ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোহীন রিয়াল মাদ্রিদ এখন নতুন দল তৈরির কাছে লেগে পড়েছে। স্পেনের ক্লাবটির প্রথম ও প্রধান লক্ষ্য, পর্তুগিজ মহাতারকার বিকল্প খুঁজে পাওয়া। প্রথমই আসছে নেমার দা সিলভা স্যান্টোসের (জুনিয়র) নাম। কিন্তু প্যারিস সাঁ জারমাঁ এখনই তাঁকে বিক্রি করতে রাজি নয়। পিএসজি-র প্রেসিডেন্ট নাসের আল খেলাইফি পরিষ্কার বলেও দিয়েছেন সে কথা। বিকল্প হিসেবে আর যাঁকে ভাবা হচ্ছে সেই ফরাসি প্রতিভা কিলিয়ান এমবাপে এখনই প্যারিস ছাড়তে রাজি নন। এর আগেও তাঁকে আর্সেনালের মতো ক্লাব চেয়েছিল। কিন্তু তিনি ফ্রান্স ছাড়তে রাজি হননি। আপাতত যাঁর রিয়ালে আসার সম্ভাবনা সব চেয়ে বেশি, তিনি চেলসির স্ট্রাইকার এডেন অ্যাজার। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের ক্লাবটি তাঁকে  ভারতীয় মুদ্রায় ৮০০ কোটি টাকায় বিক্রি করে দিতে পারে বলে শোনা যাচ্ছে।

আপাতত রোনাল্ডোর জায়গায় কে আসতে পারেন রিয়ালে তা নিয়ে জল্পনাই বেশি হচ্ছে। এ দিকে জুভেন্তাসে এখন উৎসবের মেজাজ। একটি টুইটারের দাবি, সেখানে এখন মিনিটে একটা করি জার্সি বিক্রি হচ্ছে। ক্লাবের মহাতারকা ফুটবলারের আসন্ন আগমনকে স্মরণীয় করতে নানা প্রস্তুতিও শুরু হয়ে গিয়েছে। জুভেন্তাসের ফুটবলারদের মধ্যেও উৎসাহ কম নেই। জার্মানির সামি খেদিরা যেমন রিয়ালে রোনাল্ডোর সঙ্গে খেলেছেন। এখন তিনি জুভেন্তাসে। খেদিরার প্রতিক্রিয়া, ‘‘ওর সঙ্গে রিয়ালে দারুণ সময় কাটিয়েছি। আবার জুভেন্তাসেও ওর সঙ্গে খেলব ভাবতেই পারছি না। সত্যিই তর সইছে না।’’ রোনাল্ডো আসায় জুভেন্তাসে যাঁর গুরুত্ব অনেকটাই কমে যাবে বলে মনে করা হচ্ছে, সেই আর্জেন্টাইন পাওলো দিবালাও রোনাল্ডোকে শুভেচ্ছাই জানিয়েছেন।

পাশাপাশি রিয়ালে এত দিন রোনাল্ডোর সঙ্গে যাঁরা খেলেছেন তাঁরা কিছুটা হলেও বিষণ্ণ। টোনি খোস যেমন বলেছেন, ‘‘ওর জন্যই রিয়ালে এত ট্রফি জিততে পেরেছি আমরা। এত বছর ওর সঙ্গে দারুণ কাটিয়েছি। সত্যি ওকে খুব মিস করব। কিন্তু এ সব মেনে নিতেই হবে। এটাই জীবন। ক্রিশ্চিয়ানোর জন্য আন্তরিক শুভেচ্ছা।’’ আর সের্খিয়ো র‌্যামোসের প্রতিক্রিয়া, ‘‘মোটেই রোনাল্ডো আমাদের ছেড়ে চলে যাচ্ছে না। ও চিরকালই রিয়ালের হৃদয়ে থাকবে। রোনাল্ডোকে বাদ দিয়ে আমাদের ক্লাবের ইতিহাসই অসম্পূর্ণ থেকে যাবে।’’