টেস্ট অভিষেকেই অর্ধশতরান। কেনিংটন ওভালে রবিবার সিরিজের পঞ্চম টেস্টের তৃতীয় দিনে নজর কাড়লেন ২৪ বছর বয়সী হনুমা বিহারী।

এর আগে ইংল্যান্ডে টেস্ট অভিষেকেই অর্ধশতরান বা তার বেশি করেছিলেন ভারতের তিনজন। এঁরা হলেন রুসি মোদি। তিনি ১৯৪৬ সালে অভিষেকে ৫৭ রানে অপরাজিত ছিলেন। ১৯৯৬ সালে টেস্ট অভিষেকে ১৩১ করেছিলেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। লর্ডসে একই টেস্টে ৯৫ করেছিলেন রাহুল দ্রাবিড়।

সার্বিক ভাবে টেস্ট অভিষেকে পঞ্চাশ বা তার বেশি রান করেছেন, এমন ভারতীয় ব্যাটসম্যান ছিলেন ২৫জন। হনুমা বিহারী হলেন ২৬তম ভারতীয় ব্যাটসম্যান। তাঁর আগে শেষ ভারতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে গত বছর জুলাইয়ে গলে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে হার্দিক পান্ড্য টেস্ট অভিষেকেই অর্ধশতরান করেছিলেন।

আরও পড়ুন: আম্পায়ারের সিদ্ধান্তে অসন্তোষ, জরিমানা অ্যান্ডারসনের​

আরও পড়ুন: ১৮০০০ রানে দ্রুততম কোহালি, টপকে গেলেন লারাকে

অর্ধশতরানের কিছুক্ষণ পরেই হনুমা বিহারী অবশ্য ফিরলেন সাজঘরে। মইন আলির বলে উইকেটকিপার জনি বেয়ারস্টোকে ক্যাচ দিলেন তিনি। রিভিউ নিয়েও লাভ হয়নি। ৫৬ রানে ফিরতেই হল তাঁকে। ১২৪ বলের ইনিংসে সাতটি চার ও একটি ছয় মেরেছেন হনুমা। তার আগে সপ্তম উইকেটে রবীন্দ্র জাদেজার সঙ্গে ৭৭ রান যোগ করেন তিনি।  

স্কোয়াডে করুণ নায়ার থাকতেও কেন তাঁকে পঞ্চম টেস্টে নামানো হল, এই নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন প্রাক্তনরা। হনুমার ইনিংস সব প্রশ্নেরই উত্তর হয়ে উঠল। পাশাপাশি, ক্রিকেটমহলে নতুন চর্চার জন্মও দিল। এখন বলা হচ্ছে, প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে সফল হওয়া ক্রিকেটারকে জাতীয় দলে আনলে কী হয়, তা জমাট টেকনিকের হনুমাই দেখিয়ে দিলেন।

আরও পড়ুন: ফেসবুকে বিয়ের ঘোষণা উইকেটকিপার সঞ্জু স্যামসনের​

আরও পড়ুন: বিদায়ী টেস্টে টিউবে চড়ে মাঠে এলেন কুক​

প্রথম ইনিংসে ইংল্যান্ড তুলেছিল ৩৩২ রান। দ্বিতীয় দিনের শেষে ছয় উইকেটে ১৭৪ তুলে রীতিমতো চাপে ছিল ভারত। হনুমার অর্ধশতরানের সুবাদে রবিবার মধ্যাহ্নভোজের বিরতিতে ভারত সাত উইকেটে ২৪০ রানে পৌঁছল। সিরিজের ফয়সালা অবশ্য আগেই হয়ে গিয়েছে। ৩-১ ফলে এগিয়ে রয়েছে জো রুটের দল।

(ক্রিকেটের খবর,ফুটবলের খবর, টেনিসের খবর, হকির খবর - খেলার খবরের সেরা ঠিকানা আমাদের খেলা বিভাগ।)