দোতলা বাস এ বার রাস্তায় চলবে না। আকাশ দিয়ে উড়ে যাবে। দেশের পরিবহণ ব্যবস্থাকে ঢেলে সাজতে মোটরযান সংশোধনী বিল পাশ করাতে গিয়ে মোদী সরকারের সড়ক পরিবহণ মন্ত্রী নিতিন গডকড়ী স্বপ্ন দেখালেন, দেশে ‘ফ্লাইং ডাবল ডেকার বাস’ চলবে। অস্ট্রিয়া থেকে এমন প্রযুক্তি আনা হচ্ছে।

এই কথা শুনে বিরোধীদের সঙ্গে রাজ্যসভার চেয়ারম্যান তথা উপরাষ্ট্রপতি বেঙ্কাইয়া নায়ডুও বিস্মিত। তাঁর মন্তব্য, ‘‘রাস্তা দিয়ে নয়, আকাশে চলবে ডাবল ডেকার বাস! কী হবে কে জানে! তবে ওঁর পরিকল্পনাটা ভাল।’’ এর আগেও দিল্লির ধৌলা কুয়াঁ থেকে হরিয়ানার মানেসর, বারাণসী থেকে ইলাহাবাদ বা গোয়ায় উড়ন্ত দোতলা বাস চালানোর কথা বলেছেন নিতিন। তবে সে বিষয়ে কোনও অগ্রগতি হয়নি। নিতিনের নিজের কেন্দ্র নাগপুরেও রোপওয়ের মতো ব্যবস্থায় ১৫০ আসনের বাহন চালানোর পরিকল্পনা হয়েছিল। সে কাজও শুরু হয়নি।

উড়ন্ত দোতলা বাসের স্বপ্ন দেখিয়েই আজ নিতিন রাজ্যসভায় মোটর ভেহিকল সংশোধনী বিল পাশ করিয়েছেন। বিরোধীরা এত তাড়াহুড়ো করে বিল পাশের অভিযোগ তুললেও আপত্তি ধোপে টেকেনি। ভোটাভুটিতে ১০৮-১৩ ফলে বিল পাশ হয়ে যায়। কংগ্রেস অভিযোগ তুলেছে, বিল ত্রুটিপূর্ণ। কারণ লোকসভায় যে বিল পাশ হয়েছে, আর রাজ্যসভায় যে বিল আনা হয়েছে, তাতে ফারাক আছে।

সড়ক দুর্ঘটনা রুখতে ট্রাফিক আইন লঙ্ঘনে কড়া শাস্তির দাওয়াই রয়েছে এই বিলে। সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণহানি এড়াতে আহতদের নগদহীন চিকিৎসার ব্যবস্থা হবে। যাতে চিকিৎসায় কোনও দেরি না-হয়। এতে আহতদের হাসপাতালে নিয়ে গেলে কোনও হয়রানির শিকার হতে হবে না। নিতিন বলেন, ‘‘দেশের ৭৮৬টি দুর্ঘটনাপ্রবণ এলাকায় ১৪,৫০০ কোটি টাকা খরচ হচ্ছে। উপযুক্ত মানের রাস্তা তৈরি না-হলে ঠিকাদারদের শাস্তির নিদান রয়েছে বিলে। ড্রাইভিং লাইসেন্স পাওয়াও কঠিন হয়ে যাবে। কারণ লাইসেন্স পাওয়ার পরীক্ষা পুরোপুরি প্রযুক্তি-নির্ভর হয়ে যাবে। কোনও ব্যক্তির হস্তক্ষেপ থাকবে না।’’