প্রেমের লাল নয়। ঈর্ষার সবুজ নয়। বাবল গাম অথবা বুড়ির চুল! কিংবা ফ্লেমিঙ্গো... উজ্জ্বল গোলাপির যে আভা মন জুড়িয়ে দেয়, সেটিই নাকি ছিল পৃথিবীর সব চেয়ে প্রাচীন রং। অস্ট্রেলিয়া ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি-র এক গবেষকের দাবি তেমনই। তাঁর গবেষণাপত্র প্রকাশিত হয়েছে ‘প্রোসিডিংস অব দি ন্যাশনাল অ্যাকাডেমি অব সায়েন্সেস অব দি ইউনাইটেড স্টেটস অব আমেরিকা’ পত্রিকায়।

সাহারা মরুভূমির নীচে পশ্চিম আফ্রিকার মরিটেনিয়ার টাওদেনি বেসিনে থাকা ১১০ কোটি বছরের পুরনো পাথরে গোলাপি রঞ্জক খুঁজে পেয়েছেন তিনি। নুর গুয়েনেলি নামে ওই গবেষক বলছেন, ভূতাত্ত্বিক রেকর্ডে এটাই সব চেয়ে পুরনো রং। 

তাঁর দাবি, সামুদ্রিক জীব থেকে বিভিন্ন রঞ্জক যখন তৈরি হয়েছে, তারও ৫০ কোটি বছর আগে তৈরি হয়েছে উজ্জ্বল গোলাপি রঞ্জক। এটিরও উৎস প্রাচীন সামুদ্রিক জীব। গুয়েনেলি বলেছেন, ‘‘উজ্জ্বল গোলাপি রঞ্জক হচ্ছে ক্লোরোফিলের আণবিক জীবাশ্ম। এক ধরনের সালোকসংশ্লেষকারী প্রাচীন সামুদ্রিক জীব এই ক্লোরোফিল তৈরি করত। রঞ্জক রয়ে গেলেও ওই জীব পরে উধাও হয়ে যায়।’’

এই রঞ্জক আবিষ্কারের জন্য গবেষক একশো কোটি বছরের পুরনো পাথর গুঁড়ো করে পাউডার তৈরি করেন। সেই পাউডার থেকে প্রাচীন জীবের কণা (মলিকিউল) বার করে তার বিশ্লেষণ করেছেন। এই সময়েই প্রাচীন রঞ্জকে উজ্জ্বল গোলাপি রং লক্ষ্য করেন গুয়েনেলি। যদিও পাথরে জমে থাকা অবস্থায় ওই জীবাশ্মের রং কখনও রক্তের মতো লাল, কখনও বা গাঢ় পার্পল।