বাবার বিরুদ্ধে গিয়ে একটি ছেলের সঙ্গে সম্পর্ক রেখেছিল মেয়ে। পরিবারের সম্মান রক্ষার্থে তাই মেয়েকে কুপিয়ে খুন করলেন বাবা! একই সঙ্গে কুপিয়ে খুন করা হল মেয়ের প্রেমিককেও। সোমবার সকালে ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরপ্রদেশের মাহোবা জেলায়। খুনের অভিযোগে মুলচাঁদ আহিরওয়ারকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে খবর, মাহোবার কুলপাহাড়ের বাসিন্দা এই মূলচাঁদ। বেশ কিছু দিন আগেই তিনি মেয়ে গীতার সঙ্গে ওই এলাকারই বাসিন্দা সুনীলের সম্পর্কের কথা জানতে পারেন। জানার পরেই গীতার অন্যত্র বিয়ে ঠিক করে ফেলেন। মেয়েকে বিরক্ত করলে তার ফল ভাল হবে না বলে হুঁশিয়ারিও দেন সুনীলকে। আগামী শনিবারই গীতার বিয়ে হওয়ার কথা ছিল।

আরও পড়ুন: দুর্নীতিতে ভরা দল! কথা না শোনায় নেতাকেই চড় কষালেন মহিলা কর্মী

কিন্তু বিয়ে অন্যত্র ঠিক হয়ে গেলেও সুনীলের সঙ্গে গীতার সম্পর্ক রয়ে যায়। ঘটনার দিন সকালে কাজে বেরিয়ে যান মূলচাঁদ। চাষাবাদ করেন তিনি। মাঠে গিয়েই জানতে পারেন, সুনীল তাঁর মেয়ের সঙ্গে দেখা করতে এসেছে। এর পরই তড়িঘড়ি ফিরে এসে একটা কুড়ুল নিয়ে বেরিয়ে যান। একই সঙ্গে গীতা এবং সুনীলকে কুপিয়ে খুন করেন তিনি। পরে স্থানীয়েরা তাঁকে পুলিশের হাতে তুলে দেন।

পুলিশি জেরায় মূলচাঁদ জানান, পরিবারের সম্মান রক্ষার্থেই তিনি এই কাণ্ড ঘটিয়েছেন। উদ্ধার করা হয়েছে কুড়ুলটিও।

এক সমীক্ষার রিপোর্ট অনুযায়ী, পরিবারের সম্মান রক্ষার্থে খুনের ঘটনা ভারতের মধ্যে উত্তরপ্রদেশেই সবচেয়ে বেশি।  ২০১৫ সালের তথ্য তুলে এনে ওই সমীক্ষায় বলা হয়েছে, ২০১৫ সালে সারা দেশে মোট ১৯২টি পরিবারের সম্মান রক্ষার্থে খুনের ঘটনা ঘটে। তার শতকরা ৬০ ভাগ উত্তরপ্রদেশেই হয়েছে।