ভারতে প্রত্যাবর্তনের কথা অস্বীকার করলেন বিতর্কিত ধর্মপ্রচারক জাকির নাইক।

সম্প্রতি কয়েকটি ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে জাকির নাইক দেশে ফিরছেন বলে খবর প্রকাশিত হয়। মালয়েশিয়ার একটি সূত্র থেকে পাওয়া খবর অনুযায়ী, মঙ্গলবার রাতে মালয়েশিয়া থেকে ভারতের উদ্দেশে বিমানে রওনা দেন তিনি। কিন্তু ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে এ বিষয়ে কোনও খবর ছিল না। ফলে জাকির নাইকের প্রত্যাবর্তনের খবরে বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়েছিল দেশ জুড়ে। বুধবার জাকির নাইক নিজেই জানিয়ে দেন, খবরটা পুরোপুরি ভুল। এখনই দেশে ফিরছেন না তিনি।

বুধবার নাইকের আইনজীবী দাতো সাহারুদ্দিন-এর মাধ্যমে এক বিবৃতি দিয়ে বলেন, ‘আমার দেশে ফেরার খবর সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন এবং ভুয়ো। যতদিন না ভারত আমার জন্য সুরক্ষিত বলে মনে করব ততদিন দেশে ফেরার কোনও সম্ভাবনা নেই’।

আরও পড়ুন: হোয়াটসঅ্যাপে বাড়ছে নজরদারি, কেন্দ্রের চিঠির জবাবে জানাল কর্তৃপক্ষ

২০১৬ সালে ঢাকার গুলশনে হামলাকারী জঙ্গিদের কয়েকজন জাকির নাইকের প্রচারে প্রভাবিত হয়েছিল বলে অভিযোগ ওঠে। তার পরেই দেশ ছাড়েন নাইক। আপাতত তিনি মালয়েশিয়ায় আশ্রয় পেয়েছেন। ২০১৬ সালের নভেম্বর মাসে ইউএপিএ ও ফৌজদারি দণ্ডবিধির নানা ধারায় নাইকের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করে এনআইএ। তাঁর স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ইসলামিক রিসার্চ ফাউন্ডেশনকেও নিষিদ্ধ করা হয়। নাইকের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সম্প্রদায়ের মধ্যে বিভেদে উস্কানি দেওয়ার অভিয়োগ রয়েছে।

মালয়েশিয়া থেকে নাইককে দেশে ফেরানোর চেষ্টাও করা হয়। কিন্তু যথেষ্ট সাক্ষ্যপ্রমাণের অভাবে তাঁর বিরুদ্ধে জারি করা রেড কর্নার নোটিশ খারিজ করে দেয় ইন্টারপোল। ফলে মালয়েশিয়া থেকে এখনও তাঁকে ফেরানো যায়নি।

(এর আগে এই খবরের শিরোনামে জাকির নাইককে ‘গুলশন হামলার নেপথ্য নায়ক’ বলে উল্লেখ করা হয়েছিল। এই অনিচ্ছাকৃত ত্রুটির জন্য আমরা দুঃখিত)