• নিজস্ব প্রতিবেদন
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

বিনোদন

হৃতিক তাঁর ‘নির্বোধ প্রাক্তন’ থেকে ঊর্মিলা ‘সফ্ট পর্ন নায়িকা’, কঙ্গনার আক্রমণ থেকে রেহাই নেই

শেয়ার করুন
১৮ kangana
অভিনয়ের পাশাপাশি নিজের মন্তব্য়ের জন্য়েও শিরোনামে নিয়মিত কঙ্গনা রানাউত।  কেরিয়ারে বার বার বিতর্কে জড়িয়েছেন স্পষ্টবক্তা ‘কুইন’। আসুন,এক বার দেখে নিই  বিতর্কিত কঙ্গনাকে।
১৮ kangana and hrithik
হৃতিক-কঙ্গনা সম্পর্ক বলিউডের ইতিহাসে তিক্ততম তারকা-বিবাদের মধ্য়ে অন্যতম। ২০১৬ সালে এক সাক্ষাৎাকারে কঙ্গনা বলেছিলেন হৃতিক তাঁর ‘নির্বোধ প্রাক্তন’।  তাঁর অভিযোগ ছিল, হৃতিক একটি আলাদা ইম‌েল আইডি তৈরি করেছিলেন শুধু কঙ্গনার সঙ্গে যোগাযোগ রাখবেন বলে। অন্যদিকে, হৃতিক বলেছিলেন মানসিক রোগী।
১৮ kangana
কর্ণ জোহরের টক শো-এ গিয়ে তাঁকে মুখের উপর ‘স্বজনপোষণের  মাফিয়া’ বলেছিলেন কঙ্গনা। সুশান্ত সিংহ রাজপুতের মৃত্যুর আনেক আগেই কঙ্গনা টিনসেল টাউনে স্বজনপোষণের প্রতিবাদে মুখর হয়েছিলেন।
১৮ kangana and aditya
বহিরাগত কঙ্গনার বলিউডে গডফাদার ছিলেন আদিত্য পাঞ্চোলি।  পরে তাঁর সঙ্গে দীর্ঘ কয়েক বছর লিভ ইন করেন কঙ্গনা। একটি টেলিভিশন শো-এ এসে তিনি অভিযোগ করেছিলেন, আদিত্য় তাঁকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করেছেন। এমনকি, তাঁকে বাড়িতে আদিত্য বন্দি করে রাখেন বলেও অভিযোগ ছিল কঙ্গনার।
১৮ kangana and aditya pancholi
আদিত্যর স্ত্রী অভিনেত্রী জারিনা ওয়াহাবের শরণাপন্নও হয়েছিলেন কঙ্গনা। অভিযোগ জানিয়েছিলেন তাঁর স্বামীর বিরুদ্ধে। কিন্তু কঙ্গনাকে কোনও সাহায্য করেননি জারিনা। এমনকি, এই ত্রিকোণ প্রেমের সবকিছু জেনেও তিনি স্বামীর পাশে ছিলেন। কঙ্গনার সঙ্গে আদিত্য় লিভ ইন করছেন জেনেও ডিভোর্সের পথে যাননি জারিনা। পরে তাঁর বিরুদ্ধে আনা কঙ্গনার সব অভিযোগ অস্বীকার করেন আদিত্য।
১৮ kangana and adhyayan suman
আবার কঙ্গনার বিরুদ্ধে শারীরিক ও মানসিক নিগ্রহের অভিযোগ এনেছিলেন তাঁর আর এক প্রাক্তন প্রণয়ী অধ্য়য়ন সুমন। অভিনেতা শেখর সুমনের ছেলে অধ্যয়নের অভিযোগ, " কয়েক বছর আগে কঙ্গনা তাঁর জন্মদিনে ‘দ্য লীলা’তে কাছের মানুষদের আমন্ত্রণ জানায়। আমায় হঠাৎ করেই ও বলে ‘চল আজ সারারাত কোকেন নিই’। এর আগে আমি কঙ্গনার সঙ্গে গাঁজা খেয়েছি। আমার ভাল লাগেনি। আমি না বলি। এর পরেই কঙ্গনা রেগে যায়। আমাদের মধ্যে বিশ্রী ঝামেলা শুরু হয়।”
১৮ kangana
যদিও দিন কয়েক আগে কঙ্গনা তাঁর ইনস্টাগ্রাম হ্যান্ডেলে মুম্বই পুলিশকে ট্যাগ করে লেখেন, “দয়া করে আমার ড্রাগ টেস্ট করুন। আমার কল রেকর্ডও চেক করতে পারেন। যদি কোনও মাদক পাচারকারীর সঙ্গে আমার যোগাযোগ প্রমাণ করতে পারেন অথবা খুঁজে পান তবে আমি আমার ভুল স্বীকার করব এবং সারাজীবনের জন্য মুম্বই ছেড়ে দেব।”
১৮ kangana and jaya
কঙ্গনার ক্ষুরধার কথা থেকে রেহাই পাননি জয়া বচ্চনও। সম্প্রতি বিজেপি সাংসদ রবি কিশনের মন্তব্যের প্রতিবাদ করে রাজ্যসভায় জয়া বলেছিলেন, তিনি যে থালায় খাচ্ছেন সেই থালাকেই ফুটো করছেন। রবি বলেছিলেন, বলিউডের বেশির ভাগ শিল্পীই মাদকাসক্ত। সেই কথা শুনেই বেজায় চটেছিলেন সমাজবাদী নেত্রী। একহাত নিয়েছিলেন অভিনেতাকে।
১৮ kangana
জবাবে কঙ্গনা টুইটে লেখেন, “ইন্ডাস্ট্রিকে আপনি কোন থালা সাজিয়ে দিয়েছেন জয়াজি? একটা থালা পেয়েছিলাম যেখানে দু’মিনিটের আইটেম নম্বর এবং একটা রোম্যান্টিক দৃশ্যে অভিনয় করার বদলে নায়কের সঙ্গে বিছানায় যাওয়ার প্রস্তাব সাজানো ছিল। এই ইন্ডাস্ট্রিকে নারীবাদ আমি শিখিয়েছি। নারীবাদী,দেশপ্রেমের ছবি দিয়ে ইন্ডাস্ট্রির থালা সাজিয়েছি। এই থালা আমার নিজের জয়াজি, আপনার নয়।”
১০১৮ kangana
একদিন কঙ্গনাকে ‘পতিতা’ বলেছিলেন ঊর্মিলা মাতন্ডকর। কঙ্গনার সাম্প্রতিক বাকনিশানায় পড়েছেন ঊর্মিলাও। একটি টেলিভিশন চ্যানেলে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ঊর্মিলাকে ‘সফট পর্ন অভিনেত্রী’ বলেন কঙ্গনা। বলেন,‘‘ঊর্মিলা একজন সফট পর্ন স্টার। অভিনয় দক্ষতার জন্য ঊর্মিলা বিখ্যাত নন। তা হলে উনি কেন বিখ্যাত? সফট পর্ন সিনেমায় অভিনয় করার জন্য। সেও যদি ভোটের টিকিট পেতে পারে, আমিও পারি।’’
১১১৮ uddhav and kangana
শুধু সহকর্মীরাই নন। কঙ্গনা সরাসরি আক্রমণ করেছেন রাজনীতিকদের। মুম্বইকে ‘পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীর’ বলে মন্তব্য করেন কঙ্গনা। এর জেরে মহারাষ্ট্রে মুখ্য়মন্ত্রী তথা শিবসেনা প্রধান উদ্ধব ঠাকরের সঙ্গে সঙ্ঘাতে জড়িয়ে পড়েন অভিনেত্রী। বেআইনি নির্মাণের অভিযোগে কঙ্গনার অফিস গুঁড়িয়ে দেয় বৃহন্মুম্বই পুরসভা।
১২১৮ kangana and tapsee
সম্প্রতি স্বজনপোষণ নিয়ে মুখ খুলেছেন তাপসীও। বহিরাগত তিনিও। তাই স্টারকিডদের বাড়বাড়ন্তে তাঁরও যে বেশ কয়েকটি ছবি হাতছাড়া হয়েছে তা প্রকাশ্যেই বলেছেন তিনি। কিন্তু কোন ছবি, কোন স্টারকিড তা নিয়ে নীরব থেকেছেন তাপসী। আর এতেই চটেছেন কঙ্গনা। তিনি তাপসীকে বলেন, ‘‘মুভি মাফিয়ার স্তাবক’।
১৩১৮ tapsee pannu
বছর কয়েক আগে ‘নাম শাবানা’ ছবি মুক্তির সময়ে কঙ্গনার উদ্দেশে তাপসী একবার বলেছিলেন, ‘‘কাজ না পেলে সব সময় স্বজনপোষণকে দায়ী করা ঠিক নয়।’’সেই কথাই টেনে এনে কঙ্গনার বক্তব্য, তা হলে এখন সরব কেন তাপসী?
১৪১৮ kangana
কঙ্গনা লেখেন, ‘‘বহিরাগতদের যে আন্দোলন আমি শুরু করেছিলাম, অনেক বহিরাগতই তাতে বারেবারে বাধা দিয়েছে। আমাকে সরাসরি আক্রমণ করেছে। অপমান করেছে। ফলস্বরূপ তাদের ভাগ্যে জুটেছে ভাল ছবি, পুরস্কার। যে গাছ কঙ্গনা পুঁতেছিল তারই ফল খাচ্ছ তুমি, তাপসী, লজ্জা হওয়া দরকার।’’
১৫১৮ kangana and tapsee
পাল্টা উত্তর দিতে সময় নেননি তাপসীও। কঙ্গনাকে তিক্ত, অসুখী মানুষ হিসেবে বর্ণনা করে পাল্টা আক্রমণ করেন ‘পিঙ্ক’ অভিনেত্রী। তাপসী কতগুলো ইংরেজি কোট শেয়ার করেন টুইটারে। যাতে লেখা, “অসুখী মানুষদের মতো ব্যবহার করো না। বরং তাঁদের আচরণ থেকে শিক্ষা নাও কী রকম আচরণ করা উচিত নয়।” দুই বহিরাগতর তরজায় সরগরম হয়ে ওঠে সোশ্যাল মিডিয়া।
১৬১৮ kangana
‘তনু ওয়েডস মনু’-র সাফল্য়ের অন্য়তম উপাদান কঙ্গনা ও স্বরা ভাস্করের অনস্ক্রিন বন্ধুত্ব। বাস্তবে ছবিটা সম্পূর্ণ অন্যরকম। দুই অভিনেত্রীর ভার্চুয়াল ক্যাট ফাইট এখন শিরোনামে। কিছুদিন আগেই আমির খানের একটি সাক্ষাৎকার টুইট করেন কঙ্গনা। সাক্ষাৎকার প্রসঙ্গে কঙ্গনার দাবি ছিল,‘পিকে’ অভিনেতার স্ত্রী হিন্দু হওয়া সত্ত্বেও তাঁর সন্তানদের ইসলাম ধর্ম অনুসরণ করার শিক্ষা দিয়েছেন। শেষ পর্যন্ত দেখা যায় সাক্ষাৎকারটি ফেক।
১৭১৮ kangana and swara
এমন সুযোগ ছেড়ে দেননি স্বরা। একটি অনলাইন সংবাদ মাধ্যম এই ফেক খবরের উপর ভিত্তি করে কঙ্গনার টুইটের খবরটি প্রকাশ করে। সেখানেই স্বরা কমেন্ট করেন— “থক যা বেহেন”। এই ছোট্ট একটা লাইনের ‘থাম রে বোন’ খোঁচার  সঙ্গে হাত জোড় করা ইমোজি যেন নাটকীয়তা বাড়িয়ে তুলেছে আরও কয়েকগুণ। স্বরার এই তিনটি শব্দই সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড় তুলে দেয়। কেউ স্বরার পক্ষে, তো কেউ আবার এগিয়ে এসেছেন তাঁদের ‘কুইন’ কঙ্গনার জন্য।
১৮১৮ kangana
অবশ্য এটাই প্রথম নয়। এর আগেও তাপসী ও স্বরাকে আক্রমণ করেছেন কঙ্গনা। তাঁদের নামের সঙ্গে জুড়ে দিয়েছেন বি-গ্রেড অভিনেত্রীর তকমা। অভিযোগের সুর সপ্তমে চড়িয়ে বলেছেন— ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ পাওয়ার লোভে স্বজনপোষণকে সমর্থন করতেও নাকি পিছুপা হন না ওঁরা। তার পর থেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় তাঁদের বাকযুদ্ধ জারি।

Advertisement

Advertisement

সবাই যা পড়ছেন

Advertisement

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
বাছাই খবর
আরও পড়ুন