পুরাতত্ত্ব সর্বেক্ষণ ২০০৩-এ রিপোর্ট দিয়েছিল, বাবরি মসজিদের আগে অযোধ্যার বিতর্কিত জমিতে পুরনো কাঠামো ছিল। আজ শীর্ষ আদালতে অযোধ্যার রাম জন্মভূমি-বাবরি মসজিদ জমি মামলায় মুসলিম পক্ষ সেই রিপোর্টকেই নিশানা করল। মুসলিম পক্ষের আইনজীবী মীনাক্ষী অরোরা বলেন, ওই রিপোর্টে কোনও যাচাই করার মতো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। অধিকাংশটাই অনুমানের ভিত্তিতে তৈরি। তাঁর যুক্তি, পুরাতত্ত্বের বিষয়টি পদার্থ কিংবা রসায়ন বিদ্যার মতো বিজ্ঞান নয়। 

সাংবিধানিক বেঞ্চ প্রশ্ন তুলেছে, মুসলিম পক্ষ কেন ইলাহাবাদ হাইকোর্টের সামনে এ কথা বলেনি। হাইকোর্টে এই যুক্তি পেশ করা হয়নি বলে সুপ্রিম কোর্টের পক্ষেও এখন এই যুক্তি গ্রহণ করা সম্ভব নয়। কিন্তু মীনাক্ষীর পাল্টা, হাইকোর্ট পরে বিষয়টি শোনা হবে বললেও আর তা হয়নি। মঙ্গলবার মুসলিম পক্ষের আর এক আইনজীবী জফরয়াব জিলানি বলেছিলেন, হিন্দুরা বাবরি মসজিদ থেকে কিছু দূরে রাম চবুতরাকে রামের জন্মস্থান বিশ্বাস করে পুজো করত। আজ জিলানি নিজের মন্তব্যের ব্যাখ্যা দিয়ে বলেন, ‘‘আমরা বিশ্বাস করি না যে রাম চবুতরাই রামের জন্মভূমি। হিন্দুরা তা বিশ্বাস করে।’’ তাঁর যুক্তি, অযোধ্যার রামকোট কেল্লার মধ্যেও জন্মস্থান বলে একটি জায়গা রয়েছে। যাকে রামের জন্মস্থান বলে বর্ণনা করা হয়। বাবরি মসজিদের গম্বুজের নীচেই রামের জন্ম— এমন দাবি ১৯৮৯ সালের আগে ওঠেনি। ১৯৫০ থেকে ১৯৮৯ পর্যন্ত দায়ের হওয়া কোনও মামলাতেও এমন দাবি করা হয়নি।