রাহুল গাঁধীর প্রশস্তি করে নাজেহাল বিজেপি নেতা।

আরএসএসের মুখপত্র ‘পাঞ্চজন্য’-র প্রাক্তন সম্পাদক, বিজেপি নেতা তরুণ বিজয়ের টুইটে শুধু রাহুল-প্রশস্তিই ছিল না, সমালোচনা ছিল নরেন্দ্র মোদীরও।

নিজের টুইট থেকে বোমা বেরিয়েছে— বুঝতে পেরে, কী ভাবে সামাল দেবেন, তা নিয়েই বিজেপির প্রাক্তন সাংসদ হিমশিম খান মাঝরাত থেকে। প্রথমেই জানান, টুইটটি নিজে করেননি। যিনি করেছেন, তাঁকে বরখাস্ত করেছেন। রাতেই বলেন, ঘর বদলের সময়ে পাসওয়ার্ডের অপব্যবহার হয়েছে। তার পর রাত বারোটায় বলেন, প্রাতঃভ্রমণে বেরিয়েছেন। তিনি ঠিক আছেন!  কেন রাতে ঘর বদল করলেন, কেনই বা মধ্যরাতে ‘প্রাতঃভ্রমণ’—সদুত্তর মেলেনি। বরং প্রশ্ন উঠেছে, কী এমন লিখেছিলেন, যা পরে মুছে দিতে হল?

 আরও খবর: রাফাল ভাল, সব মন্ত্রীকে ডেকে বোঝালেন মোদী

তরুণের টুইটে লেখা হয়, ‘‘(বিজেপির) যাঁরা রাহুল গাঁধীর কৈলাস যাত্রা নিয়ে কটাক্ষ, সস্তা মন্তব্য করছেন, তাঁরা ভুল কাজ করছেন। এটি তাঁর আর শিবের বিষয়। শিবের থেকে কেউ বড় নন। আমার তিনবার কৈলাস যাওয়ার সৌভাগ্য হয়েছে। আমি কৈলাস মানসরোবর যাত্রী সঙ্ঘের সভাপতি।’’ এর পরেই নিজের দলের বিরুদ্ধে আরও আক্রমণাত্মক হয়ে বলেন, ‘‘হ্যালো, আপনি জনপ্রিয় বলে এই পদে নেই। আপনার পিছনে নরেন্দ্র মোদী নামক ব্যক্তি আছেন। নিজের ঔদ্ধত্য কমান।’’

তরুণ টুইট যতই মুছে দিন, কংগ্রেস কিন্তু সেগুলি যত্ন করে রেখেছে। রণদীপ সিংহ সুরজেওয়ালা সেগুলি দেখিয়ে আবেদন করেন, ‘‘সাহস রাখুন, নির্ভয় হয়ে সত্যের সঙ্গে চলুন। রাহুল গাঁধীর কৈলাস যাত্রা নিয়ে যা লিখেছেন, আপনার হুজুরের ভয়ে মুছবেন না। সত্যই শিব। মহাদেব আপনাকে সত্যের রাস্তা দেখান, অসত্যের নাশ হবে।’’

কংগ্রেস তো ঠাট্টা করছেই, তরুণের টুইট নিয়ে মজা পাচ্ছে বিজেপিও। তরুণকে সতর্ক করা হয়েছে—এমন কথা বিজেপির সূত্র অস্বীকার করছে না। কিন্তু বিজেপি নেতারা বলছেন, তরুণ তো এখন সিঙ্গাপুরে। ভারতের সঙ্গে সিঙ্গাপুরের সময়ের ব্যবধান আড়াই ঘণ্টা। ভারতীয় সময় রাত বারোটায় ‘প্রাতঃভ্রমণে’ বেরোলে সিঙ্গাপুরে রাত আড়াইটে! ঘাবড়ে গিয়ে তরুণ নিজেকে আরও হাস্যকর বানিয়েছেন।

ঘাবড়ে যে গিয়েছেন, পরে এক সংবাদ সংস্থায় দেওয়া তরুণের বিবৃতিতেই তা স্পষ্ট। বিজেপি নেতা বলেন, ‘‘নরেন্দ্র মোদী আর অমিত শাহের জন্য আমার জীবন নিবেদিত। আমার মতো ছোট কর্মীর কাছে তাঁরাই দীনদয়াল উপাধ্যায়, শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়। আমি ও আমার পরিবার দিনরাত তাঁদের জন্যই কাজ করি। যা হয়েছে, সেটা ষড়যন্ত্র। দয়া করে বিজেপি-বিরোধী শক্তির হাত থেকে বাঁচতে সাহায্য করুন।’’