রবিবারে হেডিংলেতে মাত্র এক উইকেট হাতে নিয়ে জয় ছিনিয়ে নেয় ইংল্যান্ড। বেন স্টোকসের অদম্য লড়াইকে কুর্নিশ জানায় ক্রিকেট বিশ্ব। মাঠে নামার আগে বেন স্টোকসের মাথায় কি ভাবনা ছিল এবারে তা নিয়ে মুখ খুললেন ইংরেজ পেসার জেমস অ্যান্ডারসন। এই প্রসঙ্গে তিনি বলেন “ড্রেসিংরুমে তখন সবাই বেনের দিকেই তাকিয়েছিল। মাঠে নামার আগে বেন আমাদের বলে যায় আমি এটা করব। আর এই বিশ্বাসই ভরসা জুগিয়েছিল জো রুট, জনি বেয়ারস্টো আর জো ডেনলিকে।”

টেস্টের শেষ দিনে অস্ট্রেলিয়ার ৩৫৯ রানের পাহাড় প্রমাণ রান তাড়া করতে নেমে শুরুটা ভাল হয়নি জো রুটদের। ৭৭ রানের ইনিংস খেলে  ইংরেজ অধিনায়ক ফিরে যেতেই নড়বড়ে হয়ে পড়ে ইংলিশ ব্যাটিং লাইনআপ। উইকেটরক্ষক বেয়ারস্টোকে সঙ্গে করে স্টোকস পাল্টা মার শুরু করেন।

কিন্তু, ৩৬ রানে বেয়ারস্টো ফিরতেই ক্রমে ম্যাচ থেকে হারিয়ে যেতে শুরু করে ইংল্যান্ড। সবাই যখন ধরেই নিয়েছে অজিদের কাছে আত্মসমর্পণ করতে চলেছে ব্রিটিশ ব্রিগেড। ঠিক তখনই ঝলসে ওঠে স্টোকসের ব্যাট। একা দাঁতে দাঁত চেপে অদম্য লড়াই চালিয়ে যান নেথান লায়ন, হেজেলউডদের বিরুদ্ধে। স্টোকস ক্রিজ আঁকড়ে থাকলেও অপরপ্রান্তে নিয়মিত উইকেট খোয়াতে থাকে ইংল্যান্ড। এক সময়ে ইংল্যান্ডের স্কোর গিয়ে দাঁড়ায় ২৮৬/৯। সেই সময়ে ব্যাট করতে নামেন ইংরেজ স্পিনার জ্যাক লিচ।  

আরও পড়ুন: এই ১ রান আমার ৯২ রানের ইনিংসের চেয়েও দামি, বলছেন লিচ

আরও পড়ুন: ফের ‘বিগ বেন’ রূপকথা, অবিশ্বাস্য জয় ইংল্যান্ডের

শেষ উইকেট পার্টনারশিপে লিচকে সঙ্গে নিয়ে ৬২ বলে ৭৬ রান করেন এই বাঁহাতি অলরাউন্ডার।যে পার্টনারশিপের ৭৪ রান করেন স্টোকস।১৭ বল খেলে মাত্র এক রান করেন লিচ।যে বলেএ কমাত্র রানটি করেনএই ইংরেজস্পিনার, তার ঠিক পরেই হেজেলউডের বল কভারের উপর দিয়ে সপাটে চালিয়ে বাউন্ডারি পার করে ম্যাচ জিতিয়ে দেন স্টোকস।তাঁর অপারজিত ১৩৫ রানের ইনিংসকে কুর্নিশ জানিয়েছেন ক্রিজের অপর প্রান্তে থাকা জ্যাক লিচ।

আর এই ম্যাচ নিয়ে বলতে গিয়ে জেমস অ্যান্ডারসন বলেন, “এখানে মানসিকতাই পার্থক্য গড়ে দেয়। এই রকম পরিস্থিতিতে যখন তুমি ব্যাট করতে নামবে সেখানে পারব না বলে কিছু হয় না। লাঞ্চের সময় বেন স্টোকস ড্রেসিংরুমে এসে বলেছিল আগামী দু ঘণ্টা জেতার জন্য নয় শুধু ব্যাট করে যাও।”

সেই কথাই অক্ষরে অক্ষরে মেনে ছিলেন শেষ উইকেটে নামা ইংরেজ স্পিনার লিচ। ক্রিজ কামড়ে পড়ে ছিলেন আর তারপরেই স্টোকসের চওড়া ব্যাটে ভর করে চলতি অ্যাশেজে রূপকথার জয় ছিনিয়ে নেয় ইংল্যান্ড।