নরেন্দ্র মোদীর দ্বিতীয় ইনিংসে প্রথম বড় জঙ্গি হামলায় কাশ্মীরে নিহত হলেন দুই অফিসার-সহ পাঁচ জন সিআরপিএফ জওয়ান। জখম হন অনন্তনাগ সদর থানার স্টেশন হাউস অফিসার (ওসি) ইরশাদ আহমেদ-সহ তিন জওয়ান ও এক স্থানীয় মহিলা। নিহত হয়েছে এক জঙ্গিও। হামলার দায় স্বীকার করেছে মুস্তাক আহমেদ জ়ারগারের জঙ্গি সংগঠন আল উমর মুজাহিদিন। অমরনাথ যাত্রার আগে এই হামলা মোদী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সামনে বড় চ্যালেঞ্জ তৈরি করল। 

পুলিশ জানিয়েছে, আজ বিকেল পাঁচটা নাগাদ অনন্তনাগে কেপি রোডে জেনারেল বাস স্ট্যান্ডের কাছে একটি নাকায় মোতায়েন সিআরপিএফ ও পুলিশের যৌথ দলের উপরে হামলা চালায় জঙ্গিরা। প্রথমে গ্রেনেড ছোড়া হয়। তার পরে শুরু হয় গুলিবর্ষণ। জবাব দেন জওয়ানেরাও। ঘটনার খবর পেয়ে অতিরিক্ত বাহিনী নিয়ে ঘটনাস্থলে যান অনন্তনাগ সদর থানার ওসি ইরশাদ আহমেদ। পুলিশ জানিয়েছে, সংঘর্ষে ইরশাদ-সহ আট জন জওয়ান আহত হন। তাঁদের প্রথমে অনন্তনাগ জেলা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে ইরশাদ-সহ তিন জনকে নিয়ে যাওয়া হয় শ্রীনগরে। আহতদের মধ্যে তিন জন সিআরপিএফ জওয়ান হাসপাতালে পৌঁছনোর আগেই মারা যান বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা। পরে হাসপাতালে আরও দুই জওয়ানের মৃত্যু হয়। পুলিশ জানিয়েছে, নিহত জওয়ানেরা হলেন এএসআই নীরু শর্মা, কনস্টেবল সীতেন্দ্র কুমার, কনস্টেবল এম কে কুশওয়া, এএসআই রমেশ কুমার ও কনস্টেবল মহেশ কুমার। অনন্তনাগ থানার ওসি ইরশাদের অবস্থা আশঙ্কাজনক। গুলি বিনিময়ের সময়ে স্থানীয় এক মহিলাও আহত হন। এক জঙ্গি নিহত হয়েছে। তার পরিচয়ও এখনও জানা যায়নি। বাহিনীর ধারণা, দ্বিতীয় জঙ্গি পালিয়েছে। গোটা এলাকা ঘিরে তল্লাশি শুরু করেছে সেনা, পুলিশ ও সিআরপিএফের যৌথ বাহিনী।

হামলার দায় নিয়েছে আল উমর মুজাহিদিন। জঙ্গি নেতা মুস্তাক আহমেদ জ়ারগার ১৯৮৯ সালে এই সংগঠনটি তৈরি করে। পরে ভারতের জেলে বন্দি ছিল জ়ারগার। ছিনতাই হওয়া আইসি-৮১৪ বিমানের যাত্রীদের বিনিময়ে মাসুদ আজহারের সঙ্গে জ়ারগারকেও মুক্তি দিতে বাধ্য হয় ভারত সরকার। গোয়েন্দাদের অবশ্য দাবি, হামলায় আজহারের জইশ ই মহম্মদের ছাপ স্পষ্ট। জম্মু-কাশ্মীর পুলিশের দাবি, জঙ্গিরা কেপি রোডের উপরে হামলার ছক কষছে বলে জানিয়েছিলেন রাজ্য পুলিশের গোয়েন্দারা। সে কথা কেন্দ্রীয় বাহিনীকে জানানোও হয়েছিল। পুলওয়ামায় সিআরপিএফের উপরে জঙ্গি হামলার জেরেই পাকিস্তানের বালাকোটে অভিযান চালায় ভারতীয় বায়ুসেনা। তার জেরে পাল্টা হামলা চালায় পাক বায়ুসেনাও। চরমে ওঠে উত্তেজনা। পাকিস্তান বন্দি ভারতীয় পাইলট অভিনন্দন বর্তমানকে ফেরানোর সিদ্ধান্ত নেওয়ার পরে উত্তেজনা কমে। কিন্তু কূটনৈতিক সুর নরম করেনি দিল্লি। 

এরই মধ্যে আজ ৩ জুলাই থেকে জম্মু-কাশ্মীরে রাষ্ট্রপতির শাসনের মেয়াদ আরও ছ’মাস বাড়ানোর সিদ্ধান্ত অনুমোদন করেছে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা। তবে দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই চলতি বছরে ওই রাজ্যে বিধানসভা ভোট করার প্রস্তুতি শুরু করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। জঙ্গি নেতাদের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করারও নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। ১ জুলাই থেকে অমরনাথ যাত্রা শুরু হওয়ার কথা। এই পরিস্থিতিতে অনন্তনাগের হামলা মোদী-শাহকে নতুন চ্যালেঞ্জের মুখে ফেলেছে বলে মনে করছেন অনেকে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের এক কর্তার কথায়, ‘‘কেপি রোডের যে এলাকায় হামলা হয়েছে সেখান দিয়ে অমরনাথ যাত্রীদের যেতে হবে। ফলে নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছেই।’’ আজ এই হামলা নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকর বলেন, ‘‘সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে আমাদের লড়াই চলছে। পাকিস্তান জঙ্গিদের সামনে রেখে লড়াই চালাচ্ছে। যখনই জঙ্গিদের ক্ষয়ক্ষতি বেশি হয় তখনই তারা হামলা চালায়।’’

এবার শুধু খবর পড়া নয়, খবর দেখাও। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের YouTube Channel - এ।