নিজের ক্রিকেট জীবনে ব্যাটসম্যানদের কাছে দুঃস্বপ্ন হয়ে উঠেছিলেন তিনি। তাঁর গতির সামনে অসহায় আত্মসমর্পণ করেছিলেন বিশ্বের একের পর এক ব্যাটসম্যান। সেই কিংবদন্তি ফাস্ট বোলার জেফ থমসন মনে করেন, এ বারের বিশ্বকাপেও এক ফাস্ট বোলারের গতি পুড়িয়ে দিতে পারে ব্যাটসম্যানদের। ফাস্ট বোলারের নাম যশপ্রীত বুমরা।

সোমবার সংবাদ সংস্থাকে সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে থমসন বলেছেন, ‘‘বুমরার গতির আগুনে পুড়ে যেতে পারে বিপক্ষের ব্যাটসম্যানেরা। বুমরা দারুণ বোলার। ও যত বেশি ক্রিকেট খেলছে, তত উন্নতি করছে।’’ বুমরার প্রশংসা অবশ্য এর আগেও করেছেন থমসন। আর অস্ট্রেলিয়ার এই ফাস্ট বোলারই নন, ভারতীয় পেসারের প্রশংসা শোনা গিয়েছে অনেক কিংবদন্তির মুখেই। যার মধ্যে অন্যতম হলেন সচিন তেন্ডুলকর। মুম্বই ইন্ডিয়ান্স আইপিএল চ্যাম্পিয়ন হওয়ার দিন সচিন বলে দিয়েছিলেন, ‘‘পরিষ্কার জানিয়ে দিচ্ছি, এই মুহূর্তে বিশ্বের সেরা বোলার হল যশপ্রীত বুমরা।’’

কেন বুমরা এত ভয়ঙ্কর হয়ে উঠছেন? কেউ কেউ বলেন, ব্যতিক্রমী অ্যাকশনের জন্য বুমরার বল বুঝতে পারা কঠিন হয়ে যায় ব্যাটসম্যানেদের পক্ষে। থমসন পাশাপাশি মুগ্ধ বুমরার গতিতেও। সাতের দশকের দুনিয়া কাঁপানো এই ফাস্ট বোলার বলেছেন, ‘‘বুমরা দারুণ জোরে বল করে। এই গতিই কিন্তু বিপক্ষকে ছারখার করে দিতে পারে। আবার প্রয়োজনে গতির হেরফেরও করতে পারে বুমরা।’’ পাশাপাশি থমসন এও বলেছেন, ‘‘বুমরার অ্যাকশনের জন্য ব্যাটসম্যানেরা ওর বল বুঝতে সমস্যায় পড়ে। ও ঠিক প্রথাগত অ্যাকশনের বোলার নয়। যে কারণে বুমরা বাকিদের চেয়ে আলাদা।’’ থমসন মনে করেন, এই বিশ্বকাপে দু’জন বোলার আলোচনার কেন্দ্রে থাকবেন। এক জন বুমরা। অন্য জন, দক্ষিণ আফ্রিকার কাগিসো রাবাডা। 

পেস বোলারদের নিয়ে কথা বলতে গিয়ে থমসনকে একটু চিন্তিত শোনায় মিচেল স্টার্কের ব্যাপারে। বেশ কিছু দিন বিশ্রামে থাকার পরে অস্ট্রেলিয়া দলে ফিরে এসেছেন এই বাঁ হাতি পেসার। থমসন বলেছেন, ‘‘আশা করব, এই বিশ্বকাপে ছন্দে থাকবে স্টার্ক। সাম্প্রতিক অতীতে ও কিন্তু সে রকম ভাল বল করতে পারেনি।’’ 

তবে স্টার্কের প্রতিভা এবং অতীত রেকর্ড থমসনকে আশাবাদী করে তুলেছে এই পেসারকে নিয়ে। ‘‘যদি নিজের পুরনো ছন্দে বল করতে পারে স্টার্ক, তা হলে ও কিন্তু ভয়ঙ্কর হয়ে উঠবে। ও যে কোনও দলের কাছে সম্পদ।’’ স্টার্কের জন্য বিশেষ পরামর্শও থাকছে থমসনের। কী সেই পরামর্শ? থমসন বলেছেন, ‘‘স্টার্ককে খুব জোরে বল করতে হবে। পাশাপাশি লাইন-লেংথও ঠিক রাখতে হবে। এর আগে ও অনেক রান দিয়ে ফেলছিল।’’

তবে বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়ার দল নির্বাচন নিয়ে খুশি হতে পারছেন না থমসন। প্রাক্তন অস্ট্রেলীয় পেসারের মতে, জশ হেজ্লউডকে অবশ্যই দলে রাখা উচিত ছিল। থমসনের মন্তব্য, ‘‘প্যাট কামিন্সকে নিয়ে আমার কোনও সমস্যা নেই। ওর প্রতিভা আছে। কিন্তু হেজ্লউডকে রাখা যেত। তা সত্ত্বেও বলব, আমাদের বোলিং আক্রমণ যথেষ্ট ভাল।’’