গভীর নিম্নচাপের ফলে ঘূর্ণি ঝড় ‘বায়ু’র সৃষ্টি হয়েছে লক্ষদ্বীপের কাছে, আরব সাগরে। দ্রুত তা এগিয়ে চলেছে উত্তর দিকে। ভয়াবহ সাইক্লোন হয়ে ‘বায়ু’ আর দু’দিনের মধ্যে আছড়ে পড়বে গুজরাত উপকূলে। বৃহস্পতিবার যার গতিবেগ হবে ঘণ্টায় ১২০ কিলোমিটার। এর ফলে, পশ্চিমবঙ্গে বর্ষার আগমন কিছুটা পিছিয়ে যেতে পারে। মৌসম ভবন সূত্রে এই খবর পাওয়া গিয়েছে।

ওই ভয়াবহ ঘূর্ণি ঝড়ের (সিভিয়ার সাইক্লোনিক স্টর্ম) ফলে বৃহস্পতিবার থেকে প্রবল বৃষ্টির সম্ভাবনা গুজরাত উপকূলে। সঙ্গে থাকবে তুমুল ঝোড়ো হাওয়া। আপৎকালীন ব্যবস্থা হিসাবে গুজরাত উপকূলে সৌরাষ্ট্র ও কচ্ছের পোরবন্দর থেকে মাহুবা পর্যন্ত এলাকায় জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনী (এনডিআরএফ) নামানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য সরকার। সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী ও উপকূল রক্ষী বাহিনীকেও সতর্ক থাকতে বলা হচ্ছে। মঙ্গল ও বুধবারের জন্য সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে কেরল ও কর্নাটক উপকূল এবং লক্ষদ্বীপের মৎস্যজীবীদের। আর বুধ ও বৃহস্পতিবার সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে গুজরাত উপকূলের মৎস্যজীবীদের।

মৌসম ভবন জানিয়েছে, আরব সাগরে লক্ষদ্বীপের উপকূলে আমিনিদিবিতে সৃষ্টি হয়েছে বায়ুর। আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই তা আরও শক্তিশালী হয়ে উঠতে পারে। তার পর সেটি হবে উত্তরমুখী। ভেরাবল ও দিউয়ের কাছে, পোরবন্দর থেকে মাহুবার মধ্যে দিয়ে সেই ভয়াবহ ঘূর্ণি ঝড় বায়ু আছড়ে পড়বে গুজরাত উপকূলে। ঝড়ের গতিবেগ থাকবে গড়ে ঘণ্টায় ১১০ থেকে ১২০ কিলোমিটার। বৃহস্পতিবার ভোরে যা ঘণ্টায় ১৩৫ কিলোমিটারও হতে পারে।

আরও পড়ুন- ১০৯ ঘণ্টার লড়াই থামল, কূপ থেকে উদ্ধার করেও বাঁচানো গেল না দু’বছরের শিশুকে​

আরও পড়ুন- ফণীতে ধ্বংস বাড়ি, সপরিবার শৌচালয়ে​

আবহবিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, মঙ্গলবার লক্ষদ্বীপের আমিনিদিবি থেকে আরব সাগর ধরে পূর্ব-মধ্য দিকে এগতে থাকবে বায়ু। এ দিন  সন্ধ্যায় তার গতিবেগ বেড়ে পৌঁছবে ঘণ্টায় ৯০ থেকে ১০০ কিলোমিটারে। তার ফলে, প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের আশঙ্কা রয়েছে লক্ষদ্বীপ, কেরল, কর্নাটক ও মহারাষ্ট্রের দক্ষিণ উপকূলে। আগামী কাল, বুধবার (১২ জুন) বায়ুর গতিবেগ বেড়ে হতে পারে ঘণ্টায় ১১০ থেকে ১২০ কিলোমিটার। তা আরব সাগরের পূর্ব-মধ্য দিক থেকে এগতে থাকবে উত্তর-পূর্ব দিকে। বুধবার সকাল থেকেই বায়ুর ঝাপটা টের পেতে শুরু করবে গুজরাত উপকূল। বিশেষ করে সৌরাষ্ট্র ও কচ্ছের মধ্যে পোরবন্দর থেকে মাহুবা পর্যন্ত এলাকা। ঘণ্টায় ৬০ থেকে ৭০ কিলোমিটার গতিবেগের ঝড়ে আলোড়িত হতে পারে মহারাষ্ট্র উপকূলও।