Advertisement
০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

পাঠকের প্রশ্ন

দ্বিতীয় প্রোমোটার বাড়ি ভেঙে তা তৈরি করা শুরু করেছেন। কিন্তু তা শেষ হওয়া পর্যন্ত যে অন্য বাড়িতে থাকতে দেওয়ার কথা, কিছু অংশীদারের ক্ষেত্রে সেই সুবিধা এখনও দেননি।

শেষ আপডেট: ০৯ অগস্ট ২০১৮ ০৩:১৬
Share: Save:

প্রঃ একটা সম্পত্তির ২৮ জন অংশীদার প্রথমে এক প্রোমোটারকে রেজিস্ট্রি করা পাওয়ার অব অ্যাটর্নি দেন ২০০৮ সালে ও তাঁর সাথেই ফ্ল্যাট তৈরির জন্য চুক্তি করেন ২০১৪ সালে। প্রোমোটার প্ল্যান স্যাংশনের জন্য খরচও করেন। তার মধ্যে ওই অংশীদারদের মধ্যে কয়েক জন অন্য এক প্রোমোটারের সাথে রফা করে তাঁর সঙ্গে অপর একটি পাওয়ার অব অ্যাটর্নি ও চুক্তি করেন ২০১৫ সালে। তা রেজিষ্ট্রেশনও হয়। এই অবস্থায় কোন পাওয়ার অব অ্যাটর্নি গ্রহণযোগ্য?

Advertisement

দ্বিতীয় প্রোমোটারের সাথে নতুন পাওয়ার অব অ্যাটর্নি ও ফ্ল্যাট তৈরির চুক্তি রেজিস্ট্রেশন করার আগে বাকি অংশীদাররা প্রথম প্রোমোটারের সাথে করা চুক্তি খারিজ করেছে কি না, তা জানতে পারিনি। পরে প্রথম প্রোমোটার ২৮ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন ও ২০ লক্ষ টাকার ক্ষতিপূরণ দাবি করেন। ওই সমন থেকেই এটা পরিষ্কার হয় যে দু’টি পাওয়ার অব অ্যাটর্নি ও চুক্তি রয়েছে।

দ্বিতীয় প্রোমোটার বাড়ি ভেঙে তা তৈরি করা শুরু করেছেন। কিন্তু তা শেষ হওয়া পর্যন্ত যে অন্য বাড়িতে থাকতে দেওয়ার কথা, কিছু অংশীদারের ক্ষেত্রে সেই সুবিধা এখনও দেননি।

আমি এখন দু’টি পাওয়ার অব অ্যাটর্নিই খারিজ করতে চাই। তা কি সম্ভব? যদি তা করা হয়, তা হলে কি আমি প্রথম প্রোমোটারের দাবি করা টাকা দিতে বাধ্য থাকব?

Advertisement

অসিত বরণ রায়

আপনার বলা থেকেই স্পষ্ট যে প্রথম পাওয়ার অব অ্যাটর্নি ও চুক্তিটি বাতিল হয়নি। আপনার প্রথম প্রশ্নের উত্তরে বলি, প্রথম পাওয়ার অব অ্যাটর্নি যতক্ষণ পর্যন্ত না বাতিল করা হচ্ছে, তত ক্ষণ দ্বিতীয় পাওয়ার অব অ্যাটর্নি বৈধ হচ্ছে না।

প্রথম প্রোমোটারের সঙ্গে করা ডেভেলপমেন্ট এগ্রিমেন্ট রেজিস্ট্রি করা কি না, তা আপনি বলেননি। ধরে নিচ্ছি তা রেজিস্ট্রি করা হয়নি। চুক্তি যদি বাতিল করতে হয়, সে ক্ষেত্রে কী কারণে আপনারা মানছেন না, তার যথাযোগ্য কারণ দেখিয়ে প্রথম প্রোমোটারকে চিঠির মাধ্যমে জানাতে হবে যে, সেটি বাতিল করা হল। তা না করে যদি ইচ্ছেমতো ২০১৪ সালে চুক্তি করার পর, সেই চুক্তি আইনত বাতিল না করেই দ্বিতীয় প্রোমোটরের সঙ্গে চুক্তি করেন, তা হলে সেই চুক্তির বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন উঠবেই।

দ্বিতীয় প্রোমোটারের সঙ্গে অংশীদারদের মধ্যে যাঁরা পাওয়ার অব অ্যাটর্নি ও চুক্তি করেছিলেন, তাঁদের বিরুদ্ধে প্রথম প্রোমোটার আদালতে যেতেই পারেন।

আপনি প্রথম প্রোমোটারের সঙ্গে করা রেজিস্টার্ড পাওয়ার অব অ্যাটর্নি খারিজ করতেই পারতেন। কিন্তু সে ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট কারণ দর্শানোর প্রয়োজন যে, কেন তা চাইছেন। কিন্তু প্রথম প্রোমোটারের পাঠানো নোটিসের পরে, তাঁর সঙ্গে করা পাওয়ার অব অ্যাটর্নি ও চুক্তিপত্র বাতিল করতে চাওয়া কঠিন। কারণ তার যথাযথ কারণ নেই। আবার এটাও ঠিক যে, দ্বিতীয় প্রোমোটারের সঙ্গে চুক্তি বা পাওয়ার অব অ্যাটর্নি যেহেতু আপনি নিজে করেননি, তাই তা বাতিল করতে পারবেন না।

আবার যাঁরা দ্বিতীয় প্রোমোটারের সঙ্গে চুক্তি ও পাওয়ার অব অ্যাটর্নি করেছেন, তাঁদের পক্ষেও সেগুলি বাতিল করা কঠিন। কারণ দ্বিতীয় প্রোমোটার পুরনো বাড়িটি ভেঙে ফেলেছেন। অর্থাৎ তিনি বাড়িতে খরচ করা শুরু করেছেন। আবার এটাও ঠিক যে, তিনি অংশীদারদের অন্য বাড়িতে থাকার সুযোগ দিচ্ছেন না। এই অজুহাতে ও অন্যান্য আরও কারণ দেখিয়ে, দ্বিতীয় প্রোমোটারের সঙ্গে চুক্তি ও পাওয়ার অব অ্যাটর্নি বাতিল করার চেষ্টা করা যেতে পারে।

অংশীদারদের মধ্যে সমঝোতার অভাবেরই সুযোগ নিয়েছেন প্রোমোটারেরা। মামলা হলে বাড়ির কাজে আরও দেরি হবে। তাই মাথা ঠান্ডা রেখে জট ছাড়ানোর চেষ্টা করুন।

পরামর্শদাতা: জয়ন্ত নারায়ণ চট্টোপাধ্যায়

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.