‘লভ জিহাদ’ বিতর্কের মধ্যমণি হয় ওঠা কেরল-কন্যা হাদিয়ার বিয়ে বৈধ, জানিয়ে দিল সুপ্রিম কোর্ট।

হাদিয়ার বাবার অভিযোগের প্রেক্ষিতে গত বছর ২৪ বছর বয়সী যুবতীর বিয়ে বাতিল করে দেয় কেরল হাইকোর্ট।

বৃহস্পতিবার কেরল হাইকোর্টের সেই রায় খারিজ করে দিয়েছে প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্রের নেতৃত্বে সুপ্রিম কোর্টের একটি বেঞ্চ। শীর্ষ আদালত জানিয়েছে, হার্দিয়া ও তাঁর স্বামী শাফিন জাহানের দাম্পত্য বৈধ। তাঁরা এক সঙ্গে থাকতে পারবেন।

 

আরও পড়ুন- হাদিয়ার বিয়ে নিয়ে তদন্ত করা যাবে না, বলল সুপ্রিম কোর্ট​

আরও পড়ুন- আল্লা দয়াময়! কারও শাদি যেন এমন ভয়ঙ্কর না হয়​

২৪ বছর বয়সী হার্দিয়ার জন্ম হয় কেরলের একটি হিন্দু পরিবারে। তাঁর নাম ছিল আখিলা অশোকান। শাফিনের সঙ্গে বিয়ের কয়েক মাস আগে হার্দিয়া মুসলিম ধর্ম গ্রহণ করেন। তাঁর নাম হয় হার্দিয়া। এর পরেই হার্দিয়ার বাবা কেরল হাইকোর্টে একটি মামলা দায়ের করেন। তাঁর অভিযোগ ছিল, এটা ‘লভ জিহাদ’-এর ঘটনা। ধর্মান্তরণ করে হার্দিয়াকে বাধ্য করা হয়েছিল শাফিনকে বিয়ে করতে। সেই অভিযোগের ভিত্তিতে কেরল হাইকোর্ট হার্দিয়ার বিয়ে বাতিল করে দেয়। কেরল হাইকোর্টের সেই রায়কে চ্যালেঞ্জ করে শীর্ষ আদালতে যান হার্দিয়ার স্বামী শাফিন।

সুপ্রিম কোর্ট এ দিন অবশ্য এও জানিয়েছে, ওই মামলায় কোনও অপরাধের যে তদন্ত করছে জাতীয় তদন্তকারী সংস্থা (এনআইএ), তা তারা চালিয়ে যেতে পারবে। তবে হার্দিয়া-শাফিনের বিয়ে সম্পূর্ণ বৈধ।