জাতীয় নাগরিক পঞ্জি (এনআরসি) তৈরি ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয় বলে বাংলাদেশের মাটিতে দাঁড়িয়ে জানিয়ে দিলেন বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর। অক্টোবরে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ভারতে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। আজ হাসিনার হাতে মোদীর আমন্ত্রণপত্র তুলে দেন জয়শঙ্কর।

বিদেশমন্ত্রীর দায়িত্ব নেওয়ার পরে এই প্রথম বাংলাদেশে এলেন জয়শঙ্কর। আজ সে দেশের বিদেশমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেনের সঙ্গে প্রায় দেড় ঘণ্টা আলোচনা করেন তিনি। পরে এক প্রশ্নের জবাবে জয়শঙ্কর বলেন, ‘‘নাগরিক পঞ্জি বা এনআরসি তৈরি ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়। এ নিয়ে কথা বলার প্রয়োজন নেই।’’ বাংলাদেশি অনুপ্রবেশকারীদের চিহ্নিত করার আর্জি নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয় অসমের একটি বেসরকারি সংস্থা-সহ কয়েকটি পক্ষ। তার জেরেই সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে এনআরসি তৈরির প্রক্রিয়া শুরু হয়।

হাসিনার জমানাতেই তিস্তা চুক্তি হবে বলে বাংলাদেশকে আশ্বাস দিয়েছিলেন মোদী। বিদেশমন্ত্রী বলেন, ‘‘সেই প্রতিশ্রুতি পালন করতে আমরা বদ্ধপরিকর। দিল্লি কাজ করছে।’’ তিনি জানান, তিস্তা চুক্তির পরে ৫৪টি নদীর জল বণ্টন সমস্যার মীমাংসা করতে নতুন সূত্র খুঁজছে দু’দেশ। রোহিঙ্গাদের পুনর্বাসন নিয়েও বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে বলেও জানান তিনি।