কেন তাঁর দোকানের হীরে, সোনার গয়না বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে? কেনই বা তাঁর বিরুদ্ধে আর্থিক কেলেঙ্কারির মামলা করা হয়েছে? এই প্রশ্ন তুলে আজ নীরব মোদীর তরফে মামলা করা হল দিল্লি হাইকোর্টে। এ দিকে, কোম্পানি বিষয়ক মন্ত্রকের গুরুত্বপূর্ণ অপরাধের তদন্তকারী সংস্থা সিরিয়াস ফ্রড ইনভেস্টিগেশন অফিস (এসএফআইও) আজ মামা-ভাগ্নে মেহুল চোক্সী-নীরব মোদীর প্রতারণা নিয়ে পাঁচ ঘণ্টা জেরা করেছে পঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাঙ্কের (পিএনবি) এমডি-সিইও সুনীল মেটাকে।

নীরবের সংস্থার আইনজীবী বিজয় অগ্রবালের আজ দিল্লি হাইকোর্টে দাবি, এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট বা ইডি-র যাবতীয় অভিযান বন্ধ করা হোক। যে সব হীরে, সোনার গয়না ও অন্যান্য অস্থাবর সম্পত্তি ইডি আটক করেছে, সেগুলি পিএনবি-তে জমা করার জন্য ইডি-কে নির্দেশ দেওয়ারও দাবি তুলেছেন অগ্রবাল। তাঁর আরও দাবি, ইডি আদালতে তাদের এনফোর্সমেন্ট কেস ইনফর্মেশন রিপোর্ট জমা দিক।

নীরবের তরফে আনা অভিযোগের ভিত্তিতে আজ ইডি-র বক্তব্য জানতে চেয়েছে হাইকোর্ট। তাঁর ‘ফায়ারস্টার ডায়মন্ড’ সংস্থাটির বিরুদ্ধে অভিযোগ সংক্রান্ত কাগজপত্র, অভিযানের সময় সারণি ও তল্লাশির পরোয়ানার নথিও ইডি-কে জমা দিতে বলা হয়েছে। তবে ইডি-র অভিযানে স্থগিতাদেশ জারি করতে রাজি হননি বিচারপতি এস মুরলীধর ও বিচারপতি আই এস মেটার বেঞ্চ। তাঁদের যুক্তি, ইডি-র বক্তব্য শুনেই সিদ্ধান্ত হবে। বিচারপতিরা বলেন, মোদীর বিরুদ্ধে মামলাটা ঠিক কী, তা স্পষ্ট নয়। কারণ তাঁর আইনজীবী নিজেও মামলার সব তথ্য জানেন না। ১৯ মার্চ পরবর্তী শুনানির দিন ইডি-র সংশ্লিষ্ট অফিসারকেও আদালতে হাজির থাকতে বলা হয়েছে।

দাবিতে সরব

• তাঁর বিরুদ্ধে আর্থিক কেলেঙ্কারির মামলা কেন

• ইডি-র সব অভিযান বন্ধ হোক

• বাজেয়াপ্ত করা হিরে, সোনার গয়না, আটক অস্থাবর সম্পত্তি পিএনবি-তে জমা করার নির্দেশ দিক ইডি

 

আদালতের নির্দেশ

• নীরবের ফায়ারস্টার ডায়মন্ডের বিরুদ্ধে তল্লাশির পরোয়ানা জমা দিতে হবে ইডি-কে

• অভিযানে স্থগিতাদেশ নয়

• পরবর্তী শুনানি ১৯ মার্চ

 

হাজিরা

• পিএনবি কর্তা সুনীল মেটা হাজিরা দিলেন মুম্বইয়ে এসএফআইও-র দফতরে

• পাঁচ ঘণ্টা জেরা মেটাকে

পিএনবিকে প্রায় ১২,৭০০ কোটি টাকা প্রতারণা করার মামলা ঝুলছে নীরব ও চোক্সীর সংস্থার বিরুদ্ধে। এর আগে নীরবের দাবি ছিল, পিএনবি সিবিআই-ইডির দ্বারস্থ হওয়ায় তাঁর পক্ষে টাকা ফেরত দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। কারণ ইডি তাঁর ব্যবসা বন্ধ করে দিয়েছে। ইডি-র তরফে অতিরিক্ত সলিসিটর জেনারেল সন্দীপ শেঠি যুক্তি দেন, ‘‘নীরবের সংস্থার আর্জি অপরিণত। ভুল ধারণার ভিত্তিতে অভিযানকে চ্যালেঞ্জ জানানো হচ্ছে।’’

এসএফআইও আজ সকাল ১১টা থেকে বিকেল ৪টে পর্যন্ত জেরা করেছে পিএনবি-কর্তা সুনীল মেটাকে। এই কেলেঙ্কারি সম্পর্কে তথ্য জানতেই তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। এর আগে তাঁকে ও পিএনবি-র এগ্‌জিকিউটিভ ডিরেক্টর কে ভি ব্রহ্মাজি রাওকে জেরা করেছিল সিবিআই। তবে অভিযুক্ত হিসেবে তাঁকে তলব করা হয়নি বলে জানিয়েছে সিবিআই। তথ্য জানতেই ডাকা হয় তাঁদের। মঙ্গলবারই অ্যাক্সিস ব্যাঙ্ক ও আইসিআইসিআই ব্যাঙ্ক অফিসারদের জেরা করেছে এসএফআইও। মোদী-চোক্সীর সংস্থাকে ঋণ দিয়েছে এমন ৩১টি ব্যাঙ্কের অফিসারদের তলব করা হবে বলে জানিয়েছে তারা।