যতবারই ধরা পড়ে, পুলিশকে ঠিক বোকা বানিয়ে সহজে জামিন পেয়ে যায়। এই চোর যে সাধারণ নয়, চুরিবিদ্যায় রীতিমতো পারদর্শী, তা বুঝতে পেরে গিয়েছিল পুলিশ। কিন্তু কিছুতেই চোরকে দিয়ে তা স্বীকার করানো যাচ্ছিল না। চোর ধরতে তাই এপ্রিল ফুলের দিন চোর সেজে চোরকেই বোকা বানাল পুলিশ!

ধৃত ওই ব্যক্তি ৪৫ বছরের মহম্মদ আসলাম। বাড়ি গাজিয়াবাদের রাম পার্কে। উত্তরপ্রদেশের একাধিক এটিএম লুঠের ঘটনায় যুক্ত আসলাম। এমন নয় যে, আসলাম কোনওবারই ধরা পড়েনি। কিন্তু প্রতিবার নাম বদলে ফেলায় কোনওবার পুলিশ এটা প্রমাণ করতে পারেনি যে, সে-ই একাধিক এটিএম লুঠের সঙ্গে যুক্ত। ফলে জামিন পাওয়াটা প্রতিবারেই সহজ হয়ে যায় তার কাছে। এই পরিস্থিতির মোকাবিলা করার জন্য তাই চোর সাজতে হল পুলিশকেই।

দ্বারকার ডিসিপি আন্টো আলফনসে জানান, তাদের কাছে গোপন সূত্রে খবর আসে, মেওয়াটির একটি এটিএম লুঠ করার পরিকল্পনা করছে আসলাম। আসলাম পৌঁছনোর আগেই লুঙ্গি-কুর্তা পরে চোর সেজে এটিএম লুঠ করতে চলে যায় পুলিশের একটি দল।

আরও পড়ুন: মুরগিছানা বাঁচাতে ১০ টাকা নিয়ে শিশু ছুটল হাসপাতাল

পুলিশ জানিয়েছে, নিজের মতো আরও এক দুষ্কৃতী দলকে দেখে খুশিই হয় আসলাম। তাদের সঙ্গে খোশমেজাজে গল্প করতে শুরু করে দেয় সে। এর আগে কোথায় কোথায় এটিএম লুঠ করেছে, কী ভাবে বারবার গ্রেফতার হওয়া সত্ত্বেও সহজে জামিনে ছাড়া পেয়ে যায়, পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে সবটা গল্প করে চোররূপী পুলিশের কাছে।

দিল্লি দখলের লড়াইলোকসভা নির্বাচন ২০১৯ 

ঠিক তখনই পুলিশের দলে থাকা এক কনস্টেবল ‘এপ্রিল ফুল’ বলে চেঁচিয়ে ওঠেন। বোকা বনেছে বুঝতে পেরে পালানোর চেষ্টা করলেও তা অবশ্য কাজে আসেনি আসলামের।