তিনি সমাজবাদী পার্টির সঙ্গে জোট ভেঙে ফেলেছেন। কংগ্রেসেরও নিয়মিত সমালোচনা করছেন। ইদানিং তিনি বিজেপির দিকে ঝুঁকে রয়েছেন বলেই ইঙ্গিত মিলছে। তা সত্ত্বেও আসন্ন হরিয়ানা বিধানসভা নির্বাচনে মায়াবতীর সঙ্গেই রফায় যেতে চাইছেন কংগ্রেস নেতারা। দলীয়
সূত্রের খবর, হরিয়ানায় নতুন নিযুক্ত পরিষদীয় দলনেতা তথা প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ভূপিন্দর সিংহ হুডা এবং নতুন প্রদেশ কংগ্রেস সভানেত্রী কুমারী শৈলজা রবিবার গভীর রাতে লখনউতে মায়াবতীর সঙ্গে বৈঠক করেছেন।

মায়াবতী গত সপ্তাহেই দুশ্যন্ত চৌটালার জননায়ক জনতা পার্টির সঙ্গে জোট ভেঙে হরিয়ানায় একা লড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। কংগ্রেসের অঙ্ক হল, হরিয়ানার কিছু এলাকায় মায়াবতীর প্রভাব রয়েছে। তাঁকে পাশে পেলে জাঠ ভোটের সঙ্গে দলিত ভোট যোগ হতে পারে। কংগ্রেসও জাঠ নেতা হুডা ও দলিত নেত্রী শৈলজাকে সামনে রেখে সেই সমীকরণেই এগোচ্ছে। হরিয়ানার ভারপ্রাপ্ত নেতা গুলাম নবি আজাদ অবশ্য বৈঠকের কথা মানতে চাননি। কংগ্রেসের মতে, সিবিআই-ইডি তদন্তের জন্যই মায়াবতী চাপের মধ্যে রয়েছেন। এ বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে কংগ্রেস মুখপাত্র পবন খেরা বলেন, ‘‘আমরা এটা মনে করি না, আমরা এটা জানি।’’