লিয়োনেল মেসিকে আটকানোর প্রস্তুতি শুরু হয়ে গেল ব্রাজিল শিবিরে। কোপা আমেরিকায় আর্জেন্টিনার বিরুদ্ধে শেষ তিন সাক্ষাৎকারে তিন বারই জিতেছে ব্রাজিল (১৯৯৯, ২০০৪ ও ২০০৭)। বুধবার ঘরের মাঠেও জয়ের ধারা বজায় রাখতে মরিয়া পাঁচ বারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নেরা।

নেমার দা সিলভা স্যান্টোস (জুনিয়র)-হীন ব্রাজিল জয় দিয়ে কোপা আমেরিকায় অভিযান শুরু করলেও প্রথম ম্যাচেই ধাক্কা খায় আর্জেন্টিনা। শুধু তাই নয়। একেবারেই ছন্দে নেই মেসি। চার ম্যাচে মাত্র একটি গোলই করেছেন বার্সেলোনা তারকা। তা সত্ত্বেও মেসিকে নিয়েই উদ্বিগ্ন ব্রাজিলের ডিফেন্ডারেরা। সাংবাদিক বৈঠকে থিয়াগো সিলভা বলেছেন, ‘‘আমি মনে করি, ফুটবলের ইতিহাসে মেসি অন্যতম সেরা। ওর মতো ফুটবলার আমি দেখিনি।’’ তিনি আরও বলেছেন, ‘‘জাতীয় দলের হয়ে কোনও প্রতিযোগিতা বা ক্লাবের জার্সিতে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে যখনই মেসির মুখোমুখি হয়েছি, সমস্যায় পড়তে হয়েছে। যতই প্রস্তুতি নিই, ওকে আটকানো অসম্ভব। কখন কী করে দেবে, কেউ কল্পনা করতে পারবে না।’’

২০১৬-’১৭ মরসুমে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ষোলোয় প্রথম পর্বে প্যারিস সাঁ জারমাঁ ৪-০ হারিয়ে দিয়েছিল বার্সেলোনাকে। দ্বিতীয় পর্বে ঘরের মাঠে মেসির নেতৃত্বে অবিশ্বাস্য প্রত্যাবর্তন ঘটিয়ে পিএসজি-কে ৬-১ চূর্ণ করে স্প্যানিশ ক্লাব। সেই সময় নেমারও ছিলেন বার্সেলোনায়। সেই হার এখনও ভুলতে পারেননি থিয়াগো। পিএসজি ডিফেন্ডার বলেছেন, ‘‘রোনাল্ডো দা লিমা, আদ্রিয়ানো, সিডর্ফের মতো তারকাদের সঙ্গে আমি খেলেছি। কিন্তু মেসির সঙ্গে কারও তুলনা হয় না।’’ তিনি যোগ করেছেন, ‘‘পেলে, জ়িকোর খেলা আমি দেখিনি। মারাদোনার খেলা দেখেছি। মেসি সকলের চেয়ে আলাদা।’’ 

চোটের জন্য নেমারের ছিটকে যাওয়া নিয়ে চিন্তিত নন থিয়াগো। বলেছেন, ‘‘নেমার ছিটকে যাওয়ায় আমরা বিস্মিত হয়েছিলাম। তবে ওর অনুপস্থিতি আমাদের আরও উদ্বুদ্ধ ও শক্তিশালী করে তুলেছে।’’

মেসিকে নিয়ে উদ্বেগের মধ্যে ব্রাজিল শিবিরে স্বস্তির খবর, ফিটনেস পরীক্ষায় পাশ করেছেন ফিলিপে লুইস ও ফের্নান্দিনহো লুইস রোসা। কোয়ার্টার ফাইনালে প্যারাগুয়ের বিরুদ্ধে পেশিতে চোট পান ব্রাজিল ডিফেন্ডার। আর এক ডিফেন্ডার ফের্নান্দিনহোর সমস্যা হাঁটুতে। আর্জেন্টিনার বিরুদ্ধে দু’জনেরই খেলা নিয়ে সংশয় তৈরি হয়েছিল। তবে ফিটনেস টেস্টের পরে ব্রাজিল দলের ডাক্তার রদ্রিগো লাসমার জানিয়ে দিয়েছেন, ফিলিপে ও ফের্নান্দিনহো এই মুহূর্তে খেলার জন্য তৈরি।