বিশ্বকাপের প্রস্তুতি ম্যাচ শুরু হল অঘটন দিয়ে। শুক্রবার ব্রিস্টলে তিন উইকেটে পাকিস্তানকে হারিয়ে নিজেদের উপস্থিতি জানান দিল রশিদ খানদের আফগানিস্তান। 

শুরুতে ব্যাট করে পাকিস্তান ২৬২ রানে অলআউট হয়ে যায়। সেই রান তাড়া করে দু’বল বাকি থাকতেই জয়ের রান তুলে নেয় আফগানিস্তান। সাত উইকেট হারিয়ে আফগানরা তোলে ২৬৩ রান। ১০২ বলে অপরাজিত ৭৪ রান করে আফগানদের জয়ের নায়ক হাশমাতুল্লাহ শাহিদি। 

ম্যাচ শেষে জয়ের আনন্দে তিনি বলেও গেলেন, ‘‘অনেক আফগান আজ ম্যাচ দেখতে এসেছিলেন। যা একটা বাড়তি প্রেরণা হিসেবে কাজ করেছিল। পাকিস্তানের বোলিং বিশ্বের অন্যতম সেরা। সমর্থকদের সামনে সেই বোলিং আক্রমণের বিরুদ্ধে ম্যাচ জেতার আনন্দই আলাদা।’’ সঙ্গে যোগ করেন, ‘‘মাঝখানের ওভারে বেশ কয়েকটি উইকেট চলে গিয়েছিল। তাই মাথায় রেখেছিলাম, ম্যাচ শেষ করে প্যাভিলিয়নে ফিরতে হবে। সেটা করতে পেরে ভাল লাগছে। এই জয় আত্মবিশ্বাস বাড়াবে।’’

টস জিতে আগে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন পাকিস্তান অধিনায়ক সরফরাজ় আহমেদ। তাদের দুই ওপেনার ফখর জ়ামান (১৯) ও ইমাম উল হক (৩২) বড় রান পাননি। পাকিস্তানের হয়ে রান বাড়ানোর দায়িত্ব নেন বাবর আজ়ম। ১০৮ বলে ১১২ রান করে যান তিনি। তিনি ও শোয়েব মালিক (৪৪) ১০৩ রানের জুটি গড়ে দলের রান বাড়ানোর দায়িত্ব নেন। তবে বাবর আজ়ম ও শোয়েব মালিক ছাড়া কোনও ব্যাটসম্যানই দাপট দেখাতে পারেননি দওলত জ়াদরান (২-৩৭), মহম্মদ নবি (৩-৪৬) ও রশিদ খানের (২-২৭) সামনে। 

জবাবে শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক মেজাজে শুরু করেছিল আফগানিস্তান। হজ়রতুল্লা জ়াজ়াই (৪৯) পাল্টা লড়াই ছুড়ে দেন। কিন্তু দ্রুত জ়াজ়াই ও রহমত শাহ (৩২) আউট হয়ে ফিরলে ২০ ওভারে আফগানিস্তানের রান দাঁড়ায় ১১৯-২। এই জায়গা থেকেই খেলা ধরে আফগানিস্তানের জয় ছিনিয়ে আনেন হাশমাতুল্লাহ। ৪৬ রানে তিন উইকেট নেন ওয়াহাব রিয়াজ়।

এর আগে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ওয়ান ডে সিরিজে ০-৪ হেরেছে পাকিস্তান। শুক্রবার প্রস্তুতি ম্যাচ হেরে হতাশ পাক অধিনায়ক সরফরাজ় আহমেদ বলে গেলেন, ‘‘১৫-২০ রান কম উঠেছে। প্রথম দশ ওভারে ভাল বোলিংও হয়নি। তার সুযোগ নিল আফগানিস্তান। পরপর ম্যাচ হারতে থাকলে খারাপ লাগেই। চেষ্টা করছি দ্রুত এই পরিস্থিতি থেকে বেরিয়ে আসার।’’

ম্যাচ জিতে আফগান অধিনায়ক গুলবাদিন নইব বলছেন, ‘‘আফগানিস্তানের মানুষের জন্য এটা বিশাল জয়। শুরুতে উইকেট দেখে মনে হয়েছিল ৩০০-র বেশি রান উঠতে পারে। কিন্তু সেখানে পাকিস্তানকে ২৬২ রানে আটকে রাখা বোলারদের বিশাল কৃতিত্ব।’’

সংক্ষিপ্ত স্কোর: পাকিস্তান ২৬২ (বাবর আজ়ম ১১২, শোয়েব মালিক ৪৪, মহম্মদ নবি ৩-৪৬) আফগানিস্তান ২৬৩-৭ (হাশমাতুল্লাহ শাহিদি অপরাজিত ৭৪, ওয়াহাব রিয়াজ় ৩-৪৬)।