• নিজস্ব প্রতিবেদন
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

পেলের নাম কী ভাবে ‘পেলে’ হল জানেন?

Pele
ফুটবল সম্রাট পেলে।

Advertisement

কোনও রাখঢাক না করে ফুটবল সম্রাট পেলে জানিয়ে দিলেন, তাঁর পছন্দের দলে লিয়োনেল মেসি থাকবেন, থাকবেন না ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো।

শুক্রবার নয়াদিল্লিতে এক অনুষ্ঠানে ব্রাজিলীয় কিংবদন্তি পেলে বললেন, ‘‘মেসির সঙ্গে রোনাল্ডোর তুলনা করা কঠিন। মেসি আর রোনাল্ডো সম্পূর্ণ আলাদা ভঙ্গিতে ফুটবল খেলে। অনেকেই আমার সঙ্গে জর্জ বেস্টের তুলনা করতেন। অথচ আমরা দু’জন দু’রকম খেলতাম। আর রোনাল্ডো পুরোপুরি সেন্টার ফরোয়ার্ড। কিন্তু মেসি আক্রমণটাকে তৈরি করে।’’ সঙ্গে যোগ করলেন, ‘‘আমাকে যদি নিজের দল বাছতে বলা হয়, তা হলে রোনাল্ডোকে নয়, মেসিকেই নেব।’’

তিনি কেন ফুটবল খেলায় এসেছিলেন জানতে চাওয়া হলে পেলের জবাব, ‘‘আমার বাবা ভাল সেন্টার ফরোয়ার্ড ছিলেন। উনিই আমাকে খেলতে শিখিয়েছেন। বাবা আমাকে বলতেন, ওঁর চেয়ে তিন গুণ বেশি গোল আমাকে করতে হবে। বাবাই আমার অনুপ্রেরণা ছিলেন।’’

পেলের আসল নাম এডসন অ্যারান্টেস ডু নাসিমেন্টো। নিজের নাম নিয়ে তাঁর মন্তব্য, ‘‘বিখ্যাত আবিষ্কারক থমাস আলভা এডিসনের সঙ্গে মিলিয়ে বাবা আমার নাম রেখেছিলেন। যখন খেলা শুরু করলাম তখন আমাকে সবাই ‘পেস’ বলে ডাকত। ‘পেস’ মানে পা। পর্তুগিজে বলে শট মারাকেও বলা হয় ‘পেস’। এই ‘পেস’ থেকেই এক সময় আমাকে পেলে ডাকা শুরু হল।’’

ছোটবেলায় পেলে স্বপ্ন দেখতেন করিন্থিয়াসে খেলার। কিন্তু এক্ষেত্রেও তাঁর বাবার জন্য তিনি স্যান্টোসে সই করেন। কারণ স্যান্টোসের প্রেসিডেন্ট পেলের বাবার ঘনিষ্ঠ ছিলেন। সঙ্গে জানালেন, ১৯৫৮ সালে বন্ধুদের কাছ থেকে ব্রাজিল জাতীয় দলে ডাক পাওয়ার খবর বিশ্বাসই করতে পারেননি, ‘‘বন্ধুরা খবরটা দেওয়ার পরে ওদের বলেছিলাম, তোমরা আমার সঙ্গে মজা করছ। যে বিমানে সুইডেনে উড়ে গেলাম সেটা দেখেও চমকে গিয়েছিলাম। কী বিশাল যে সেই বিমানটা ছিল।’’ 

তাঁর সঙ্গে খেলা সর্বকালের সেরা কোন কোন ফুটবলারকে বাছবেন জানতে চাওয়া হলে পেলে নাম করলেন গ্যারিঞ্চা, ডিডি আর ফালকাওয়ের। কিন্তু কোন ফুটবলারের খেলা দেখতে টিকিট কেটে মাঠে যাবেন জানতে চাওয়া হলে প্রতিক্রিয়া, ‘‘জিকো আর সক্রেটিসের খেলা টিকিট কেটে দেখতে চাইব।’’ প্রসঙ্গত জিকো ও সক্রেটিস— দু’জনই ব্রাজিলের বিরাশির বিশ্বকাপ দলে ছিলেন। যে দল সম্পর্কে বলা হয়, অসম্ভব প্রতিভাবান হয়েও কাপ জেতেনি।

তাঁর সময়ের থেকে এখনকার ফুটবল কতটা বদলে গিয়েছে জানতে চাওয়া হলে পেলের জবাব, ‘‘মাঠের মধ্যে খেলার কিছুই বদলায়নি। সবচেয়ে বড় পরিবর্তনটা হয়েছে মাঠের বাইরে নানা সুবিধা লাভের ক্ষেত্রে। আমাদের সময় এত ভাল ব্যবস্থা ছিল না।’’

সবাই যা পড়ছেন

Advertisement

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন