বিশ্বকাপের জন্য ১৫ জনের দল আগেই ঘোষণা করেছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। রবিবার আরও দশ জনের রিজার্ভ দল ঘোষণা করা হয় যেখানে রাখা হয়েছে ডোয়েন ব্র্যাভো ও কায়রন পোলার্ডের মতো তারকাদের।

গত বছর অক্টোবরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নেন ব্র্যাভো। ২০১৬ সেপ্টেম্বরের পরে কোনও ফর্ম্যাটেই ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে খেলতে দেখা যায়নি তাঁকে। এমনকি ২০১৪ অক্টোবরের পরে কোনও ওয়ান ডে ম্যাচই খেলেননি এই ক্যারিবিয়ান অলরাউন্ডার। ২০১৬ অক্টোবরের পরে পোলার্ডও ওয়ান ডে খেলেননি। শুধুমাত্র বিশ্বের বিভিন্ন টি-টোয়েন্টি লিগে নিয়মিত খেলেন দু’জনে। আইপিএল ফাইনালেও খেলতে দেখা গিয়েছে দুই ক্রিকেটারকে। হয়তো আইপিএলের পারফরম্যান্স দেখেই ফের আন্তর্জাতিক দলে  ডাকা হল ব্র্যাভো ও পোলার্ডকে।

ক্রিকেটপ্রেমীরা মনে করেন, ব্র্যাভোকে যখন অবসর ভেঙে রিজার্ভ দলে ফেরানো হয়েছে, তা হলে বিশ্বকাপেও খেলানো হবে।  কারণ, রিজার্ভ দলে থাকার জন্য নিশ্চয়ই কোনও ক্রিকেটার অবসর ভেঙে ফিরে আসার সিদ্ধান্ত নেবেন না। 

বিশ্বকাপের আগে ১৯ থেকে ২৩ মে সাউদাম্পটনে আবাসিক শিবির শুরু হবে ওয়েস্ট ইন্ডিজের। ২২ মে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে প্রস্তুতি ম্যাচও রয়েছে। ব্র্যাভো ও পোলার্ডকেও সেই শিবিরে যোগ দিতে বলা হয়েছে। দুই তারকা অলরাউন্ডারের পাশাপাশি শিবিরে যোগ দেবেন সুনীল অ্যামব্রিস। আয়ারল্যান্ডের বিরুদ্ধে ওয়ান ডে সিরিজে দুরন্ত ফর্মে ছিলেন তিনি। এ ছাড়াও বাঁ-হাতি পেসার রেমন রিফারকেও যোগ দিতে বলা হয়েছে।

ক্রিকেট ওয়েস্ট ইন্ডিজের নির্বাচন কমিটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান রবার্ট হেন্স বলেছেন, ‘‘রিজার্ভ দল গড়ার প্রথম উদ্দেশ্য হচ্ছে কেউ চোট পেলে যেন তার মতো অথবা তার থেকেও উপযোগী পরিবর্তন পাওয়া যায়। তাই রিজার্ভ ক্রিকেটারদের বাছার সময়েও প্রাথমিক উদ্দেশ্য ছিল, দক্ষ ক্রিকেটার তুলে আনা। রিজার্ভ দলে যাদের রাখা হয়েছে, প্রত্যেকেই দক্ষ। অভিজ্ঞতার কোনও অভাব নেই। কারও পরিবর্তে ওদের মধ্যে কাউকে নেওয়া হলেও দলের ভারসাম্যে কোনও প্রভাব পড়বে না।’’