উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের দফতরে গিয়ে তাঁরা দেখা করবেন না, বরং মুখ্যমন্ত্রী তাঁদের বাড়ি এসে দেখা করুন— এমনই দাবি আলিগড়ে খুন হওয়া শিশুকন্যার বাবা। তিনি বলেছেন, ‘‘এই ভয়াবহ অপরাধের বিরুদ্ধে সারা দেশে তোলপাড় শুরু হয়েছে। মানুষ আমাদের বাড়িতে এসে সমবেদনা জানাচ্ছেন। এই সময়ে মুখ্যমন্ত্রীর উচিত আমাদের সঙ্গে এসে দেখা করা।’’

গত রবিবার উত্তরপ্রদেশের আলিগড়ের টপ্পল এলাকায় এক শিশুকন্যার দেহ উদ্ধার হয়। খুনের অভিযোগে গ্রেফতার হয় দুই প্রতিবেশী। গত কাল মুখ্যমন্ত্রীর দফতর থেকে জানানো হয়েছিল, নিহত শিশুর বাবার সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী নিজে দেখা করতে চান। রবিবার নিহতের বাড়ি গিয়ে মহকুমা শাসক জানতে চেয়েছিলেন, পরিবারের কে কে যোগীর সঙ্গে দেখা করতে যাবেন। তখনই ওই প্রস্তাব ফিরিয়ে দেন শিশুটির বাবা। 

আজ কাঠুয়া গণধর্ষণ ও খুনের মামলায় আজ ছ’জনের সাজা ঘোষণার পরে আলিগড়ের ঘটনায় অভিযুক্তদের দ্রুত সাজার দাবি উঠেছে দেশ জুড়ে। অভিযুক্তদের মৃত্যুদণ্ড চেয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে চিঠি লিখেছেন দিল্লির মহিলা কমিশনের প্রধান স্বাতী মালিওয়াল। তিনি লিখেছেন, ‘‘উন্নাও ও কাঠুয়া কাণ্ডের পরে আপনার সরকার অর্ডিন্যান্স এনে ১২ বছরের কম বয়সি শিশুদের ধর্ষণে মৃত্যুদণ্ডের সাজার কথা বলেছিল। দ্রুত বিচারের জন্য আরও বেশি ফাস্ট-ট্র্যাক আদালত তৈরির আশ্বাস দিয়েছিলেন। কিন্তু তার পর থেকে আর পদক্ষেপ করা হয়নি।’’ 

মোদীর ‘বেটি বাঁচাও’ স্লোগান মনে করিয়ে উত্তরপ্রদেশের বিজেপি সরকারকে আক্রমণ করেছে শিবসেনা। দলের মুখপত্রে লেখা হয়েছে, ‘‘যখন নির্ভয়া ধর্ষণ কাণ্ড হয়েছিল, তখন ওঁরাই (বিজেপি) বিক্ষোভ দেখিয়ে সংসদের কাজকর্ম মুলতুবি রাখতে বাধ্য করেছিল। যার জেরে সেই সময় নারী নিরাপত্তা নিয়ে কড়া বিল আনতে বাধ্য হয়েছিল সরকার। এখন ওঁরাই ক্ষমতায়। ফলে তাঁদের দায়িত্বও অনেক বেশি।’’

এবার শুধু খবর পড়া নয়, খবর দেখাও। সাবস্ক্রাইব করুনআমাদেরYouTube Channel - এ।