কিংসমিডে চলতি টেস্টে হাসিম আমলা এলবিডব্লিউ হলেও তাঁকে আউট করতে পারলেন না শ্রীলঙ্কার বাঁহাতি পেসার বিশ্ব ফার্নান্ডো! অবাক করার মতো হলেও এটাই সত্যি। 

এই আউটের আবেদন আম্পায়ার আলিম দার নাকচ করে দেন। ফলে ডিআরএস বা ডিসিশন রিভিউ সিস্টেমে ফের আবেদন করার সুযোগ ছিল ফার্নান্ডোর। কিন্তু তা চাইতে দেরি হওয়ায় আম্পায়ার সেই আবেদনও বাতিল করে দেন। যা নিয়ে শুরু হয়েছে বিতর্ক। সত্যিই দেরি হয়েছে কি না, বিতর্ক তা নিয়েই।  

বুধবার প্রথম টেস্টের প্রথম ওভারেই ডিন এলগার আউট হওয়ার পরেই আমলা পরিষ্কার এলবিডব্লিউ ছিলেন, যা পরে টিভি রিপ্লে-তে ধরা পড়ে। কিন্তু তৃতীয় আম্পায়ারের কাছে রিভিউ চেয়েও কোনও লাভ হয়নি। আম্পায়ার দার জানিয়ে দেন, ১৫ সেকেন্ডের মধ্যে সেই আবেদন করেননি শ্রীলঙ্কার অধিনায়ক দিমুথ করুণারত্নে। আইসিসি-র টেস্ট প্লেইং কন্ডিশন-এর ৩.২.২ ধারা অনুযায়ী, বল ‘ডেড’ হওয়ার ১৫ সেকেন্ডের মধ্যে রিভিউয়ের আবেদন করতে হয়। 

অথচ টিভি ধারাভাষ্যকাররা রিপ্লেয় দেখেন, রিভিউ চাইতে ১৩ সেকেন্ড সময় নিয়েছে শ্রীলঙ্কা। এই সময়ের হিসেব রাখা টিভি আম্পায়ার ইয়ান গোল্ডেরও এক্তিয়ারভুক্ত। দারের ভুল তিনি ধরিয়ে দিতে পারতেন। কিন্তু তাও করেননি তিনি। বল ‘ডেড’ হয়ে যাওয়ার দশ সেকেন্ড পরে বোলার ও তাঁর অধিনায়কের কাছে মাঠের আম্পায়ার জানতে চান, তাঁরা রিভিউ চাইবেন কি না। দারকে এ দিন তাও করতে দেখা যায়নি। রিভিউ হলে টেস্টের শুরুতেই দক্ষিণ আফ্রিকাকে ০-২ করে দিয়ে চাপে ফেলে দিতে পারত শ্রীলঙ্কা। তা না পারলেও দক্ষিণ আফ্রিকাকে ২৩৫ রানে অলআউট করে দেয় শ্রীলঙ্কা। ফার্নান্ডো চার উইকেট নেন ৬২ রান দিয়ে। অপর মিডিয়াম পেসার কাসুন রজিতা নেন তিন উইকেট। কুইন্টন ডি কক করলেন ৮০। জবাবে শ্রীলঙ্কা দিনের শেষে ৪৯-১। আমলা দ্বিতীয় স্লিপে কুশল মেন্ডিসকে ক্যাচ দিলে সেই আবেদনও নাকচ হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু গোল্ড সেই ভুল শুধরে দেন।