যমজ সন্তানের দু’টিকেই মৃত বলে ঘোষণা করে হাসপাতাল। প্লাস্টিকের ব্যাগে করে মৃত সন্তানদের তুলেও দেওয়া হয় অভিভাবকের হাতে। কিন্তু, সৎকারের আগেই ধুকপুক করে ওঠে একটি শিশুর বুক।

বিস্ময়ে ও আনন্দে হতবাক মা বাবা শিশু কোলে তৎক্ষণাৎ ছোটেন হাসপাতালে। পরীক্ষা করে দেখা যায় বেঁচে আছে একটি শিশু। অপরটি মৃত।

ঘটনাটি ঘটেছে দিল্লির শালিমার বাগের একটি বেসরকারি হাসপাতালে। হাসপাতালের বিরুদ্ধে গাফিলতির অভিযোগ তুলেছেন শিশুটির পরিবারের লোকজন। অভিযুক্ত চিকিৎসককে বরখাস্ত করেছেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

আরও পড়ুন: 

চলন্ত ট্রেনে তরুণীর শ্লীলতাহানি, গ্রেফতার দুই জওয়ান

১৫ বছর গর্ভে থাকার পর ভূমিষ্ঠ হল ‘স্টোন বেবি’

হাসপাতালের মুখপাত্র বলেছেন, ‘‘বিষয়টি আমরা নজর করেছি। ভালো করে পরীক্ষা না করেই ২২ সপ্তাহের ‘প্রি-ম্যাচিওর (সময়ের আগেই জন্মানো)’একটি শিশুকে মৃত ঘোষণা করে তার মা বাবার হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। ঘটনায় আমরা দুঃখিত এবং গোটা বিষয়টির তদন্ত করা হচ্ছে। অভিযুক্ত চিকিৎসককে হাসপাতাল ছেড়ে চলে যেতে বলা হয়েছে। শিশুটির মা বাবার সঙ্গে আমরা যোগাযোগ রাখছি। তাদের সব রকমভাবে সাহায্য করা হবে।’’

গতকাল, বৃহস্পতিবার শালিমার বাগের ওই হাসপাতালে যমজ সন্তানের জন্ম দেন এক প্রসূতি। জন্মের পরেই, চিকিৎসক জানান মৃত্যু হয়েছে একটি সন্তানের। অপরজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। কিছুক্ষণের মধ্যেই মৃত্যু হয় অপর শিশুটিরও। সদ্যোজাত দুই শিশুকেই প্লাস্টিকের ব্যাগে মুড়িয়ে তাদের মা বাবার হাতে তুলে দেওয়া হয়। সৎকারের জন্য নিয়ে যাওয়ার সময়েই নড়চড়া টের পাওয়া যায় একটি শিশুর। তবে শিশুটির অবস্থা এখন স্থিতিশীল বলেই জানিয়েছেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

গোটা ঘটনায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে গাফিলতির অভিযোগ তুলে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে দিল্লি সরকার।