পাকিস্তানের সঙ্গে সাম্প্রতিক উত্তেজনার সময়ে বিমানবাহী জাহাজ ‘আইএনএস বিক্রমাদিত্য’ ও পরমাণু শক্তিচালিত ডুবোজাহাজ আরব সাগরে মোতায়েন করা হয়েছিল বলে এক বিবৃতিতে দাবি করল ভারতীয় নৌসেনা।

নৌসেনার দাবি, সেই সময়ে ‘ট্রপেক্স’ নামক মহড়ায় যুক্ত ছিল বিমানবাহী জাহাজ ‘বিক্রমাদিত্য’-সহ একটি নৌবহর। পুলওয়ামা হামলার পরে উত্তেজনার পরিস্থিতিতে সেই নৌবহর উত্তর আরব সাগরে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। নৌসেনার দাবি, এই জাহাজগুলি ওই এলাকায় মোতায়েন থাকায় পাকিস্তানি নৌসেনা মাকরান উপকূলের কাছেই ব্যস্ত ছিল। খোলা সমুদ্রে এসে অন্য এলাকায় ভারতকে বিপাকে ফেলতে পারেনি।

অন্য দিকে উত্তেজনার সময়ে দিল্লি পাকিস্তানকে লক্ষ্য করে ছ’টি ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়ার হুমকি দিয়েছিল বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থা রয়টার্স। দিল্লি, ইসলামাবাদ ও ওয়াশিংটনে সামরিক ও কূটনৈতিক সূত্রকে উদ্ধৃত করে তারা জানিয়েছে, ভারতীয় পাইলট অভিনন্দন বর্তমান পাক সেনার হাতে বন্দি হওয়ার পরে ভারতে আরও উত্তেজনা ছড়ায়। তার পরেই পাক গুপ্তচর সংস্থা আইএসআইয়ের প্রধান আসিম মুনিরের সঙ্গে কথা বলেন ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভাল। সেই ফোনে ডোভাল জানান, পাইলট বন্দি হলেও ভারত পিছু হটবে না। ক্ষেপণাস্ত্র হামলার হুমকি কোন স্তরে দেওয়া হয়েছিল তা স্পষ্ট নয়। তবে পাকিস্তান তিন গুণ ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়ে জবাব দেওয়ার হুমকি দেয় বলে জানিয়েছে রয়টার্স। তারা জানিয়েছে, মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টন-সহ আমেরিকার শীর্ষ কর্তাদের চাপেই উত্তেজনা কমে। পাকিস্তান এ নিয়ে সরকারি ভাবে মন্তব্য করতে চায়নি। ভারত সরকারের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, পাকিস্তানকে ক্ষেপণাস্ত্র হামলার হুমকি দেওয়ার কথা তাঁর জানা নেই।

দিল্লি দখলের লড়াইলোকসভা নির্বাচন ২০১৯