আর অশ্বিনের মাঁকড়ীয় আউট নিয়ে নিজেদের মতামতে একেবারে একশো আশি ডিগ্রি ঘুরে গেল ক্রিকেটের অভিভাবক সংস্থা মেরিলিবোন ক্রিকেট ক্লাব (এমসিসি)। তারা জানিয়ে দিল, এ ক্ষেত্রে জস বাটলারকে যে ভাবে আউট করেছেন অশ্বিন, তা ক্রিকেটের স্পিরিট মেনে হয়নি।

গত সোমবার জয়পুরে রাজস্থানের ব্যাটসম্যান বাটলারকে নন-স্ট্রাইক প্রান্তে ক্রিজ ছেড়ে বেরিয়ে আসার পরে বল করতে আসা অশ্বিন রান আউট করেন। অশ্বিন অপেক্ষা করেছিলেন বাটলারের ক্রিজ ছাড়ার, তার পরেই বেল ফেলে দেন। ক্রিকেটের ইতিহাসে যে ধরনের আউট পরিচিত প্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেটার বিনু মাঁকড়ের নামে ‘মাঁকড়ীয় আউট’। তবে অনেকেই মনে করেন এই ধরনের আউট খেলোয়াড়সুলভ মানসিকতার পরিচয় দেয় না। এক বার অন্তত আউট করার আগে ব্যাটসম্যানকে সতর্ক করে দেওয়া উচিত। এই আউট নিয়ে এর আগে এমসিসি বলেছিল, ‘‘বাটলারকে আউট করার আগে অশ্বিনকে এক বার সতর্ক করে দিতেই হত, আইনে এমন কোনও কথা লেখা নেই। তা ছাড়া সময়ের আগেই ক্রিজ ছেড়ে বেরিয়ে এসে সুবিধে নেওয়ার চেষ্টা করা ব্যাটসম্যানকে মাঁকড়ীয় আউটও ক্রিকেটের স্পিরিটের বিরুদ্ধে নয়।’’

সেই অবস্থান পাল্টে এমসিসির ম্যানেজার অফ দ্য ল, ফ্রেসার স্টুয়ার্ট  ইংল্যান্ডের মিডিয়ায় বৃহস্পতিবার জানিয়েছেন, ‘‘ঘটনাটার ভিডিয়ো বারবার দেখার পরে আমাদের মনে হয়ছে এই আউটের ক্ষেত্রে ক্রিকেটের স্পিরিট মানা হয়নি। আমাদের বিশ্বাস, ক্রিজে পৌঁছনোর পরে অনেকটা সময় নিয়েছিল অশ্বিন। ততক্ষণে বলটা করার আশা করাই স্বাভাবিক। বাটলার যখন ধরে নিয়েছিল বলটা ডেলিভারি হচ্ছে, তখন ও ক্রিজেই ছিল। তবে অশ্বিন বলটা করতে দেরি করলেও বাটলার কিন্তু সে রকম মরিয়া চেষ্টা করেনি ক্রিজে ফেরার।’’

তিনি আরও বলেছেন, ‘‘এটাও বলতে চাই আমরা যে নন স্ট্রাইকার প্রান্তে থাকা ব্যাটসম্যানদের পক্ষেও সময়ের আগে ক্রিজ ছেড়ে বেরিয়ে যাওয়া অন্যায় এবং তা ক্রিকেটের স্পিরিটের বিরুদ্ধে। আর সবচেয়ে বড় কথা বোলার যদি বলটা করার আগে নন স্ট্রাইকার ক্রিজ ছেড়ে বেরিয়ে না আসে, এ সব বিতর্কই হয় না।’’

বিতর্ক কাটিয়ে বুধবার ইডেনেও জয়ের ধারাবাহিকতা ধরে রাখার পরীক্ষা ছিল পঞ্জাবের। সেই লড়াইয়ে পঞ্জাবকে হারিয়ে দেন আন্দ্রে রাসেল। নাইট রাইডার্স তারকার ব্যাটিং ঝড় সামলাতে পারেনি পঞ্জাব। তবে রাসেলের যখন তিন রান, তাঁকে বোল্ড করে দিয়েছিলেন মহম্মদ শামি। কিন্তু আম্পায়ার নো বল ডাকেন। ৩০ গজের বৃত্তের মধ্যে চার জন ফিল্ডার না থাকায়। জীবন ফিরে পেয়ে রাসেল ১৭ বলে ৪৮ রান করে দলকে ২১৮ রানে পৌঁছতে সাহায্য করেন। 

অধিনায়ক অশ্বিন যে ঘটনার দায় নিজের কাঁধে নিয়ে বলেছেন, ‘‘আমরা ছোট ছোট ব্যাপারগুলো খেয়াল করিনি। এই ফর্ম্যাটে যে ভুল বড় আকার নিতে পারে। এর পরের ম্যাচে অবশ্যই আমাদের সেগুলো নজর রাখতে হবে। এই নো বলের জন্য দায় আমার।’’ প্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেটার মদন লাল আবার বলেছেন, অশ্বিনের মাকঁড়ীয় আউটের সমালোচনা করে বলেছেন, ‘‘আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অশ্বিনের যা সাফল্য এবং ভাবমূর্তি, সে দিক থেকে আমি একেবারেই মনে করি না অশ্বিন ঠিক কাজ করেছে। এত বড় খেলোয়াড়ের এতটুকু ব্যাপারে জড়ানো উচিত হয়নি।’’