Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

০২ জুলাই ২০২২ ই-পেপার

URL Copied

চিত্র সংবাদ

Shilajit: প্রাকৃতিক যৌনক্ষমতা বর্ধক! আর কী কী গুণ আছে শিলাজিতের

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা ২৯ এপ্রিল ২০২২ ০৮:৫৫
শিলাজিৎ। কালচে বাদামী রঙের একটি পদার্থ। উঁচু পাহাড়ের শিলা থেকে নির্গত এই নির্যাস মূলত পাওয়া যায় ভারত, নেপাল, ভুটান, রাশিয়া, ইরান, মঙ্গোলিয়া এবং পেরুর দক্ষিণের পাহাড়গুলিতে।

পেরুতে এই পদার্থ পরিচিত ‘আন্দিয়ান শিলাজিৎ’ নামে।
Advertisement
শিলাজিৎকে কখনও কখনও খনিজের নির্যাস বা রজন হিসেবেও উল্লেখ করা হয়। তবে তা সঠিক নয়। আলকাতরার মতো চটচটে হলেও এই পদার্থ জলে সহজেই গুলে যায়।

গবেষকেদের একাংশের অনুমান, বহু শতাব্দী ধরে ইউফোরবিয়া এবং ট্রাইফোলিয়াম উদ্ভিদের প্রজাতি থেকে নিঃসৃত ল্যাটেক্স এবং রজন নিঃসরণকারী উদ্ভিদের পচনে তৈরি হয় শিলাজিৎ।
Advertisement
শিলাজিতে ৬০ থেকে ৮০ শতাংশ হিউমিক অ্যাসিড এবং ফুলভিক অ্যাসিড থাকে। এ ছাড়াও থাকে সেলেনিয়াম-সহ একাধিক রাসায়নিক উপাদান।

তবে একটু খেয়াল করলেই দেখা যায় নামীদামি সমস্ত ওষুধ প্রস্তুতকারক সংস্থা বা আয়ুর্বেদ সংস্থায় শিলাজিৎকে নতুন মোড়কে প্যাকেটজাত পণ্য হিসেবে বিক্রি করে। বাজারে এর চাহিদাও ব্যাপক। দামও নেহাত কম না।

নামী সংস্থার ৪০ গ্রাম শিলাজিতের দাম হয় প্রায় ছয় থেকে সাত হাজার টাকা।

কিন্তু কেন এত চাহিদা শিলাজিতের? কেনই বা এত দাম?

শিলাজিৎ প্রাকৃতিক যৌনক্ষমতা বর্ধক হিসেবে ব্যবহৃত হয়। তাই যৌনক্ষমতা বাড়ানোর উদ্দেশ্যে অনেকেই শিলাজিৎ খান।

অনেক পুরুষেরই শরীরে যৌন হরমোন টেস্টোস্টেরনের মাত্রা তুলনামূলক ভাবে কম থাকে। এর ফলে পুরুষদের মধ্যে— কম যৌন চাহিদা, চুল পড়া, পেশি ভর হ্রাস পাওয়া, ক্লান্তি, শরীরে চর্বির পরিমাণ বৃদ্ধির মতো লক্ষণগুলি দেখতে পাওয়া যায়।

শরীরে টেস্টোস্টেরনের এই ঘাটতি ঠিক করতে অব্যর্থ শিলা়জিৎ। মাত্র তিন মাসেই শিলাজিৎ পুরুষের যৌনক্ষমতা অনেকাংশে বাড়িয়ে দেয় বলেও এক সমীক্ষায় দাবি করা হয়েছে।

পুরুষ বন্ধ্যাত্ব কমাতেও কাজ করে শিলাজিৎ। একটি গবেষণায়, ৬০ জন পুরুষকে ৯০ দিন ধরে দিনে দু’বার করে শিলাজিৎ খাওয়ানো হয়।

৯০ দিন পরে গবেষণায় অংশ নেওয়া পুরুষদের ৬০ শতাংশের বীর্যে শুক্রাণুর পরিমাণ বাড়ে। ১২ শতাংশ পুরুষের মধ্যে শুক্রাণুর গতিশীলতাও বৃদ্ধি পায়।

তবে যৌন ক্ষমতা বাড়ানো ছাড়া আরও অনেক চিকিৎসা গুণ রয়েছে শিলাজিতের।

হৃৎপিণ্ড ভাল রাখার জন্যও অনেকে শিলাজিৎ খান। কিছু গবেষক ইঁদুরের হৃৎপিণ্ডের উপর শিলাজিতের কর্মক্ষমতা পরীক্ষা করেন। তাতে আশানুরূপ ফল আসে বলেও ওই গবেষকরা দাবি করেছেন।

রক্তে লোহিত কণিকা এবং লোহার পরিমাণ বাড়াতেও সাহায্য করে শিলাজিৎ। অন্তত এমনটাই মত বিশেষজ্ঞেদের একাংশের।

কিছু কিছু গবেষক এ-ও দাবি করেছেন যে, কম ঘুম হওয়া ব্যক্তিদের ঘুমের সময় বাড়াতে এবং আলস্য কাটাতেও শিলা়জিতের বিশেষ ভূমিকা রয়েছে।

শিলাজিৎ ফুলভিক অ্যাসিড সমৃদ্ধ। ফুলভিক অ্যাসিড শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট। তাই শিলাজিতের নিয়মিত ব্যবহারের ফলে বার্ধক্য দেরিতে আসে বলেও দাবি করেন অনেকে।

শিলাজিতের কি কোনও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া আছে?

শিলাজিৎ একটি প্রাকৃতিক উপাদান হলেও প্রাকৃতিক অবস্থায় শিলাজিৎ খাওয়া উচিত নয়। অপ্রক্রিয়াজাত শিলাজিতে অনেক ধাতুমৌল, ছত্রাক এবং অন্যান্য দূষিত পদার্থ মিশে থাকতে পারে। এর ফলে এই শিলাজিৎ খেলে অসুস্থ হওয়ার আশঙ্কা থাকে।

বাজারে শিলাজিৎ তরল এবং গুঁড়ো অবস্থায় পাওয়া যায়। দুধ বা জলে মিশিয়ে খাওয়া যেতে পারে এটি। তবে নিজে থেকে একদমই শিলাজিৎ খেতে যাবেন না। শিলাজিৎ খাওয়ার আগে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। চিকিৎসক সবুজ সঙ্কেত দিলেই তবেই এটি খাওয়ার কথা ভাবুন।