ইডেনে কলকাতা নাইট রাইডার্সের বিরুদ্ধে খেলানো হতে পারে ডেল স্টেনকে। এমনই ইঙ্গিত আরসিবি বোলিং কোচ আশিস নেহরার। 

শেষ দু’বছরে ইডেনের উইকেট বদলে গিয়েছে। মন্থর পিচের পরিবর্তে গতিময় পিচে খেলা শুরু হয়েছে। সেখানে স্টেনের মতো পেসারকে নামিয়ে দিলে খুব একটা খারাপ সিদ্ধান্ত হবে না।

নেহরা বলেন, ‘‘স্টেনের খেলার সুযোগ অনেক বেশি। তাই তো ওকে আনা হয়েছে। সবাই জানি, জীবন্ত পিচে কতটা ভয়ঙ্কর ও হতে পারে। তাই তো কুল্টার-নাইলের পরিবর্তে ওর নামই প্রথম ভাবা হয়েছে।’’

আরও পড়ুন: আরসিবির মাস্ট উইন ম্যাচে কেমন হতে পারে নাইটদের প্রথম একাদশ?

আট ম্যাচের মধ্যে সাতটি হেরেও প্লে-অফের আশা শেষ হয়নি আরসিবি-র শিবিরের। নেহরা বলছিলেন, ‘‘১৪ ম্যাচ জিতেও যে প্লে-অফ খেলা যায় তা আগেও আমরা দেখেছি। এ ধরনের মুহূর্তে প্লে-অফের চিন্তা না করে ভাল ক্রিকেট উপহার দেওয়ার উপর বেশি জোর দেওয়া উচিত।’’

দল হারলেও পেসারদের প্রশংসা করে গেলেন আরসিবি বোলিং কোচ। কিন্তু যে দলের পেসারেরা ‘ডেথ ওভার’-এ এত রান দিচ্ছেন, তাঁদের কেন এগিয়ে রাখছেন নেহরা? তাঁর কথায়, ‘‘কোন দলে তিন জন পেসার আছে যারা ১৪০ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টার বেশি গতিতে বল করতে পারে? আমাদের সেই প্রতিভা রয়েছে। সিরাজের ছন্দ নিয়ে প্রশ্ন উঠতে পারে। কিন্তু এক জন পেসারের আত্মবিশ্বাস ফিরে পেতে মাত্র দু’টি ম্যাচ লাগে।’’ 

তরুণ পেসার নবদীপ সাইনির বোলিংয়েও মুগ্ধ কোচ। বলছিলেন, ‘‘ওএনজিসির হয়ে ক্লাব ক্রিকেট খেলার সময় দু-একটি ম্যাচে অনেক রান দিয়েছিল সাইনি। আমাকে কয়েক জন বলেছিল কী করে এই ছেলেকে তিন কোটি টাকা দিয়ে নিল আরসিবি? আমি বলেছিলাম অপেক্ষা করো। আজ দেখলে বোঝা যাবে, বিশ্বকাপে স্ট্যান্ডবাই হিসেবে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে ওকে। হতে পারে আসন্ন বিশ্বকাপেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হল ওর। ভাল বোলার হওয়ার সব রকম রসদ ওর মধ্যে রয়েছে।’’ কিন্তু বিপক্ষে আন্দ্রে রাসেল না খেললে এই দ্বৈরথ উপভোগ করবেন না নেহরা। বলে গেলেন, ‘‘আমরা চাই রাসেল খেলুক। তবেই বোঝা যাবে আমরা ওকে আটকাতে পারি কি না।’’

ইডেনের প্র্যাক্টিস পিচ নিয়ে অসন্তোষ যেন শেষই হচ্ছে না। বুধবার কেকেআরের প্র্যাক্টিস পিচে অসমান বাউন্সের জন্য চোট পান আন্দ্রে রাসেল। এ দিন প্র্যাক্টিস পিচে অসমান বাউন্সের অভিযোগ জানিয়ে গেল রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরও।