হোটেলের ঘরে মিলল মা ও শিশুপুত্রের মৃতদেহ। গুয়াহাটির ঘটনা। পুলিশ জানায়, গত রাতে দিসপুর এলাকার একটি অতিথি নিবাসের দরজা ভেঙে এক মহিলা ও তাঁর শিশুর মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। হোটেল কর্তৃপক্ষ পুলিশকে জানিয়েছে, গত কাল সকাল ১০টা নাগাদ বাপন মজুমদার নামে এক ব্যক্তি স্ত্রী ও ছেলেকে নিয়ে শিলচর থেকে ওই অতিথিশালায় এসেছিল। পরে সে বেরিয়ে যায়। আর ফেরেননি। পুলিশ মৃতদেহের পাশে একটি সুইসাইড নোট পেয়েছে। সেখানে ইংরেজিতে লেখা ছিল— ‘আমাদের সামনে আর কোনও রাস্তা খোলা নেই। আমরা সজ্ঞানে এই সিদ্ধান্ত নিচ্ছি। আমাদের মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ী নয়।’ সেই সঙ্গে দেহগুলি উদ্ধার হওয়ার পরে কোন তিন জনের সঙ্গে যোগাযোগ করতে হবে তাঁদের নাম ও ফোন নম্বরও লেখা ছিল। পুলিশ জানিয়েছে, ওই মহিলার নাম পরভিন মজুমদার। শিশুটির নাম রিজওয়ান। ঘটনার পর থেকে বাপনের খোঁজ নেই। পুলিশ জানতে পেরেছে, বাপন ২৭ এপ্রিল জেল থেকে মুক্তি পেয়েছিল। তার বিরুদ্ধে অপহরণের কয়েকটি অভিযোগ রয়েছে।

প্রাথমিক তদন্তের পর পুলিশের অনুমান, স্ত্রী ও ছেলেকে বিষ খাওয়ানোর পর শ্বাসরোধ করে খুন করে বাপন। সুইসাইড নোটও সম্ভবত সে-ই লিখেছে। পরে হোটেল থেকে পালিয়ে যায়।