শেষ পর্যন্ত অস্ট্রেলিয়া শিবিরে স্বস্তি। গত কাল আন্দ্রে রাসেলের বাউন্সারে চোট পেয়ে হাসপাতালে যেতে হয়েছিল উসমান খোয়াজাকে। বৃহস্পতিবার জানা গিয়েছে, অস্ট্রেলীয় ব্যাটসম্যানের চোট সে রকম গুরুতর নয়। 

প্রস্তুতি ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারানোর পরে শন মার্শ এসে বলে যান, ‘‘খোয়াজার চোয়ালে চোট লেগেছিল। প্রথমে আমরা খুব ভয় পেয়ে গিয়েছিলাম। পরে জানা গিয়েছে, চোট সে রকম গুরুতর নয়। ও খুব লড়াকু ছেলে। চোট ভুলে মাঠে নামার জন্য তৈরি আছে।’’

ভারত-পাকিস্তানের বিরুদ্ধে অস্ট্রেলিয়া যে জোড়া ওয়ান ডে সিরিজ জিতে এসেছে, তাতে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা নিয়েছিলেন খোয়াজা। বিশ্বকাপেও তাঁর ব্যাটের দিকে তাকিয়ে দল। খোয়াজার বড় প্লাস পয়েন্ট হল তাঁর স্পিন খেলার দক্ষতা। অস্ট্রেলিয়ার প্রাক্তন অধিনায়ক রিকি পন্টিং মনে করেন, অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটসম্যানরা কেমন স্পিন খেলেন আর স্পিনাররা কেমন বল করেন, তার উপর বিশ্বকাপ ভাগ্য অনেকটা নির্ভর করে থাকবে।

দু’বারের বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক পন্টিং বলেছেন, ‘‘গত ১২-১৮ মাসে আমাদের এটাই সমস্যা ছিল। স্পিন খেলা এবং ভাল স্পিন করা। এখন অবশ্য ছবিটা বদলেছে। অ্যাডাম জাম্পা ভাল বল করছে। দলে নেথান লায়নের মতো স্পিনার আছে। গ্লেন ম্যাক্সওয়েলও সুযোগ পেলে বল হাতে ভাল করছে।’’ 

পন্টিং মনে করেন, বছর খানেক আগেও অস্ট্রেলিয়ার মিডল অর্ডার ব্যাটিংয়ের স্পিন খেলা নিয়ে যে সমস্যাটা ছিল, তা এখন অনেকটাই কমে এসেছে। তা ছাড়া স্টিভ স্মিথ এবং ডেভিড ওয়ার্নার দলে ফিরে আসায় ব্যাটিং-শক্তি অনেক বেড়েছে বলেই মনে করেন পন্টিং। অস্ট্রেলিয়ার এই কিংবদন্তি ব্যাটসম্যান বলেছেন, ‘‘বছর দেড়েক আগে আমাদের মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যানরা যে রকম স্পিন খেলত, এখন তার চেয়ে ভাল খেলছে। তার পরে ওয়ার্নার, স্মিথ ফিরে আসায় স্পিনের বিরুদ্ধে আমার ব্যাটিং শক্তি বেড়ে গিয়েছে।’’ 

নির্বাসন কাটিয়ে উঠে দলে ফিরেছেন স্মিথ, ওয়ার্নার। দু’জনেই আইপিএলে ভাল খেলে এসেছেন। বিশেষ করে ওয়ার্নার। যা নিয়ে পন্টিং বলেছেন, ‘‘দু’জনেই ভাল ছন্দে আছে। তবে স্মিথ মনে করছে, ও এখনও একশো ভাগ সুস্থ হয়ে উঠতে পারেনি। কিন্তু দ্রুত সুস্থ হওয়ার দিকে এগোচ্ছে। আর আইপিএলে ওয়ার্নার কী রকম খেলেছে, তা তো সবাই জানে।’’

তবে এই দু’জনকে নিয়ে অন্য একটা চিন্তাও আছে। বিশ্বকাপ চলাকালীন এই দু’জনের সঙ্গে কী রকম আচরণ করে দর্শকরা, তা নিয়ে উদ্বেগ তৈরি হয়েছে। দিন কয়েক আগে ইংল্যান্ডের অলরাউন্ডার মইন আলি ইংরেজ দর্শকদের অনুরোধ করেছিলেন, দুই অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটারের সঙ্গে সংযত ব্যবহার করতে। পন্টিং বলছেন, ‘‘স্মিথ, ওয়ার্নার— দু’জনেই দারুণ ক্রিকেটার। তবে ওরা জানে, দর্শকদের নিয়ে সমস্যা হতে পারে। কিন্তু স্মিথ, ওয়ার্নার— দু’জনেই পোড় খাওয়া ক্রিকেটার। ভালই জানে, কী করে এ সব সামলাতে হয়।’’ 

আমলা তৈরি: বেশ কিছু দিন মাঠের বাইরে থাকার পরে অবশেষে ক্রিকেটে ফিরছেন তিনি। বাইশ গজ থেকে দূরে থাকার ফলে তিনি এখন আরও ক্ষুধার্ত, আরও বেশি করে সাফল্যের তাজ মাথায় পড়তে চান। বিশ্বকাপ অভিযানে নামার আগে এ কথা বলছেন হাসিম আমলা। এক সময়ের দক্ষিণ আফ্রিকার ব্যাটিংয়ের অন্যতম স্তম্ভ আমলা মাঝে খারাপ ফর্মের জন্য দলে জায়গা হারিয়েছিলেন। শ্রীলঙ্কা সফরে ওয়ান ডে সিরিজে আমলার জায়গায় দলে নেওয়া হয়েছিল আইডেন মার্করামকে। আইপিএলেও সুযোগ পাননি দক্ষিণ আফ্রিকার এই অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান।  বিশ্বকাপে আবার দলে ফিরিয়ে আনা হয়েছে আমলাকে। ইংল্যান্ডে পা দিয়ে আমলা বলেছেন, ‘‘অনেক কিছুই ঘটে যা আপনি প্রত্যাশা করেন না। আমার ক্ষেত্রেও তাই হয়েছে। আমি বিশ্বাস করি, যাই ঘটুক না কেন, সেটা ভালর জন্যই।’’