বিভিন্ন বেআইনি অর্থ লগ্নি সংস্থার বিরুদ্ধে তদন্তের অগ্রগতির বিষয়ে পর্যালোচনা করতে দিল্লিতে বৈঠকে বসলেন সিবিআইয়ের কর্তারা।

এই মুহূর্তে কলকাতায় সারদা ও রোজ ভ্যালি এবং ওড়িশার ভুবনেশ্বরে রোজ ভ্যালির আর্থিক কেলেঙ্কারি নিয়ে মূল তদন্ত চলছে। এ ছাড়াও আইকোর, প্রয়াগ-সহ আরও কিছু বেআইনি অর্থ লগ্নি সংস্থার নয়ছয় নিয়ে তদন্ত চালাচ্ছে সিবিআই। এ-পর্যন্ত অর্থ লগ্নি সংস্থার কেলেঙ্কারিতে যত প্রভাবশালী ব্যক্তি গ্রেফতার হয়েছেন, তাঁদের নাম জড়িয়েছে মূলত সারদা আর রোজ ভ্যালির সঙ্গেই।

সিবিআই সূত্রের খবর, কলকাতা থেকে তদন্তকারী অফিসার, এসপি পদমর্যাদার দুই কর্তা ছাড়াও পূর্ব ভারতের যুগ্ম ডিরেক্টর পঙ্কজ শ্রীবাস্তব দিল্লিতে গিয়ে বৈঠকে বসেছেন। শনিবার শুরু হওয়া ওই বৈঠক আজ, মঙ্গলবার পর্যন্ত চলবে। সিবিআইয়ের ডিরেক্টর ঋষিকুমার শুক্ল নিজে বৈঠক করছেন অফিসারদের সঙ্গে।

আরও পড়ুন: রাজ্যসভা নিয়ে মোদীকে বার্তা মনমোহনের

লগ্নি সংস্থার বিরুদ্ধে পুলিশের বিশেষ তদন্ত দল বা সিটের অন্যতম সদস্য, পুলিশ অফিসার অর্ণব ঘোষকে সম্প্রতি জিজ্ঞাসাবাদ করেন সিবিআইয়ের তদন্তকারীরা। তার সবিস্তার রিপোর্ট নিয়ে আলোচনা চলছে বলে জানিয়েছে সিবিআই। পুলিশকর্তা রাজীব কুমারের আগাম জামিনের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে যে-আবেদন করা হয়েছে, তার শুনানি এখনও হয়নি। কলকাতা হাইকোর্ট থেকে নেওয়া সেই আগাম জামিনের বিরোধিতা করার সময় কী ধরনের যুক্তি তুলে ধরা হবে, তা নিয়েও আলোচনা চলছে দিল্লির বৈঠকে।

২০১২ সালে আমেরিকার লাস ভেগাসে বঙ্গ সম্মেলনের আয়োজন করেছিলেন সারদার কর্ণধার সুদীপ্ত সেন। কোন কোন প্রভাবশালী ব্যক্তি সেই সম্মেলনে গিয়েছিলেন, তাঁদের কত টাকা দেওয়া হয়েছিল, সেই টাকা সুদীপ্ত কোথা থেকে পেয়েছিলেন— এই সব বিষয়েও দিল্লিতে সবিস্তার আলোচনা হওয়ার কথা বলে জানিয়েছে সিবিআইয়ের একাংশ।

সিবিআই জানিয়েছে, নির্দিষ্ট করে পশ্চিমবঙ্গ বা কোনও একটি সংস্থা নিয়ে বৈঠক হচ্ছে না। দেশের সব বেআইনি অর্থ লগ্নি সংস্থার বিরুদ্ধে তদন্তের অগ্রগতি নিয়েই আলোচনা চলছে। ওড়িশা, ত্রিপুরা তো রয়েছেই। বহু বেআইনি অর্থ লগ্নি সংস্থা সম্প্রতি থাবা বসিয়েছে উত্তর ও দক্ষিণ ভারতে। সেই সব সংস্থার বিরুদ্ধে তদন্তের কাজ কতটা এগিয়েছে, বৈঠকে খতিয়ে দেখা হচ্ছে তা-ও।