আর্জেন্টিনা সেমিফাইনালে ওঠার সঙ্গে সঙ্গেই ফুটবল বিশ্বে আলোড়ন। শুধু কোপা আমেরিকায় কেন, বিশ্বের যে কোনও প্রান্তে ব্রাজিল বনাম আর্জেন্টিনা মানেই উত্তেজনার লাভাস্রোত। আবেগের অদ্ভুত বহিঃপ্রকাশ। শুধু এই দুটি দেশই নয়, ফুটবলবিশ্বও যেন দুই শিবিরে ভাগ হয়ে যায়। 

নেমার দা সিলভা স্যান্টোস জুনিয়র বনাম লিয়োনেল মেসির দ্বৈরথ আগামী মঙ্গলবারের সেমিফাইনালে হচ্ছে না ঠিকই, তাতে অবশ্য বেলো ওরিজেন্তের এই ম্যাচ নিয়ে ফুটবলপ্রেমীদের আগ্রহ একটুও কমছে না। ভেনেজ়ুয়েলার বিরুদ্ধে ম্যাচ জিতে উঠেই আর্জেন্টিনা কোচ লিয়োনেল স্কালোনি তাই বারুদে আগুন দিতে শুরু করে দিযেছেন। বলে দিয়েছেন, ‘‘ব্রাজিলের বিরুদ্ধে ম্যাচ মানেই ফুটবলপ্রেমীদের কাছে আলাদা একটা আবেগ।’’ পাশাপাশি তাঁর মন্তব্য, ‘‘মেসি হল মেসি। সবার চেয়ে সেরা। ও বিশ্বের এক নম্বর।’’ বোঝাই যাচ্ছে, শুক্রবার কোয়ার্টার ফাইনালে গোল করতে না পারলেও অধিনায়কের উপর পূর্ণ আস্থা রাখছেন তিনি। ‘‘মেসি নিয়ে অনেকে-অনেক কথা বলছে। কিন্তু আমি জানি ও কতটা অপরিহার্য। মাঠে, ড্রেসিংরুমে, সতীর্থদের সঙ্গে ওর রসায়নই আলাদা।’’ আর মেসি কি বলছেন? ‘‘ব্রাজিলের সঙ্গে সমান ভাবে পাল্লা দেওয়ার জন্য আমরা প্রস্তুত,’’ বলে দিয়েছেন আর্জেন্টিনা অধিনায়ক।

ব্রাজিল কোনওক্রমে জিতেছে প্যারাগুয়ের বিরুদ্ধে। টাইব্রেকারে। সেটা মাথায় রাখতে চান না মেসিদের কোচ। বরং তাঁর মুখ থেকে বেরিয়েছে, ‘‘এক অর্থে এই ম্যাচে কোচিং করানোটা খুব কঠিন। কিন্তু একই সঙ্গে আবার এই ম্যাচে কোচিং করানোটা দারুণ উপভোগ্যও। আমরা চেষ্টা করব ওদের আটকাতে এবং ম্যাচটা জিততে।’’ ভেনেজ়ুয়েলার বিরুদ্ধে কোয়ার্টার ফাইনালে শুরুতেই গোল পেয়ে যায় আর্জেন্টিনা। গোল করে যান লাউতারো মার্তিনেজ। দ্বিতীয় গোল জিওভানি লো সেলসো-র। মেসি শুক্রবারের ম্যাচে গোল না পেলেও তাঁর ফ্রি-কিক বারবার সমস্যায় ফেলেছে ভেনেজ়ুয়েলাকে। 

দু’গোলে হারলেও ভেনেজ়ুয়েলা তাদের খেলার অনেকটাই উন্নতি করেছে। ১৯৭৫ সালে কোপাতেই আর্জেন্টিনা ১১-০ গোলে হারিয়েছিল ভেনেজ়ুয়েলাকে। তাদের হারাতে যে যথেষ্ট লড়াই করতে হয়েছে দলকে, তা পরিষ্কার হয়ে গিয়েছে আর্জেন্টিনা স্ট্রাইকার সের্খিয়ো আগুয়েরোর কথায়। তিনি বলেছেন ‘‘আমরা জানতাম কোপায় কোনও ম্যাচেই সহজে জেতা যাবে না। এ দিনও হয়নি। তবে আমরাও সমানে লড়াই করে জিতেছি। সামনের লড়াইটা আরও কঠিন। তার জন্য তৈরি হতে হবে এ বার।’’        

শনিবার থেকেই যে ব্রাজিলকে হারানোর অঙ্ক কষতে শুরু করেছেন তাঁরা, সেটা বোঝা গিয়েছে স্কোলানির কথায়। বলেছেন, ‘‘ব্রাজিলে এভার্টনের মতো ফুটবলার আছে। যে এ বার খুবই ভাল খেলছে। আমরা জানি একটা শক্তিশালী দলের বিরুদ্ধে খেলতে নামব।’’ তবে তাঁরাও যে তৈরি থাকবেন, তার ইঙ্গিত দিয়ে আর্জেন্টিনা কোচের মন্তব্য, ‘‘পরিকল্পনা অনুযায়ী খেলব। ওদের সমস্যায় ফেলার জন্য আমাদেরও কিছু ভাবনা আছে। কোপা জিততেই হবে আর্জেন্টিনাকে।’’