে পারে। তারা একই পারিবারিক আবহে বেড়ে ওঠা সত্ত্বেও জিনের গঠন আলাদা হওয়ার কারণে এই চরিত্রগত পার্থক্য দেখা যায়।

আরও পড়ুন: এই ৪ অভ্যাস ছাড়লেই রেহাই পাবেন কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে

এই গবেষণায় দেখা গিয়েছে যারা নেভিগেশন বা দিক নির্ণয় নিয়ে উত্কণ্ঠায় ভোগেন, তারা যে ‘পাজল’ সমাধান করার ক্ষেত্রেও উত্কণ্ঠায় ভুগবেন তার কোনও মানে নেই। আবার অঙ্ক নিয়ে উত্কণ্ঠায় ভোগার সঙ্গেও সাধারণ বিষয় নিয়ে উত্কণ্ঠার কোনও সম্পর্ক নেই। তবে, সারা বিশ্বেই পুরুষদের তুলনায় মহিলারা বেশি উত্কণ্ঠাপ্রবণ বলেই দাবি গবেষকদের। এর একটা ব্যাখ্যাও দিয়েছেন তাঁরা। সায়েন্স, টেকনোলজি, ইঞ্জিনিয়ারিং এবং ম্যাথমেটিক্স— প্রচলিত ধারণা অনুযায়ী এই চারটি বিষয় আসলে পুরুষরাই নিয়ে থাকে। স্টিরিওটাইপ এই ধারণা ভাঙার তাগিদেই মহিলারা বেশি উত্কণ্ঠায় ভোগেন? বিশেষজ্ঞেরা তাতেই সম্মতি দিয়েছেন।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)


Something isn't right! Please refresh.

Advertisement