• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

দাদুর কবর দেখতে চেয়ে আটক ইলতিজা

Iltija
ইলতিজা সইদ।

  জম্মু-কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা তাঁর দাদু মুফতি মহম্মদ সইদের কবর পরিদর্শন করতে চেয়েছিলেন। তবে সেই সুযোগ না দিয়ে বাড়িতেই তাঁকে আটক করা হয়েছিল বলে অভিযোগ আনলেন পিডিপি নেত্রী মেহবুবা মুফতির কন্যা ইলতিজা সইদ। পুলিশ অবশ্য ইলতিজাকে আটক করার অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা, অনুচ্ছেদ ৩৭০ বিলোপের পরে আটক করা হয়েছে প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবাকে। তাঁর মেয়ে ইলতিজা আজ অভিযোগ করেন, অনন্তনাগ জেলার বিজবেহারায় দাদুর করবে যেতে চেয়েছিলেন তিনি। মেহবুবা-কন্যার নিরাপত্তার দায়িত্বে রয়েছে স্পেশাল সিকিউরিটি গ্রুপ। তাদের থেকেই অনন্তনাগ যাওয়ার অনুমতি চেয়েছিলেন তিনি। কিন্তু সেখানে যেতে না দিয়ে তাঁকে বাড়ির ভিতরেই আটক করে রাখা হয়েছিল বলে ইলতিজার অভিযোগ। 

জম্মু-কাশ্মীর পুলিশের অ্যাডিশনাল ডিজি মুনীর খান অবশ্য অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছেন, ‘‘ইলতিজা সইদের নিরাপত্তার দায়িত্বে রয়েছে স্পেশাল সিকিউরিটি গ্রুপ। কোথাও যেতে হলে পুলিশের অনুমতি নিতে হবে তাঁকে। এ ক্ষেত্রে অনন্তনাগের জেলা প্রশাসন যাত্রার অনুমতি দেয়নি।’’ ইলতিজা পাল্টা বলেন, ‘‘দাদুর কবর দেখতে যেতে চেয়েছিলাম। সেটা আমার অধিকার। নাতনি যদি দাদুর করব দেখতে যায় সেটা কি অপরাধ? না কি ওরা ভেবেছে, আমি বিক্ষোভ দেখাতে কিংবা পাথর ছোড়া সংগঠিত করতে চেয়েছিলাম?’’ তাঁর অভিযোগ, কাশ্মীরে পুলিশ-প্রশাসন কারও কথা শুনতে রাজি নয়। উপত্যকায় শান্তি চাইছে না তারা। শ্রীনগরের গুপকার রোডে মেহবুবার বাড়ির বাইরে ব্যারিকেড। সংবাদমাধ্যমের সেখানে যাওয়ার অনুমতি নেই। এলাকার বাসিন্দা ও নিরাপত্তাকর্মীরা ছাড়া আর কেউ ওই রাস্তা ব্যবহার করতে পারছে না। 

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ আজ এক সাক্ষাৎকারে জম্মু-কাশ্মীরের তিন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি, ফারুক আবদুল্লা ও ওমর আবদুল্লাকে আটক করা নিয়ে প্রশ্নের জবাব দিয়েছেন। অমিতের বক্তব্য, এই তিন জনকে দেশবিরোধী বলে মনে করেন না তিনি। তবে জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বিলোপ প্রসঙ্গে বেশ কিছু আপত্তিকর মন্তব্য করেছিলেন এঁরা। বলেছিলেন, ৩৭০ অনুচ্ছেদ রদ হলে কাশ্মীর ও দেশে আগুন জ্বলবে। ৩৭০ রদ করে পাকিস্তানকে কাশ্মীরে আমন্ত্রণ জানানো হচ্ছে। এই সব কারণেই প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীদের আটক করে রাখা হয়েছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, কবে এঁদের মুক্তি দেওয়া হবে, তা স্থানীয় প্রশাসন ঠিক করবে।

আজই জম্মু-কাশ্মীরের ৮০টি সরকারি হাসপাতাল ও নার্সিং হোমে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট পরিষেবা চালু হয়েছে।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন