পরের বছর ইংল্যান্ডে বিশ্বকাপ শুরু হচ্ছে ৩০ মে। ভারত অভিযান শুরু করছে ৬ জুন। বিশ্বকাপের কথা ভেবে আইপিএল কি এগিয়ে আসবে? এমন খবরই রয়েছে ক্রিকেটমহলে।

এক ক্রিকেট ওয়েবসাইটের প্রকাশিত খবর অনুসারে, পরের বছর ২৩ মার্চ শুরু হতে পারে আইপিএল। ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্ট চাইছে যে বিশ্বকাপের প্রস্তুতির জন্য যেন অন্তত দুই সপ্তাহ বিশ্রাম দেওয়া হয় পেসারদের। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে গড়া প্রশাসকদের কমিটি বা সিওএ-কে গত মাসের বৈঠকে তাই বিরাট কোহালি অনুরোধ করেছিলেন জশপ্রীত বুমরা, ভুবনেশ্বর কুমারের মতো পেসারদের আইপিএলে না খেলানোর জন্য। বিশ্বকাপে তাঁদের তরতাজা অবস্থায় পাওয়াই ছিল উদ্দেশ্য।  

আর এখানেই সমস্যা। ফ্র্যাঞ্চাইজিরা প্রধান বোলারদের না খেলানোর অনুরোধ মানতে কতটা রাজি থাকবে, তা নিয়ে সংশয় রয়েছে। এই অবস্থায় আইপিএল এগিয়ে আনা ছাড়া বোর্ডের সামনে অন্য রাস্তা নেই। জানা গিয়েছে, সিওএ-র সঙ্গে বৈঠকে ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহালি যখন এই প্রস্তাব দেন, তখন বৈঠকে হাজির রোহিত শর্মা খুব একটা আগ্রহ দেখাননি। মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের অধিনায়ক রোহিত নিশ্চয়ই ভেবেছেন বুমরাকে ছাড়া তাঁর দলের বোলিং আক্রমণ হারাবে তীক্ষ্ণতা। একই ভাবে সানরাইজার্স হায়দরাবাদও নিশ্চয় ভুবনেশ্বর কুমারকে ছাড়তে চাইবে না।

আরও পড়ুন: মন্তব্য বিকৃত করা হয়েছে, কোহালির পাশে কাইফ​

আরও পড়ুন: স্লিপ, মিড অন তো জানেন, কাউ কর্নার বা লং স্টপ কোন জায়গাটাকে বলে জানেন?

অবশ্য শুধু আইপিএল এগিয়ে আসাই ক্রিকেটপ্রেমীদের আগ্রহের একমাত্র জায়গা নয়। ২০১৯ সালের আইপিএল দেশে নাও হতে পারে। সাধারণ নির্বাচনের দিনক্ষণ এখনও ঘোষিত হয়নি। তা জানা যাওয়ার পরে বিসিসিআই আইপিএল কোথায় হবে, তা নিয়ে সিদ্ধান্ত নেবে। বিকল্প হিসেবে বোর্ড ভাবছে দক্ষিণ আফ্রিকার কথা। ২০০৯ সালে নির্বাচনের কারণেই আইপিএল সেই দেশে হয়েছিল। এ বারও তেমন পরিস্থিতি হলে আইপিএল হতে পারে দক্ষিণ আফ্রিকায়।

(আইসিসি বিশ্বকাপ হোক বা আইপিএল, টেস্ট ক্রিকেট, ওয়ান ডে কিংবা টি-টোয়েন্টি। ক্রিকেট খেলার সব আপডেট আমাদের খেলা বিভাগে।)