যে কোনও সময়ে সীমান্তের ও পারে আঘাত হানার ক্ষমতা রাখে ভারতীয় বায়ুসেনা। কোনও এলোপাথাড়ি হানা নয়, নির্দিষ্ট লক্ষ্যেই আঘাত হানতে প্রস্তুত ভারত। বার্তা দেশের বিমান বাহিনীর প্রধান এয়ার চিফ মার্শাল বি এস ধনোয়া-র। আজ, বৃহস্পতিবারই তিনি এই মন্তব্য করেছেন। এই মন্তব্যের লক্ষ্য মূলত পাকিস্তানই ছিল। তবে চিনের সম্পর্কে মুখ খুলতেও দ্বিধা করেননি এয়ার চিফ মার্শাল। চিনের মোকাবিলা করার জন্য যথেষ্ট প্রস্তুতি রয়েছে ভারতীয় বায়ুসেনার, জানিয়েছেন ধনোয়া। চিন এবং পাকিস্তানের যৌথ শক্তির বিরুদ্ধে যদি লড়তে হয়, তা হলেও ভারতীয় বায়ুসেনা প্রস্তুত। এমন দাবিও এ দিন করেছেন বায়ুসেনা প্রধান।

আগামী ৮ অক্টোবর বায়ুসেনা দিবস পালিত হবে দেশে। তার আগে বায়ুসেনা প্রধান সাংবাদিক সম্মেলন ডেকেছিলেন। সেখানেই তিনি দেশের বিমান বাহিনীর প্রস্তুতির বিষয়ে মুখ খোলেন এ দিন। এয়ার চিফ মার্শাল বি এস ধনোয়া বলেছেন, ‘‘আমরা সর্বাত্মক অভিযানের (ফুল স্পেকট্রাম অপারেশন) জন্য প্রস্তুত। বায়ুসেনাকে কাজে লাগিয়ে কোনও সার্জিক্যাল স্ট্রাইক হবে কি না, সে সিদ্ধান্ত সরকার নেবে।’’

চিন এবং পাকিস্তান যদি একসঙ্গে যুদ্ধ ঘোষণা করে ভারতের বিরুদ্ধে, তা হলে কি মোকাবিলায় প্রস্তুত ভারতীয় বাহিনী? এই প্রশ্ন সম্প্রতি বার বারই উঠছে। একসঙ্গে দু’দেশের মোকাবিলা করার প্রশ্নে ভারতীয় বায়ুসেনার হাতে যুদ্ধবিমানের সংখ্যা কিছুটা কম, জানানো হয়েছিল বায়ুসেনা সূত্রেই। তবে তার জন্য উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই বলে এ দিন জানিয়েছেন বায়ুসেনা প্রধান বি এস ধনোয়া। তিনি জানিয়েছেন, চিন এবং পাকিস্তানের মোকাবিলা একসঙ্গে করতে হলে ৪২ স্কোয়াড্রন যুদ্ধবিমান দরকার। ভারতীয় বায়ুসেনার হাতে এই মুহূর্তে যুদ্ধবিমান তার চেয়ে কিছুটা কমই। কিন্তু যে সংখ্যক ফাইটার ভারতের রয়েছে, সেগুলিকে কাজে লাগিয়ে কিছুতেই ওই দুই দেশকে একসঙ্গে রোখা যাবে না, এমনটা ভাবার কোনও কারণ নেই। বায়ুসেনা প্রধানের আশ্বাস, ‘প্ল্যান-বি’-ও রয়েছে। চিন এবং পাকিস্তানকে একসঙ্গে রোখার কৌশলও ভারতের জানা রয়েছে বলে তাঁর আশ্বাস।

আরও পড়ুন: চিনকে ঠেকাতে পরিকাঠামোয় নজর আন্দামানে

পাকিস্তান সম্প্রতি ভারতের বিরুদ্ধে পরমাণু অস্ত্র প্রয়োগের হুঁশিয়ারি দিয়েছে। ভারতীয় সেনার রণকৌশলের মোকাবিলা করতে পাকিস্তান স্বল্প পাল্লার পরমাণু অস্ত্র প্রয়োগ করবে, সম্প্রতি এমন হুমকি দিয়েছে পাকিস্তান। সে প্রসঙ্গে ভারতের এয়ার চিফ মার্শালের প্রতিক্রিয়া চাওয়া হয়েছিল এ দিন। এয়ার চিফ মার্শাল জানান, সীমান্তের ও পারের লক্ষ্যবস্তু খুঁজে নেওয়ার, নিশানা করার এবং আঘাত হানার সম্পূর্ণ সক্ষমতা ভারতীয় বায়ুসেনার রয়েছে।

আরও পড়ুন: আইএসআই-এর জঙ্গি যোগ খুব স্পষ্ট: কড়া বয়ান দিল আমেরিকা

চিন প্রসঙ্গে এয়ার চিফ মার্শাল ধনোয়া বলেন, ‘‘আমাদের সক্ষমতা চিনের মোকাবিলা করার জন্য পর্যাপ্ত।’’ ডোকলাম প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে ধনোয়া জানান, বিতর্কিত এলাকা থেকে চিন সেনা সরালেও, সিকিম সীমান্তের ও পারে চুম্বি উপত্যকায় এখনও বিপুল সংখ্যায় মোতায়েন রয়েছে চিনা বাহিনী। ‘‘আমরা আশা করি চিন সেনা প্রত্যাহার করবে’’, বলেছেন বায়ুসেনা প্রধান।